বাড়ি বসে যশোর বিআরবি স্কুলের ২৭ শিক্ষার্থীর এসএসসি’র নির্বাচনী পরীক্ষা !

মিরাজুল কবীর টিটো:যশোর সদরের ফতেপুর ইউনিয়নের বিআরবি স্কুলের ২৭ জন শিক্ষার্থী বাড়ি বসে এসএসসি’র নির্বাচনী পরীক্ষা দিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। মিউনিসিপ্যাল প্রিপারেটরী স্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সবুরের সরবরাহকৃত খাতা ও প্রশ্নে তারা এ পরীক্ষা দিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এসুযোগ করে দেয়ার জন্য তিনি কৌশলে ধাপে ধাপে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। রবিউল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানের কাছে লিখিতভাবে এ অভিযোগ করেছেন। আর বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে বলে জানান শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক।
শিক্ষা বোর্ডে দেয়া অভিযোগে জানা গেছে, মিউনিসিপ্যাল প্রিপারেটরী স্কুলের ২৭ জন শিক্ষার্থী এসএস সি’র প্রাক নির্বাচনী পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়। আর এসব শিক্ষার্থীর কাছ থেকে প্রধান শিক্ষক ৩ হাজার টাকা থেকে ৪ হাজার টাকা নিয়ে সদরের বিআরবি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি করেছেন। আবার কোন ক্ষেত্রে ৮ হাজার টাকা পর্যন্ত নেয়া হয়েছে। অথচ শিক্ষা বোর্ডে বিদ্যালয় পরিবর্তনে নির্ধারিত ফি মাত্র ৭৫৮ টাকা। শুধু তাই নয় অকৃতকার্য হওয়া ওই শিক্ষার্থীদের বাসায় বসে নির্বাচনী পরীক্ষা দেয়ার সুযোগ করার জন্য জনপ্রতি ৮শ’ টাকা করে নিয়েছেন। তাদের খাতা ও প্রশ্নপত্রও প্রিপারেটরী স্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সবুর সরবরাহ করছেন বলে অভিযোগ উল্লেখ করা হয়েছে। সেই সাথে শিক্ষার্থীদের নিবন্ধন কার্ডে সাক্ষর করা বাবদ আগে ৫শ’ টাকা করে নিচ্ছেন বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দুই জন শিক্ষক জানান।
তবে তার বিরুদ্ধে সকল অভিযোগ সত্য নয় বলে জানান প্রধান শিক্ষক আব্দুস সবুর।
বিআরবি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম বলেন, তার স্কুলে জনপ্রতি ভর্তি খরচ ৩শ’ টাকা করে। যদি আব্দুস সবুর বেশি টাকা নিয়ে থাকেন সেই দায়িত্ব তার।
যশোর শিক্ষা বোর্ডের বিদ্যালয় পরিদর্শক প্রফেসর ড. আহসান হাবিব বলেন, এধরনের লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টির তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এ ব্যাপারে শিক্ষা বোর্ডে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মাধব চন্দ্র রুদ্র বলেন তদন্ত সাপেক্ষে দোষী প্রমাণিত হলে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।