ঝিকরগাছায় নিহত ওমর আলীর ছেলের সংবাদ সম্মেলন> আমার পিতার হত্যাকাণ্ড নিয়ে প্রকৃত হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে লিখুন ,যেন পিতৃহত্যার বিচার পাই

আবু সাঈদ মিলন,ঝিকরগাছা>
ঝিকরগাছা হাজিরবাগ ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ কর্মী ওমর আলীর ছেলে মিন্টু সংবাদ সম্মেলন করেছেন। গতকাল সন্ধ্যায় ঝিকরগাছা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে মিন্টু মোড়ল বলেন, আওয়ামী লীগ করতে এসে কিছুই পায়নি ,পেলাম পিতার লাশ। সংবাদ সম্মেলনে তিনি কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, সারাজীবন আমাদের পরিবারটি বঙ্গবন্ধু, শেখ হাসিনা আর আওয়ামী লীগের জন্য ত্যাগ করে গেল। কিন্তু বিনিময়ে আমরা পেলাম শুধুমাত্র আমার পিতার লাশ উপহার। মিন্টু মোড়ল যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতাল থেকে প্রাপ্ত তার পিতার মৃত্যুর সুরতহাল রিপোর্ট দেখে হতাশা ব্যাক্ত করেন এবং রিপোর্ট প্রত্যাখ্যান করেন।
এ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, আমার পিতার লাশের সুরতহাল রিপোর্ট দেখেই আশংকা হচ্ছে এ হত্যার বিচার পাব কি না ? কারা হত্যার সাথে জড়িত এবং তারা আওয়ামী লীগের কি পদে আছে এমন প্রশ্নের জবাবে পিতা হারিয়ে শোকাহত মিন্টু মোড়ল বলেন, আমার পিতা হত্যার প্রধান ভুমিকায় ছিলো, লিটন মেম্বর, তার পিতা ওহাব, তার ভাই রিপন, সামটা গ্রামের জিয়া, দেউলি গ্রামের মিন্টু মেম্বরসহ আরো ৭/৮ জন । তিনি আরো বলেন, লিটন মেম্বর ও তার পরিবার বিএনপি করতো, কখনও আওয়ামী লীগ করতো না। তারা গত ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী নির্বাচনের সময়ে আওয়ামী লীগে ঢুকে পড়ে এলাকায় সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি ও মাদক ব্যবসা করে আসছে বলেও অভিযোগ করেন। তিনি কান্না জড়িত কন্ঠে দাবি করেন আমার পিতার হত্যাকাণ্ড নিয়ে প্রকৃত হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে লিখুন ,যেন পিতৃহত্যার বিচার পাই।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন, হাজিরবাগ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মিন্টু, হাজিরবাগ ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিক সানা, নিহতের ভাই মোহর আলী, জাহাঙ্গীর হোসেন প্রমুখ।
অপরদিকে ওমর আলী হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় এখনও মামলাও হয়নি এবং পুলিশ কাউকে আটক দেখাতেও পারেনি। নিহতের পুত্র মিন্টু মোড়ল বলেন আইনজীবীর সাথে পরামর্শ করে শিগগির মামলা দেয়া হবে।
মিন্টু মোড়ল আরো বলেন,একটি মহল এই হত্যাকাণ্ড নিয়ে নোংরা খেলায় মেতেছে। বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় উদ্ভট নিউজ দেখে হতবাক হই। আমি তাদের উদ্দেশ্যে বলবো আমি পিতা হারিয়েছি, তাই আপনাদের কাছে আমার অনুরোধ এই হত্যাকান্ডের যাতে ন্যায় বিচার পেতে পারি তার সহযোগিতা করবেন, দয়া করে এই হত্যাকে রাজনৈতিকভাবে ব্যবহার করবেন না।
উল্লেখ্য গত ৬ আগস্ট হাড়িখালি বাজারে হয়রত আলীর চায়ের দোকানে হামলা করে ওমর আলীকে নির্মামভাবে হত্যা করা হয়।