যশোরে সাংবাদিক পরিবারের জমি দখলের ষড়যন্ত্র প্রতিপক্ষের

নিজস্ব প্রতিবেদক>যশোর সদর উপজেলার চুড়ামনকাটিতে সাংবাদিক পরিবারের জমি দখলের ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। আদালতের নির্দেশ অমান্য করে প্রতিপক্ষের আব্দুল কাদের গং শুক্রবার গভীর রাতে জমি ঘিরে রাখা বেড়া ও মেহেগনি গাছের চারা কেটে দিয়েছে। এ ঘটনায় আব্দুল কাদের গংয়ের বিরুদ্ধে আদালতে আরো একটি মামলা করা হবে বলে জানান সাংবাদিক বিল্লালের চাচা আবুল কালাম।
অভিযোগে জানা গেছে, যশোর থেকে প্রকাশিত দৈনিক স্পন্দনের নিজস্ব প্রতিবেদক, চুড়ামনকাটি প্রেসক্লাবের সেক্রেটারী ও যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের সদস্য বিল্লাল হোসেন পক্ষীয়দের সাথে কাশিমপুরের শানতলা গ্রামের মৃত মোবারক মুন্সির ছেলে আব্দুল কাদের গংয়ের ১৬.৬৬ শতক জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। চুড়ামনকাটি মৌজার ১৯৯ এস এ খতিয়ানের ওই জমিটি স্থানীয় হাফিজিয়া মাদ্রাসার পাশে অবস্থিত। যার দাগ নম্বর ১০০৬।
সাংবাদিক বিল্লালের চাচা ও চুড়ামনকাটি গ্রামের মৃত ছলেমান লস্কারের ছেলে আবুল কালাম জানান, প্রতিপক্ষ দাবি করছেন ওই জমি তারা ক্রয় করেছেন। কিন্তু তাদের পরিবারের কেউ ওই জমি বিক্রি করেননি। তাদের কাছ থেকে জমি ক্রয়ের কোন কাগজ পত্রও নেই আব্দুল কাদের গংয়ের কাছে। অথচ একটি মহলের ইশারায় আব্দুল কাদের গং জোরপূর্বক দখলে নেয়ার জন্য দীর্ঘদিন থেকে মরিয়া হয়ে রয়েছেন। যে কারনে আবুল কালাম বাদী হয়ে গত ৪ জুন যশোরের বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি পিটিশন মামলা করেন। বাদীর আবেদনের পেক্ষিতে আদালত ১৮ জুন ওই জমিতে ১৪৪ ধারা জারি করে। বাদী পক্ষের অভিযোগ ১৪৪ ধারাকে তোয়াক্কা না করে আব্দুল কাদের গং ২৭ নভেম্বর সোমবার দুপুরে ওই জমি জোরপূর্বক দখলে নেয়ার চেষ্টা চালায়। এ ঘটনার পর আবুল ২৮ নভেম্বর কালাম যশোর সদর সহকারী জজ আদালতে ওই জমির উপর স্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করার আবেদন জানিয়ে একটি মামলা করেন। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে ২৯ নভেম্বর আসামী আব্দুল কাদের ও আব্দুল মালেককে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করেন। এর পরেও ৮ ডিসেম্বর শুক্রবার রাতে আসামী পক্ষ হামলা চালিয়ে জমির বেড়া ও মেহেগনি গাছের চারা কেটে জমি দখলের চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়েছেন। বিষয়টি নিয়ে সাংবাদিক বিল্লালের সাথে কথা হলে তিনি জানান, যেহেতু ওই জমি নিয়ে আদালতে মামলা বিচারাধীন রয়েছে। তারপরেও কাদের গং অবৈধভাবে জমিটি দখলের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। যা অত্যন্ত দুঃখজনক।
তিনি আরো জানান, মামলায় যদি তারা হেরে যান তাহলে জমির উপর তাদের কোন দাবি থাকবেনা। কিন্তু আদালতের রায়ের আগে জমি জোরপূর্বক দখলে নেয়া আইনত অপরাধ। এ ঘটনায় বাদি পক্ষ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এ ব্যাপারে চুড়ামনকাটির সাজিয়ালী পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আসাদুজ্জামান জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই খোঁজ নিয়ে দেখা হবে।