যশোর জেনারেল হাসপাতালে ওয়ার্ড ইনচার্জদের অভ্যন্তরীণ বদলি

নিজস্ব প্রতিবেদক>
যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে আটটি ওয়ার্ড ইনচার্জদের অভ্যন্তরীণ বদলি হচ্ছে। আগামী সাত কর্মদিবসের মধ্যে নতুন ইনচার্জদের দায়িত্ব বুঝিয়ে দিতে নির্দেশ দিয়েছেন হাসপাতাল তত্ত্বাবধায়ক।
তবে সিনিয়রদের বাদ দিয়ে এসব ওয়ার্ডে সদ্য নিয়োগ পাওয়া কতিপয় সেবিকাদের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। এতে হাসপাতালে কর্মরত সেবিকাদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। তারা জ্যৈষ্ঠতার ভিত্তিতে শুধু আটটি ওয়ার্ড নয়, সব ওয়ার্ড ইনচার্জদের অভ্যন্তরীণ বদলির দাবি জানিয়েছেন।
হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, ওয়ার্ড ভিত্তিক সেবার মান উন্নয়নে ও সঠিক ভাবে ওয়ার্ডের সেবা কার্যক্রম পরিচালনার জন্য তত্ত্বাবধায়ক ডা. একেএম কামরুল ইসলাম বেনু ইনচার্জদের বদলির নির্দেশ দিয়েছেন। গত ৯ ডিসেম্বর তত্ত্বাবধায়কের স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তরের ৬ জুন স্মারকের নং-ডিজিএনএম/শ-৩/৪টি ১৪/২০০৬/৩৩২৭/১(৫০০) ভিত্তিতে ওয়ার্ড ইনচার্জদের অভ্যন্তরিন বদলির (দায়িত্ব পরিবর্তন) নিয়ম অনুযায়ী হাসপাতালের আটটি ওয়ার্ডে ইনচার্জ পরিবর্তন করা হল।
ওয়ার্ডগুলো হচ্ছে, শিশু ওয়ার্ডের ইনচার্জ আসমা বিশ্বাসের স্থলে তহমিনা পারভীন, পুরুষ পেয়িং ওয়ার্ড ইনচার্জ লিপি খানমের জায়গায় বেবি রানী দাস পুরুষ মেডিসিন ওয়ার্ডের ইনচার্জ আছিয়া খাতুনের স্থলে নাজমা খাতুন, গাইনী ওয়ার্ড ইনচার্জ জেসমিন নাহারের পরিবর্তে মমতাজ পারভীন, সংক্রমক ওয়ার্ড ইনচার্জ শামীমা পারভীনের স্থলে শিউলী হালদার, করোনারী কেয়ার ইউনিটের ইনচার্জ ফেরদৌসী বেগমের জায়গায় মল্লিকা রায়, মহিলা পেয়িং ওয়ার্ড ইনচার্জ হাসিয়া খাতুনের জায়গায় রোকেয়া খাতুন, এবং মহিলা সার্জারী ওয়ার্ড ইনচার্জ মরিয়ম খাতুনের পরিবর্তে মনিরা খাতুনকে নতুন ইনর্চাজ হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তবে পুরুষ সার্জারী, মডেল, লেবার, মহিলা মেডিসিন এবং আপারেশন থিয়েটারের ইনচার্জরা মধ্যে কোন রদ-বদল করা হয়নি। আদেশে আরও উল্লেখ করা হয়েছে যে, চিঠি হাতে পাওয়ার সাত কর্মদিবসের মধ্যে পুরাতন ইনচার্জগণ ওয়ার্ডের সকল দায়িত্ব নতুন ইনচার্জদের বুঝিয়ে দেবেন।
এদিকে নির্দেশ জারির পর থেকে হাসপাতালে দায়িত্বরত সেবিকাদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। একাধিক সেবিকাদের দাবি, জৈষ্ঠদের বাদ দিয়ে এসব ওয়ার্ডে ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে নিয়োগ পাওয়া কতিপয় নুতুন সেবিকাদের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। এ বাদেও জৈষ্ঠতার ভিত্তিতে শুধু আটটি ওয়ার্ড নয়, সব ওয়ার্ড ইনচার্জদের অভ্যন্তরিন বদলির দাবি জানিয়েছেন।
এ ব্যাপারে ভারপ্রাপ্ত উপ-সেবা তত্ত্বাবধায়ক রওশন আরা জানান, কর্তৃপক্ষের নির্দেশে বর্তমানে আটটি ওয়াড ইনচার্জদের অভ্যন্তরীণ বদলি করা হয়েছে। আগামীতে আবার নির্দেশ পেলে বাকিদেরও পরিবর্তন করা হবে।
তত্ত্বাবধায়ক ডা. একেএম কামরুল ইসলাম বেনু বলেন, দীর্ঘদিন পরে ইনচার্জদের অভ্যন্তরীণ বদলির আদেশ দেয়া হয়েছে। বাকি ওয়ার্ডগুলো পর্যায়ক্রমে অভ্যন্তরীণ বদলি করা হবে।