এএসপি মিজানুর হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন ৫ অক্টোবর

 

আদালত প্রতিবেদক >সাভার সার্কেলের হাইওয়ে পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) মিজানুর রহমান তালুকদার হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে আরো সময় পেয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ।
মিজানুর রহমানমঙ্গলবার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (পশ্চিম) পরিদর্শক সিরাজুল ইসলাম প্রতিবেদন দিতে ব্যর্থ হলে নতুন দিন ঠিক করে দেন ঢাকা মহানগর হাকিম আহসান হাবীব ।

বিচারক আগামী ৫ অক্টোবর তদন্ত প্রতিবেদন জমার তারিখ রেখেছেন বলে ঢাকার মহানগর পুলিশের প্রসিকিউশন কার্যালয় থেকে জানা গেছে।

গত ২১ জুন সকালে রাজধানীর রূপনগর বেড়িবাঁধ সংলগ্ন বিরুলিয়া ব্রিজের কাছে রাস্তার পাশে গলায় কাপড় পেঁচানো অবস্থায় সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) মিজানুর রহমান তালুকদারের পাওয়া যায়।

ওই ঘটনায় তার ছোট ভাই মাসুম তালুকদার রূপনগর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। কারও নাম উল্লেখ না করে অজ্ঞাত পরিচয় একাধিক ব্যক্তিকে মামলায় আসামি করা হয়।
মামলার এজাহারে বলা হয়, সেদিন ভোরে সেহেরি খাওয়ার পর সাধারণ পোশাকে উত্তরার বাসা থেকে কর্মস্থল সাভারের উদ্দেশে রওনা হয়েছিলেন এএসপি মিজানুর। যে জায়গায় তার লাশ পাওয়া গেছে, বাসা থেকে তা গাড়িতে ১৫ থেকে ২০ মিনিটের পথ।

এরপর গত ২২ জুলাই রাতে টঙ্গী এলাকা থেকে শাহ আলম নামের ওই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তারের পর পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়, এএসপি মিজান হত্যার পেছনে ছিল ছিনতাইয়ের ঘটনা।

ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মো. মনিরুল ইসলাম ২৩ জুলাই এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, শাহ আলমসহ চার ছিনতাইকারী সেদিন এএসপি মিজানকে একটি প্রাইভেটকারে তুলে নিয়েছিল। কিন্তু পুলিশ পরিচয় জানার পর তারা মিজানকে হত্যা করে।

গ্রেপ্তার শাহ আলমের কাছে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে মনিরুল জানিয়েছিলেন, ঘটনার দিন প্রাইভেটকারের চালকের আসনের ছিলেন জাকির। চালকের বাঁ পাশে ছিলেন শাহ আলম ওরফে বুড্ডা। পেছনে এএসপি মিজানকে মাঝে রেখে দুই পাশে বসেছিলেন মিণ্টু এবং কামাল ওরফে ফারুক। ঝুট কাপড়ের টুকরো গলায় পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে তারা মিজানকে হত্যা করে।