খুবির শিক্ষাসমাপনী অনুষ্ঠানের উদ্বোধন উৎসবমুখর পরিবেশে

খুলনা প্রতিনিধি>
শিক্ষা সাফল্যের ধারাবাহিকতায় নির্দিষ্ট মেয়াদে শেষ হলো খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরও একটি ব্যাচের শিক্ষাকোর্স। যারা ২০১৩ সালে ভর্তি হয় ঠিক চার বছরের নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই তাদের কোর্স শেষ হয়েছে। এ উপলক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৩ ব্যাচের শিক্ষার্থীদের তিনদিনব্যাপী শিক্ষা সমাপনী অনুষ্ঠান উৎসবমুখর পরিবেশে শুরু হয়েছে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান বেলা ১১ টায় এ উৎসবের উদ্বোধন করেন। বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে উদ্বোধনকালে উপাচার্য বলেন, এ দিনটি শিক্ষার্থীদের জন্য আনন্দের। উৎসবমুখর পরিবেশে শিক্ষাসমাপনী উদ্যাপনে নানাকর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছে। তবে শিক্ষাসমাপনী উৎসব করতে যেয়ে এমন কিছু যেনো না ঘটে যাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়।
তিনি আরও বলেন, শিক্ষার্থীরাই পারে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে। আমরা চাই এ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কর্মকান্ডে খুলনাবাসী তথা বাংলাদেশের মানুষ প্রসংশা করুক, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি আরও উজ্জ্বল হোক। তিনি শিক্ষার্থীদের জীবনের সাফল্য কামনা করেন।
এ সময় ছাত্রবিষয়ক পরিচালক প্রফেসর ড. আশীষ কুমার দাস, সহকারী ছাত্রবিষয়ক পরিচালকবৃন্দ ও বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।
শিক্ষা সমাপনকারী প্রায় হাজার শিক্ষার্থীদের মধ্যে মেয়েরা গোলাপী রংএর শাড়ি পরে এবং ছাত্ররা নির্দিষ্ট গেঞ্জি পরে বাস ও ট্রাকযোগে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে শুরু করে শোভাযাত্রাসহকারে ময়লাপোতা মোড় হয়ে শিববাড়ি মোড়, নতুন রাস্তার মোড়, বয়রা বাসস্ট্যান্ড, সোনাডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ড, জয়বাংলা মোড় এবং জিরো পয়েন্ট হয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে এসে পৌঁছায়।
ক্যাম্পাসে ফিরে তারা মেতে ওঠেন রঙ উৎসবে। প্রথম দিনের অন্যান্য কর্মসূচির মধ্যে ছিলো বিকেল ৫ টায় খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় মুক্তমঞ্চে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান । এছাড়া আগামীকাল দ্বিতীয় দিন ২২ সেপ্টেম্বর শুক্রবার সকাল ৯ টা ৩০ মিনিটে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য জগদীশ চন্দ্র বসু একাডেমিক ভবনের সাংবাদিক লিয়াকত আলী মিলনায়তনে অনুষ্ঠান ও স্লাইড শো এবং বিকেল ৪ থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয় মুক্তমঞ্চে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। তৃতীয় দিন ২৩ সেপ্টেম্বর শনিবার অনুষ্ঠান সমাপনীর দিন বিকেল সাড়ে ৪টায় মুক্তমঞ্চে কনসার্ট অনুষ্ঠিত হবে।
সন্ত্রাস, সেশনজট ও রাজনীতিমুক্ত খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৯৯০-৯১ শিক্ষাবর্ষ থেকে শিক্ষাকার্যক্রম চালু হওয়ার পর দীর্ঘ এ পর্যন্ত অর্জিত সুনাম ও ভাবমূর্তি অম্লান রয়েছে।