বঙ্গবন্ধুর আদর্শ হৃদয়ে ধারণ করে নৌকার জন্য ভোট চাইতে হবে ……………শেখ আফিল উদ্দিন এমপি

শেখ কাজিম উদ্দিন, বেনাপোল >
যশোর-১ শার্শা আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ শেখ আফিল উদ্দিন বলেছেন, আগামী জাতীয় নির্বাচনে নৌকাকে বিজয়ী করতে হলে প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে মানুষের কল্যাণে রাজনীতি করতে হবে। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ হৃদয়ে ধারণ করে নৌকার জন্য ভোট চাইতে হবে। তবেই বাংলার মানুষ বারবার আওয়ামী লীগকে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় দেখতে চাইবে।
শুক্রবার বিকেলে বেনাপোল বাজার প্রাঙ্গণে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মরহুম আব্দুল হকসহ প্রয়াত নেতৃবৃন্দের স্মরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন তিনি।
বেনাপোল পৌর যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক আহাদুজ্জামান বকুলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায় স্মরণ সভা কমিটির আহবায়ক ও যশোর জেলা পরিষদের সদস্য অহিদুজ্জামান অহিদ প্রয়াত নেতাদের আদর্শ এবং ঐতিহ্য চিরদিন অমর হয়ে থাকবে মর্মে এক শোক বার্তা পাঠ করেন। শোক বার্তার মাঝে তাদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।
বেনাপোল পৌর যুবলীগের আয়োজনে স্মরণ সভায় শেখ আফিল উদ্দিন এমপি আরো বলেন, প্রয়াত রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ বঙ্গবন্ধুর আদর্শ দেখেছেন। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে রাজনীতি করেছিলেন। তাইতো তারা ছিলেন মহৎ রাজনীতিবিদ। বঙ্গবন্ধু যেমন স্বপ্ন দেখেছিলেন বাংলার মানুষ কেউ না খেয়ে থাকবে না, চিকিৎসার অভাবে মারা যাবে না, গৃহহীন থাকবে না, সকলের মুখে থাকবে সুখ ভরা হাসি! তেমনি বঙ্গবন্ধুর সাথে রাজনীতি করা নেতৃবৃন্দও ছিলেন বুকভরা ভালোবাসার অধিকারি। বাংলার মানুষের স্বপ্নদ্রষ্ঠা।
বর্ণনায় শার্শা উপজেলায় যাদেরকে তিনি কাছ থেকে দেখেছেন এবং যাদের স্মরণে এ স্মরণ সভা শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মরহুম আব্দুল হক সাহেব। যিনি ১৯৭২ সাল থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত নির্যাতিত নেতাদের পাশে থেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতিত্ব করেছেন। আরেক নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা করিম চেয়ারম্যান। যিনি ১৯৭২ সাল থেকে ১৯৭৬ সাল পর্যন্ত সুনামের সাথে বেনাপোল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন। আরেক নেতা মোশারফ হোসেন বিশ^াস। যিনি ১৯৭৮ সাল থেকে বেনাপোল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে দায়িত্ব পালন করে বহু লাঞ্চনা গঞ্জনা ভোগ করেছিলেন। আরেক নেতা ডাঃ আব্দুল হাই। যিনি আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে দলকে সংগঠিত করার লক্ষ্যে কাজ করেছিলেন। আরেক নেতা কওছার আলী মাস্টার। যিনি আওয়ামী লীগের জন্য বলিষ্ঠ ভূমিকা রেখে দলকে সুসংগঠিত করার চেষ্টা করেছিলেন। আরেক নেতা জাহিদুল ইসলাম বিশ^াস। ২০০৩ সালে বেনাপোল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হয়ে দলকে সুসংগঠিত করেছিলেন। আরেক নেতা ফজলুর রহমান। যিনি ২০০৩ সাল হতে শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদকের পদ বহাল রেখে বলিষ্ঠ ভূমিকায় আওয়ামী লীগকে সুসংগঠিত করেছিলেন। কিন্তু বিএনপির ঘাতকের দল তা সহ্য করতে পারেনি। ২০০৪ সালের ১২ জানুয়ারি তাকে নির্মমভাবে হত্যা করে। আরেক মিষ্টভাষী নেতা মরহুম সিরাজুল ইসলাম। যিনি তার জীবদ্দশায় বহু সমাজসেবী সংগঠনের সাথে জড়িত থেকে শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদকের দ্বায়িত্ব পালন করেছিলেন। ২০১৪ সালে বেনাপোল পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতির পদ অলংকৃত করেছিলেন। যার ভালোবাসায় আজও কাঁদে আওয়ামী লীগসহ সকল অঙ্গসংগঠন। আরেক বজ্রকন্ঠ ত্যাগী নেতা আব্দুল আজিজ আহম্মেদ। যার হৃদয় ছিল আওয়ামীলীগ নেতা-কর্মীদের জন্য বিশাল খোলা মাঠ। তিনি দীর্ঘদিন যাবত বেনাপোল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের দায়িত্ব পালন শেষে পৌর এলাকা ভাগ হওয়ায় ২০১৪ সালে পৌর আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতির পদ অলংকৃত করেন। পরে সভাপতির পদ শুন্য হলে তিনি ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পালনরত অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। যার শুন্যতা আজও স্মরণ করে বেনাপোলবাসী। আরো অনেক ত্যাগী নেতা ভালোবাসার আওয়ামী লীগকে ছেড়ে চলে গেছেন অনেক দূরে। তারা আর কখনো পৃথিবীতে ফিরবে না। ইউসুফ ডাক্তার, খলিলুর রহমান, আতিয়ার রহমান প্রমুখ। স্মরণ করা হলো ছাত্র রাজনীতির জলন্ত প্রদীপ তারিকুল আলম তুহিনকে। যিনি দীর্ঘদিন যাবত শার্শা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতির পদে থেকে বহু নতুন নেতৃত্ব তৈরি করেছিলেন। ভবারবেড় ওয়ার্ড থেকে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়ে বেনাপোল পৌরসভার প্যানেল মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলেন। দক্ষতার সাথে পৌর নগরীর কর্তৃত্ব নেওয়ার প্রাক্কালে এক অমাবস্যার অন্ধকারে তিনি হারিয়ে যান। যার খোঁজ এখনও পর্যন্ত বেনাপোলবাসী জানে না।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ¦ নুরুজ্জামান, সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলহাজ¦ আনোয়ার আলী আনু, বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্টস এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক লতা, যশোর জেলা পরিষদের সদস্য অধ্যক্ষ ইব্রাহিম খলিল, বেনাপোল পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলহাজ¦ এনামুল হক মুকুল, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ¦ নাসির উদ্দিন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান, বেনাপোল ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ¦ বজলুর রহমান, শার্শা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুর রহিম সরদার প্রমুখ।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন বেনাপোল পৌর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আলী কদর সাগর, যুগ্ম সম্পাদক মহাতাব উদ্দিন, সেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি জুলফিকার আলী মন্টু, সাধারণ সম্পাদক কামাল হোসেনসহ স্থানীয় আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, কৃষকলীগ, সেচ্ছাসেবকলীগ ও বাস্তহারালীগের নেতা-কর্মীরা।