চৌগাছায় আ.লীগের প্রস্তুতি সভায় অ্যাড.মনির এমপি> যারা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিল তাদের প্রেত্মারা এখনও দেশের বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত

বাবুল আক্তার, চৌগাছা (যশোর)>
যশোরের চৌগাছায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২ তম শাহাদত বার্ষিকী পালনের জন্য এক প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় চৌগাছা পৌরসভার সভা কক্ষে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপজেলার আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি শাহাজান কবির। সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন চৌগাছা- ঝিকরগাছার মাননীয় সংসদসদস্য এ্যাড. মনিরুল ইসলাম মনির। তিনি বলেন ‘ স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের ইতিহাসে অত্যুজ্জল মহিমায় চিরস্মরণীয় হয়ে আছে যে নাম তা হলো জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান। নিপীড়িত জাতির ভাগ্যকাশে যখন সীমাহীন দুর্যোগের ঘনঘটা তখন সাহসী অবিসংবাদিত নেতা হিসেবে বঙ্গবন্ধুর আবির্ভাব। অন্ধকার অমানিশার সেই দুঃসময় অতিক্রম করে তিনি জাতিকে দিয়েছেন বিশ্বের মানচিত্রে একটি মর্যাদাপূর্ণ আসন। সমগ্র জাতিকে সুসংগঠিত করে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ করে বঙ্গবন্ধু বিপর্যস্ত জাতির সামনে খুলে দিলেন এক সোনালী ঊষার স্বর্ণদার’। যে মানুষ তাঁর সারাটি জীবন কাটিয়েছেন সমগ্র বাঙালি জাতির জন্য, তিনি সব সময় দরিদ্র বঞ্চিত মানুষের পাশে থাকতেন। অন্যায়ের বিরুদ্ধে ছিলেন সুস্পষ্ট প্রতিবাদি। সত্য ভাষণ যার স্বপ্ন ছিলো, সমাজ যার কাছে পরিবার ছিলো, স্বাধীনতার সেই মহানায়ককে যারা নির্মমভাবে হত্যা করল আবার তারাই বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের বাংলায় পুনর্বাসন করেছিল। এমনকি একটি পরিবারের সকলকে শহিদ করা হলো আর এ ঘটনায় বিচার করা যাবেনা বলে অধ্যাদেশ করে রাখলেন। একটি জাতির জন্য এর চেয়ে দুঃখজনক হতে পারেনা।
তিনি বলেন, যারা ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুর স্বপরিবারে হত্যা করেছিল সেই স্বাধীনতা বিরোধীরাই আজ আইএসের নামে দেশে জঙ্গিবাদ সৃষ্টি করছে। তিনি আরো বলেন ‘বঙ্গবন্ধ জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমান যখন জেলখানায় বন্দি ছিলেন তখন তাঁর সহধর্মীনি শেখ ফজিলাতুন্নেছা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন। তিনি তার পরিবারকে অসহায়ত্বের সময় বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে লালন করেছিলেন। সেই মায়ের সামনে তাঁর পুত্র সন্তান পরিবারের সদস্যদের নির্মমভাবে হত্যা করেছিল। এমনকি শিশু সন্তান শেখ রাসেলও সেই স্বাধীনতা বিরোধী শক্তির হাত থেকে সেদিন রক্ষা পায়নি। তিনি আরো বলেন ৭৫ যেমন আওয়ামীলীগে আওয়ামীলীগে বিভেদ তৈরি হয়েছিল ঠিক তেমনি আজ আওয়ামীলীগের নামধারী দুস্কতৃ কিছু মানুষ আওয়ামীলীগের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করার চেস্টা করেছে। কিন্তু বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জননেন্ত্রী শেখহাসিনার নেতৃত্তে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ আরো শক্তিশালি হবে। কোনো ষড়ন্ত্রই আওয়ামীলীগকে দমাতে পারবেন।

সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সহসভাপতি মিজানুর রহমান শান্তি মৃধা, তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম রাজ, চৌগাছা পৌরসভার মেয়র নুর উদ্দীন আল মামুন হিমেল, জেলা পরিষদের সসদস্য দেওয়ান তৌহিদুর রহমান মৃধাপাড়া মহিলা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ ড. মোস্তানিচুর রহমান, , মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আকলিমা খাতুন লাকি, ফুলশারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মেহেদি মাসুদ চৌধুরী, পাতিবিলা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিয়া, চেয়ারম্যান অবাইদুল ইসলাম সবুজ, সাবেক চেয়ারম্যান রেজাউর রহমান রেন্দু আলাউদ্দীন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের আহবায়ক জিয়াউর রহমান রিন্টু, যুগ্ম আহবায়ক সোহেল কবিরসহ ১১ টি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী।