সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির শান্তিময় আবাসস্থল বাংলাদেশ

কুমিল্লা প্রতিনিধি :পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, ‌‌হাজার বছর ধরে এ দেশের মানুষ মিলে-মিশে নিজ নিজ ধর্ম পালনের পাশাপাশি অন্য ধর্মের প্রতিও শ্রদ্ধা ও সম্প্রীতি প্রদর্শন করে আসছে- এটি আমাদের অহঙ্কার।

শনিবার (২১ অক্টোবর) কুমিল্লার কোটবাড়ি এলাকায় থাইল্যান্ড-বাংলাদেশের যৌথ উদ্যোগে এবং ইয়াং ম্যান্স বুদ্ধিস্ট অ্যাসোসিয়েশন ও সংঘরাজ জ্যোতিপাল মহাথেরো ফাউন্ডেশন আয়োজিত বিশ্ব শান্তি প্যাগোডা অনাথালয় উদ্বোধন এবং কঠিন চীবর দানোৎসব অনুষ্ঠানে এসব কথা তিনি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির শান্তিময় আবাসস্থল এই বাংলাদেশ এবং বর্তমান সরকার এ সম্প্রীতি রক্ষা এবং অসাম্প্রদায়িক ধারা বজায় রাখতে বদ্ধপরিকর। ধর্মীয় চেতনায় উদ্বুদ্ধ যুব সংগঠন ইয়াং ম্যান্স বুদ্ধিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের ঐতিহাসিক কুমিল্লা জেলার ময়নামতির প্রত্নতত্ত্ব রত্ন ভাণ্ডার হিসেবে খ্যাত প্রাচীন বৌদ্ধ সভ্যতাগুলো বিশ্ব দরবারে তুলে ধরার প্রত্যয় নিয়ে সরকারিভাবে ঐতিহাসিক শালবন বিহারের নামে বরাদ্দকৃত ভূমিতে বাংলাদেশ বুদ্ধিস্ট কালচারাল একাডেমি স্থাপনের মধ্য দিয়ে তাদের কর্মপ্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে।’

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘শালবন বিহারের আঙ্গিনায় থাইল্যান্ডের স্থাপত্যকলা সমৃদ্ধ বিশ্ব শান্তি প্যাগোডা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। বন্ধুপ্রতিম রাষ্ট্র থাইল্যান্ডের উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিসহ দেশ-বিদেশের অতিথিদের উপস্থিতিতে এ প্যাগোডা উদ্বোধনের সুযোগ পেয়ে আমি নিজেকে ধন্য মনে করছি।’

‘আশা করছি ধর্মীয় চেতনা জাগিয়ে পর্যটন শিল্পের বিকাশে এটি অনন্য ভূমিকা রাখবে। এ বিশ্ব শান্তি প্যাগোডা মহামানব গৌতম বুদ্ধের মৈত্রী ও করুণার বাণী ধারণ করে অসম্প্রদায়িক চেতনার উর্বর ক্ষেত্র জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে সহায়ক ভূমিকা রাখবে।’

দিনব্যাপী এ অনুষ্ঠানে বৌদ্ধ পূজা ও সংঘদান, ভিক্ষু সংঘের পিণ্ড দান, মঙ্গলাচরণ, বৃত্তিপ্রাপ্ত কৃতী শিক্ষার্থীদের মধ্যে ক্রেস্ট বিতরণ করা হয়।

সন্ধ্যায় বৌদ্ধ বিহার প্রাঙ্গণে বিশ্বে শান্তি কামনায় ফানুস উড্ডয়ন ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়।

সংঘরাজ জ্যোতিপাল মহাথের ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক শ্রীমৎ শীলভদ্রের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- কুমিল্লা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আবু তাহের, জেলা