জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের স্মরণ

স্পন্দন ডেস্ক>
একাত্তরে পরাজয় নিশ্চিত জেনে পাকিস্তানি বাহিনী তাদের দোসরদের সহায়তায় এ দেশের যে মেধাবী সন্তানদের হত্যা করেছিল, সেই শহীদ বুদ্ধিজীবীদের শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করছে জাতি।
রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ বৃহস্পতিবার সকালে মিরপুরে বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। শ্রদ্ধা জানানো হয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকেও।
পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বর পরিকল্পিতভাবে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক, চিকিৎসক, শিল্পী, লেখক, সাংবাদিকসহ বহু খ্যাতিমান বাঙালিকে বাসা থেকে তুলে নিয়ে হত্যা করে। শরীরে নিষ্ঠুর নির্যাতনের চিহ্নসহ জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের লাশ পাওয়া যায় ঢাকার মিরপুর ও রায়েরবাজার এলাকায়। পরে তা বধ্যভূমি হিসেবে পরিচিত হয়ে ওঠে।
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের প্রতিটি জেলা উপজেলায় পালিত হয়ে দিবসটি। প্রতিনিধিদের পাঠানো প্রতিবেদনে বিস্তারিত সংবাদ –
যশোর : বধ্যভূমিতে শ্রদ্ধার্ঘ অর্পণ, আলোচনাসভা আর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে বৃহস্পতিবার যশোরে পালিত হয়েছে শহিদ বুদ্ধিজীবী দিবস। সকালে শহরের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে মৌন পদযাত্রা সহকারে যশোর শংকরপুর বধ্যভূমিতে শ্রদ্ধাবনত চিত্তে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেণ জেলা প্রশাসনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক সামাজিক নেতৃবৃন্দ।
জাতির এই শ্রেষ্ঠ সন্তানদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে এদিন সকাল থেকেই যশোর শংকরপুর রায়পাড়া বধ্যভূমিতে ভিড় করে জেলার সর্বস্তরের মানুষ।
শ্রদ্ধার্ঘ অর্পণ করেন জেলা প্রশাসক আশরাফ উদ্দিন, পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা রাজেক আহম্মেদ, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সাবেক মন্ত্রী তরিকুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন, সাধারণ সম্পাদক শাহিন চাকলাদার, পৌর মেয়র জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টু, সহসভাপতি মনোতোষ বসুর নেতৃত্বে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে), সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন, সম্পাদক এস এম তৌহিদুর রহমানের নেতৃত্বে প্রেসক্লাব যশোর, সভাপতি সাজেদ রহমান বকুল, সাধারণ সম্পাদক মিলন রহমানের নেতৃত্বে যশোর সাংবাদিক ইউনিয়ন, সভাপতি ডিএম শাহিদুজ্জামান,সাধারণ সম্পাদক সানোয়ার আলম খাঁন দুলুর নেতৃত্বে জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, সাধারণ সম্পাদক এড. মাহমুদ হাসান বুলুর নেতৃত্বে জেলা শিল্পকলা একাডেমী । এছাড়া পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন জেলা ও সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, যশোর পৌরসভা, জেলা আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী সকল সংগঠন, জেলা বিএনপি ও তার সকল সহযোগী সংগঠন, জেলা জাসদ, জেলা বাসদ, জেলা ছাত্রলীগ, জেলা ছাত্রদল, জেলা ছাত্র মৈত্রী, সাংস্কৃতিক সংগঠন উদীচী, সুরবিতান, চাঁদের হাট, তির্যক, বিবর্তন, সুরধুনী, শেকড়, স্পন্দন, আইডিইবি, যশোর ফ্লিম সোসাইটি, শিশু একাডেমী যশোর, সরকারি এমএম কলেজ, সরকারি সিটি কলেজ, সরকারি মহিলা কলেজ, যশোর আওয়ামী লীগ ও সমর্থক গোষ্ঠী, যবিপ্রবি, জেলা শিক্ষক সমিতি, প্রথম আলো বন্ধুসভা, জেলা সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফন্ট্র, ডা. আব্দুর রাজ্জাক মিউনিসিপ্যাল কলেজ, দৈনিক স্পন্দন পরিবার, শংকরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়, জেলা ইন্সটিটিউট অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স, যশোর কলেজ, ট্রেড ইঞ্জিনিয়ারিং ইন্সটিটিউট, জেলা ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
সন্ধ্যায় টাউন হল ময়দানের রওশন আলী মঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনাসভা। জেলা প্রশাসন আয়োজিত এই আলোচনাসভায় সভাপতিত্ব করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) হুসাইন শওকত এবং প্রধান অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলির সদস্য পীযুষ কান্তি ভট্রাচার্য্য। বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট আইনজীবী কাজী আব্দুস শহিদ লাল,ন্যাপের কেন্দ্রীয় নেতা এনামুল হক,যশোর সংবাদপত্র পরিষদের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা একরাম উদ দ্দৌলাহ্,জেলা মহিলা পরিষদেও সাধারণ সম্পাদক তন্দ্রা ভট্রাচার্য্য, বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব অধ্যাপক সুকুমার দাস ও যশোর সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট যশোরের সভাপতি ডিএম শাহিদুজ্জামান। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা সাধন কুমার দাস।
