বিচারের আশা নিয়ে মুকুল হত্যাবার্ষিকী পালন

নিজস্ব প্রতিবেদক>
বিচার চাওয়ার মধ্যে দিয়ে যশোরে পালিত হলো শহীদ সাংবাদিক আর এম সাইফুল আলম মুকুলের ১৯তম হত্যাবার্ষিকী। দিবসটি উপলক্ষে সাংবাদিকদের সংগঠনগুলো নানা কর্মসূচি পালন করে।
বুধবার সকালে প্রেসক্লাব যশোরের নেতৃত্বে সাংবাদিকদের বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মী ও সংবাদকর্মীরা শহরে শোকর‌্যালি বের করে। র‌্যালিটি বেজপাড়া মুকুল স্মৃতিস্তম্ভে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করে।
পরে প্রেসক্লাব মিলনায়তনে আলোচনা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। দোয়ার আগে প্রেসক্লাব সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন আলোচনা করেন। দোয়া অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন ক্লাব সম্পাদক এসএম তৌহিদুর রহমান।
এরপর সাংবাদিক ইউনিয়ন যশোর ক্লাবের দুই নম্বর কনফারেন্স রুমে স্মরণসভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে। ইউনিয়নের সভাপতি নূর ইসলাম এতে সভাপতিত্ব করেন। আলোচক ছিলেন সংগঠনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আহসান কবীর, শহীদ মুকুলের অনুজ কবিরুল আলম দিপু, ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক এম আইউব, সাইফুর রহমান সাইফ প্রমুখ।
আলোচকরা বলেন, সাইফুল আলম মুকুল সত্য, ন্যায়, সুষম সমাজ, গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার জন্য সব অসঙ্গতির বিরুদ্ধে কলম ধরেছিলেন। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত তিনি মুক্ত সাংবাদিকতা, মতপ্রকাশের স্বাধীনতার পক্ষে অবস্থান নেন। সে কারণে তাকে বেঁচে থাকতে দেওয়া হয়নি। যেমন বেঁচে থাকতে দেওয়া হয়নি তার বাবা গোলাম মাজেদ ও দাদাকে।
বক্তারা বলেন, সাইফুল আলম মুকুলের আরাধ্য সমাজ আজো আমরা প্রতিষ্ঠা করতে পারিনি। আজো সাংবাদিক খুন, নির্যাতন, জুলুম চলছে অব্যাহতভাবে। এই অবস্থা থেকে পরিত্রাণের জন্য মুকুলের আদর্শ ধারণ করে ঐক্যবদ্ধভাবে কলমযুদ্ধ চালিয়ে যেতে হবে।
তারা শহীদ মুকুলের আত্মার মাগফেরাত কামনা ও শোকসন্তপ্ত পরিবার-সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।
এদিকে, যশোর জেলা সাংবাদিক ইউনিয়ন দিবসটি উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে প্রেসক্লাবে। ক্লাবের এক নম্বর কনফারেন্স রুমে আয়োজিত সভায় সংগঠনটির কেন্দ্রীয় নেতা মহিদুল ইসলাম মন্টু, জেলা সভাপতি ফকির শওকত, প্রেসক্লাব যশোরের সম্পাদক তৌহিদুর রহমানসহ অন্যান্যরা আলোচনায় অংশ নেন। পরে মুকুলের রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া করা হয়।
১৯৯৮ সালের এই দিন দুর্বৃত্তদের গুলি-বোমায় প্রাণ হারান দৈনিক রানারের তৎকালীন সম্পাদক আর এম সাইফুল আলম মকুুল।