যশোরে চার প্রতিষ্ঠান ও দুই ব্যক্তিকে জরিমানা ভ্রাম্যমাণ আদালতের

নিজস্ব প্রতিবেদক>
যশোরে চারটি প্রতিষ্ঠান ও দুই ব্যক্তিকে জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত । বেকারি, চায়ের দোকান, খাবার হোটেলে নোংরা পরিবেশ ও মিলে প্লাস্টিকের বস্তা ব্যবহারের অপরাধে মামলা দিয়ে এ জরিমানা আদায় করা হয়। মঙ্গলবার পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালতের নেতৃত্ব দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আরিফুর রহমান, আব্দুল্লাহ আল মাহাফুজ, জহির ইমাম, নাহিদ তামান্না ও সৈয়দ জাকির হাসান।
আদালতের পেশকার শেখ জালাল উদ্দিন জানান, বেলা সাড়ে এগারটার দিকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আরিফুর রহমানের নেতৃত্বে পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত শহরের টিবি ক্লিনিক মোড়ের বৈদ্যনাথ রাইচ মিলে অভিযান চালান। এ সময় পাটের বস্তার পরিবর্তে প্লাস্টিকের বস্তা ব্যবহারের অপরাধে মিল মালিক দীপঙ্কর সাহার বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে ২ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেন।
বেলা সাড়ে এগারটার দিকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল মাহফুজের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত নাজির শংকরপুর সাদেক দারোগার মোড়ের মিরাজের বেকারি ও অচিন্ত্য বিশ্বাসের চায়ের দোকানে অভিযান চালান। এ সময় নোংরা পরিবেশসহ বিভিন্ন অপরাধে ওই দুই দোকানিকে মোট ৬ হাজার টাকা জরিমানা করেন।
বিকেল ৪টার দিকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জহির ইমামের নেতৃত্বে পরিচালিত আরেকটি ভ্রাম্যমাণ আদালত শহরতলীর আরবপুর মোড়ের আনোয়ার হোসেনের খাবার হোটেলে অভিযান চালান। এ সময় হোটেলের ভিতরে নোংরা পরিবেশ এবং কাগজপত্র না থাকায় হোটেল মালিকের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে ৪ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেন।
বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাহিদ তামান্নার নেতৃত্বে পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত শহরের বিমানবন্দর রোডে অভিযান চালান। সেখানে ছাত্রছাত্রীদের সামনে প্রকাশ্যে ধুমপান করার অপরাধে শাহিন নামে এক ব্যক্তিকে আটক করে ২শ’ টাকা জরিমানা আদায় করেন।
এছাড়া বিকেল ৫টার দিকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ জাকির হাসানের নেতৃত্বে পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত কালেক্টরেট পুকুরে অবৈধভাবে মাছ ধরার অপরাধে শাহাদত হোসেন নামে এক ব্যক্তিকে আটক করে ২শ’ টাকা জরিমানা আদায় করেন।