একাদশ সংসদ: বিদ্যমান আইনেই সীমানা পুনঃনির্ধারণ

স্পন্দন নিউজ ডেস্ক : স্বল্প সময়ের মধ্যে সীমানা নির্ধারণ আইন প্রণয়ন করে আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সীমানা পুনঃনির্ধারণ করা সম্ভব হবে না। তাই বিদ্যমান অধ্যাদেশ দিয়েই এ নির্বাচনের জন্য সীমানা পুনঃনির্ধারণ করতে চায় নির্বাচন কমিশন (ইসি)।  এ বিষয়ে কমিশন নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে ইসি সূত্রে জানা গেছে। সূত্র জানায়, আগামী সংসদ নির্বাচনে খুব বেশি সীমানায় হাত দিতে চায় না সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানটি। ছিটমহল এলাকাসহ সর্বসাকুল্যে ৫০ থেকে ৬০টি আসনের সীমানায় কম বেশি পরিবর্তন আসতে পারে

নির্বাচন কমিশনার কবিতা খানম সীমানা পুনঃনির্ধারণ আইন সম্পর্কে পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, কনসালটেন্ট আইন সংস্কার কমিটির কাছে একটি খসড়া জমা দিয়েছে। এর জন্য আমরা একটি সাব-কমিটিও করেছি। যুগ্ম-সচিব (আইন) (যিনি ইতোমধ্যে অন্যত্র বদলি হয়েছেন) সেখানে আহ্বায়ক ছিলেন। নতুন যুগ্ম-সচিব না আসা পর্যন্ত এ কার্যক্রমের গতিটা কমে গেছে। যুগ্ম-সচিব (আইন) আসতে যদি দেরি হয়, তাহলে আমরা অন্য কাউকে হয়তো আহ্বায়কের দায়িত্ব দেব।

নতুন আইন করে, নতুনভাবে সীমানা নির্ধারণ করা কি সম্ভব? জানতে চাইলে তিনি  বলেন, আইনটা হতে অনেক সময় লাগবে। সীমানা নির্ধারণের একটা নির্ধারিত সময় আছে। সেই সময়টার মধ্যে নতুন আইন আমরা করে নিয়ে আসতে পারবো এটা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। খসড়াটাই আমরা এখন পর্যন্ত করতে পারিনি বা অ্যাপ্রুভ করার মতো তৈরি হয়নি। এ বিষয়ে আমরা এমন একটি আইন করতে চাই, যেটাতে অন্তত ২০ বছরের মধ্যে হাত দিতে না হয়। তাই সময় নিয়েই এটা করতে চাই।

সুতরাং আমি এখনি বলতে পারছি না যে নতুন আইনে হবে। হয়তো আমাদে এক্সিস্টিং ল-এর ওপরই ডিপেন্ড করতে হবে। অর্ডিন্যান্স যেটা আছে- যোগ করেন তিনি।

২০১৯ সালের ২৮ জানুয়ারির মধ্যে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এবার ১০ কোটি ৪৬ লাখ (কমবেশি)  ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন বলে ইসির সংশ্লিষ্ট শাখা থেকে জানা যায়।