প্রবীণ সাংবাদিক শরফু’র ইন্তেকাল

নিজস্ব প্রতিবেদক>
যশোরে প্রবীণ সাংবাদিক শরিফুল ইসলাম শরফু (৭৫) ইন্তেকাল করেছেন। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না রাজিউন)।
মঙ্গলবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে যশোর শহরতলীর সীতারামপুরে নিজ বাড়িতে তিনি মারা যান। তিনি দীর্ঘদিন ধরে বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন।
পারিবারিক সূত্র জানায়, মরহুমের পিতৃপ্রদত্ত নাম মো. শরিফাতুল্লাহ। ১৯৪২ সালের ৬ অক্টোবর তিনি ভারতে জন্ম নেন। তার বাবা মরহুম হায়াত আলী। পরে হিন্দু-মুসলিম দাঙ্গার সময় সপরিবারে তৎকালীন পূর্বপাকিস্তানে চলে আসেন শরফু এবং বারান্দাপড়ায় বসবাস শুরু করেন। পরে তিনি সিতারামপুর দ্বিতীয় বিয়ে করে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত সেখানে ছিলেন। তিনি দুই স্ত্রী, পাঁচ ছেলে, তিন মেয়েসহ আত্মীয়-স্বজন রেখে গেছেন।
বাদজোহর সীতারামপুর শেখপাড়া জামে মসজিদে তার প্রথম নামাজে জানাজা হয়। প্রেসক্লাব যশোরের সহযোগী সদস্য শরফুর মরদেহ দুপুর আড়াইটায় ক্লাব ভবনে আনা হয়। সেখানে তাকে শেষ শ্রদ্ধা জানান প্রেসক্লাব যশোর, সাংবাদিক ইউনিয়ন যশোর, দৈনিক স্পন্দন পরিবার, লোকসমাজ পরিবার, জেডিইউজে ।
বাদআছর শহরের বারান্দীপাড়া দুই নম্বর কলোনি মসজিদে দ্বিতীয় নামাজে জানাজা শেষে তাকে বারান্দীপাড়া কবরস্থানে দাফন করা হয়।
শরিফুল ইসলাম শরফু গত শতকের নব্বইয়ের দশকের শুরুতে দৈনিক পূরবীতে সাংবাদিকতায় হাতেখড়ি নেন। এর পর তিনি কিছুদিন দৈনিক রানারে কাজ করেছেন। পরে তিনি সাংবাদিকতা ছেড়ে ব্যবসায় মনোযোগী হন। সাংবাদিকতাকালে তিনি সাংবাদিক ইউনিয়ন যশোরের কোষাধ্যক্ষ ছিলেন।
গত পয়লা বৈশাখ থেকে শরফু শারীরিকভাবে বেশ অসুস্থ ছিলেন। অবস্থার অবনতি হলে গত ২৬ আগস্ট তাকে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ৩১ তারিখ পর্যন্ত তিনি সেখানে চিকিৎসাধীন ছিলেন। এর পর ঈদের ছুটির প্রাক্কালে ডাক্তাররা তাকে বাড়িতে চলে যাওয়ার পরামর্শ দেন। একই সঙ্গে জানিয়ে দেন, শরফুর শারীরিক অবস্থা চিকিৎসকদের আওতার বাইরে চলে গেছে।