প্রতারক চক্রের খপ্পড়ে পড়ে এক ব্যক্তির ৪০ হাজার টাকা খোয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক>
যশোরে প্রতারক চক্রের খপ্পড়ে পড়ে কাউছার সরদার (৩৫) নামে এক ব্যক্তির ৪০ হাজার টাকা খোয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার দুপুরে যশোর শহরের খড়কি পিরবাড়ির সামনে। কাউছার সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার রতনপুর বাজারের আহম্মদ সরদারের ছেলে।
কাউছার সরদার অভিযোগ করেছেন, তিনি মাছের ব্যবসা করেন। সাতক্ষীরা থেকে বাসযোগে যশোরে এসে চাঁচড়া চেকপোস্ট এলাকায় আসেন। সেখান থেকে শ্বশুরবাড়ি শহরের খড়কি পিরবাড়ির সামনে যাওয়ার উদ্দেশ্যে একটি রিকসায় উঠেন। রিকসাটি মাগুরপট্টির মোড়ে পেট্রোল পাম্পের সামনে পৌঁছালে ওই রিকসা চালক আর যাবে না বলে জানায়। এবং অন্য একটি রিকসায় উঠিয়ে দেন। ওই রিকসায় যাত্রীবেশে এক প্রতারক ছিল। সে কাউছারের সাখে খড়কী পর্যন্ত যায় এবং তার জামার বুক পকেটের নিচের পকেট কৌশলে কেটে দেয়। ওই পকেটে ৪০ হাজার টাকা ছিল। কাউছার তার মেয়ে জামায়কে দেয়ার জন্য এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে টাকা নিয়ে আসছিলেন। তিনি যখন পীরবাড়ির সামনে রিকসা থেকে নামেন। সে সময় ওই প্রতারকও রিকসা থেকে নেমে চলে যায়। তিনি একটি বস্তার তার জামাইয়ের মাথায় উঠিয়ে দেয়ার সময় কাটা পকেট থেকে টাকা পড়ে যায়। ওই সময় রিকসা চালক টাকা উঠিয়ে দ্রুত রিকসা নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। তিনি সে সময় পকেটে হাত দিয়ে দেখেন তার টাকা নেই। দেখেন রিকসা চলাক দ্রুত পালিয়ে যাচ্ছে। সে সময় চিৎকার দিয়ে আশেপাশের লোকজনও ধাওয়া করে। পরে ওই রিকসা চলক রিকসা ফেলে একটি বাগানের মধ্যে দিয়ে পালিয়ে যায়। পরে রিকসাটি আটক করে তিনি কোতয়ালি থানায় গিয়ে পুলিশে অভিযোগ করেন। পুলিশ আটক রিকসার মালিক বা চালককে খোঁজ করার চেষ্টা করছে।
কোতয়ালি থানার ওসি (অপারেশন) শামসুদ্দোহা বলেছেন, অভিযাগকারীর কাছ থেকে শুনে এবং পকেট দেখে অবাক হচ্ছি যে-বুক পকেটের নিচের (সাধারণত চোরাই পকেট বলে) পকেট কাটলো কী ভাবে। উপরের দিক দেখলে বোঝা যাবে না যে পকেট কাটা। তার ধারণা প্রথম রিকসা চলাক দ্বিতীয় রিকসা চালক এবং যাত্রী সবাই প্রতারক চক্রের সদস্য। পকেট কেটে কৌশলে ওই ব্যক্তির টাকা নেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। পুলিশ আটক রিকসার মালিক এবং চালককে খোঁজ করার চেষ্টা করছে।