মুম্বাইয়ে রেল স্টেশনে পদদলিত হয়ে নিহত ২২

নিউজ ডেস্ক>
ভারতের মুম্বাইয়ে দুটি রেলস্টেশনের সংযোগ ফুটওভার ব্রিজে পদদলিত হয়ে অন্তত ২২ জন নিহত এবং ৩০ জন আহত হয়েছেন।

ভারতের মুম্বাইয়ে দুটি রেলস্টেশনের সংযোগ ফুটওভার ব্রিজে পদদলনের ঘটনার পর জুতা-স্যান্ডেল পড়ে থাকতে দেখা যায়। ছবি: এনডিটিভিদেশটির কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বিবিসি জানায়, শুক্রবার স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ১০টার দিকে পারেল ও এলফিনস্টোন রেলস্টেশনের সংযোগ ফুটওভারব্রিজে ভিড়ের মধ্যে এ ঘটনা ঘটে।

আহতদের কাছের একটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

ছবি: এনডিটিভিরেলওয়ে মুখপাত্র অনিল সাক্সেনা বলেন, এলফিনস্টোন স্টেশন নগরীর প্রধান দুটি রেলপথের সংযোগস্থল হওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই সেখানে প্রচণ্ড ভিড় থাকে। এদিন ভারি বৃষ্টির কারণে অনেক মানুষ ওই সময় ব্রিজের ওপর আশ্রয় নিয়েছিলেন।

তিনি বলেন, “বৃষ্টির মধ্যে সংকীর্ণ স্থানে অনেক মানুষ অপেক্ষা করছিল। অনেকে বৃষ্টি থামার অপেক্ষায় ফুটওভারব্রিজে আশ্রয় নিয়েছিল। এ সময় একাধিক ট্রেন স্টেশনে প্রবেশ করায় যাত্রীরা হুড়োহুড়ি শুরু করলে পদদলনের এ ঘটনা ঘটে।”
প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে এনডিটিভি জানায়, ঘটনার সময় মৃতদেহের স্তূপের নিচ থেকে কয়েকজনের চিৎকার শোনা যায়। কেউ কেউ প্রাণ বাঁচাতে সেতু থেকে লাফিয়ে পড়েন।

তারা আরও বলেন, “বৃষ্টির কারণে চারটি ট্রেন একসঙ্গে স্টেশনে প্রবেশ করলে অপেক্ষমাণ যাত্রীদের মধ্যে হুড়োহুড়ি শুরু হয়ে যায়। এ সময় ফুটওভারব্রিজে কয়েকজন যাত্রী পিছলে পড়লে দুঃখজনক এ ঘটনার সূত্রপাত হয়।”

ঘটনাস্থলের ছবিতে অনেককে পড়ে থাকতে দেখা গেছে। কেউ কেউ সেতু থেকে মৃতদেহ সরানোর চেষ্টা করছেন। সেতুর নিচে ও সিঁড়িতে জুতা-স্যান্ডেল ছড়িয়ে পড়ে আছে।

সেতুর কাছে ‘শর্ট সার্কিটের’ কারণে বিকট আওয়াজের পর লোকজন দৌড়াতে শুরু করলে এ ঘটনা ঘটে বলে কেউ কেউ দাবি করছেন।

কী কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলে জানান অনিল সাক্সেনা।

এ ঘটনায় টুইটারে সমবেদনা প্রকাশ করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

মুম্বাইয়ে প্রতিদিন প্রায় দুই কোটি মানুষ লোকাল ট্রেনে যাতায়াত করে।