যশোর শ্যামনগরে বাদলের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের অভিযোগ

 

নিজস্ব প্রতিবেদক>
যশোরের শ্যামনগর গ্রামের বাদলের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের অভিযোগ উঠেছে। সে এলাকায় জেলা পরিষদের একটি পুকুর দখলসহ সেখানে টর্চারসেল বানিয়েছে বলে কোতয়ালি থানায় অভিযোগ করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনাটি তদন্ত করছে।
এলাকাবাসীর অভিযোগে জানা যায়, সদর উপজেলার সাজিয়ালি শ্যামনগর গ্রামের বাদল দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় অপরাধমূলক কর্মকান্ড করে বেড়ায়। যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিদ্যালয় থেকে বরখাস্তকৃত বাদল এখন আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। তার সহযোগী হিসেবে একই গ্রামের তরিকুল ও আলা উদ্দীনসহ ১০/১২ জন রয়েছে। তারা সাজিয়ালি, শ্যামনগর, আমবটতলা, চুড়ামনকাঠিসহ আশেপাশের এলাকায় যাকে তাকে মারপিট, ছিনতাই ও চাঁদাবাজিসহ নানা অপরাধ করছে। তাদের এ কর্মকান্ডে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে লোকজন। সম্প্রতি বাদল শ্যামনগর গ্রামের জেলা পরিষদের মালিকানাধীন একটি পুকুর দখল করে নিয়ে তাতে মাছ চাষ শুরু করেছে। এক্ষেত্রে বাদল পুকুরের লিজ সংক্রান্ত কোন নিয়মনীতির তোয়াক্কা করেনি। একইসাথে সে গ্রামের পুকুর পাড়ে গড়ে তুলেছে টর্চার সেল। এসব এলাকায় তার কথামতো যারা চলেনা বা তার দাবিকৃত চাঁদা দেয় না, তাদেরকে ধরে এই পুকুর পাড়ে নিয়ে সে মারপিট করে টাকা আদায় করে।
অভিযোগে জানা গেছে, গত ১৩ সেপ্টেম্বর বাদলসহ তার সাঙ্গ-পাঙ্গরা শ্যামনগর মাঠপাড়ার ইজিবাইক চালক নান্টু মিয়াকে এ পুকুর পাড়ে ধরে নিয়ে আসে। এরপর তাকে বেধড়ক মারপিট করে ৫০ হাজার টাকা আদায় করে ছেড়ে দেয়। দিনের বেলা এ মারপিটের ঘটনা গ্রামের অনেকেই দেখেছে। পরবর্তীতে এ বিষয়ে সবুর মেম্বার প্রতিবাদ করলে তাকে হুমকি দেয়া হয়। বিষয়টি গ্রামবাসী সাজিয়ালি পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জকেও অবগত করেছে। কিন্তু ফাঁড়ি পুলিশ এ বিষয়ে নিরব রয়েছে। তারা কোন পদক্ষেপ নিচ্ছে না। পরবর্তীতে বাদলের পুকুর দখলসহ কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে কোতয়ালি থানায় অভিযোগ করা হয়েছে। এ অভিযোগের প্রেক্ষিতে উপপরিদর্শক (এসআই) অরুণ কুমার ঘটনাটি তদন্ত করছেন। গত সপ্তাহে তিনি বিষয়টি তদন্তে গিয়ে শ্যামনগর গ্রামবাসীর সাথে কথা বলেছেন। কিন্তু প্রাণভয়ে অনেকেই বাদলের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে সাহস পায়নি। গ্রামের নিরীহ মানুষ সন্ত্রাসী বাদলের এ কর্মকান্ড থেকে পরিত্রান পেতে প্রশাসনের কার্যকরি পদক্ষেপ দাবি করেছেন।
এ ব্যাপারে এসআই অরুণ কুমার বলেন, বাদলের বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর লিখিত অভিযোগ পাবার পর ঘটনাস্থলে গিয়ে বিষয়টি তদন্ত করা হয়েছে।