আলোচনাসভায় নেতৃবৃন্দ বলেন বাংলাদেশ যে পথে হাঁটছে সময়ের ব্যবধানে বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে। দীর্ঘদিন রাজনৈতিক রাষ্ট্রীয় বাধা ছিল। এখন সে বাধা দূর হয়েছে। দেশের প্রতি ত্যাগের মাধ্যমেই বড় হওয়া যায়, এটাই বুদ্ধিজীবীরা শিখিয়ে গেছেন।
নেতৃবৃন্দ বলেন এবার আর আক্ষেপ নয়, পেছনে তাকানো নয়, এখন সময় এসেছে সামনে এগিয়ে যাওয়ার। এর আগে যশোর বিভিন্ন সংগঠনের শিল্পীদের পরিবেশনায় পরিবেশিত হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
যশোর শিক্ষা বোর্ড মডেল স্কুল এন্ড কলেজে দিবসটি উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। বক্তব্য রাখেন শিক্ষক উম্মে সালমা শিলা, ফাতেমা খাতুন, আব্দুল লতিফ। শিক্ষার্থীদের মধ্যে বক্তব্য রাখে বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ শেখের দৌহিত্র একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী নাইমুল ইসলাম উৎস, নাজিফা তাবাসসুম, লুনা আক্তার, তানজুম তাসনিম, ফাতেমা তুজ জোহরা, তোরসা তাসনিম, রিফাত কবীর, চন্দন দে, ওয়াহিদুজ্জামান, পলাশ কুমার ও নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী আলিফ রেজা। দোয়া মোনাজাত পরিচালনা করেন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক মুহা: সাইফ উদ্দীন। সভাপতিত্ব করেন অধ্যক্ষ লে. কর্নেল মোঃ মহিবুল আকবার মজুমদার, পিএসসি, এইসি।
খুলনা : জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক আমিন উল আহসানের সভাপতিত্বে দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরে বক্তৃতা করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) জাহাঙ্গীর হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সিএ হালিম, মহানগর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার অধ্যাপক আলমগীর কবীর, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সরদার মাহবুবার রহমান এবং প্রফেসর আনোয়ারুল কাদির।
অপরদিকে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে সকাল ৯ টায় উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান শহিদ মিনারে শহিদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন। এরপরই খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি, স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ, বিভিন্ন আবাসিক হল, বিভিন্ন ডিসিপ্লিন, খুবি অফিসার্স কল্যাণ পরিষদ, চেতনা ৭১সহ বিভিন্ন সংগঠেনর পক্ষ থেকেও শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করা হয়। সকাল ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য জগদীশ চন্দ্র বসু একাডেমিক ভবনের সাংবাদিক লিয়াকত আলী মিলনায়তনে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির উদ্যোগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. সরদার শফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান। আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন চারুকলা ইনস্টিটিউট ও আইকিউএসির পরিচালক প্রফেসর ড. আহমেদ আহসানুজ্জামান, স্থাপত্য ডিসিপ্লিন প্রধান ও বুদ্ধিজীবী দিবস পালন আয়োজক কমিটির সভাপতি প্রফেসর ড. অনির্বাণ মোস্তফা, রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর ড. এস এম রাফিজুল হক, অপরাজিতা হলের প্রভোস্ট ও শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ড. মোসামাৎ হোসনে আরা এবং শিক্ষার্থীদের মধ্যে মুক্তাদিরুল কাদের ও নুসরাত জাহান।
খুলনা প্রেস ক্লাবের হুমায়ুন কবীর বালু মিলনায়তনে বৃহস্পতিবার সকালে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রেস ক্লাবের সভাপতি এস এম হাবিব। সভা পরিচালনা করেন ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সুবীর কুমার রায়। সভার শুরুতে শহিদ বুদ্ধিজীবীদের আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে দাঁড়িয়ে ১মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।
আলোচনা সভায় বক্তৃতা করেন খুলনা প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি মকবুল হোসেন মিন্টু, শেখ আবু হাসান, ফারুক আহমেদ ও এস এম নজরুল ইসলাম, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এস এম জাহিদ হোসেন, ক্লাব সদস্য মো. শাহ আলম, ক্লাবের সহকারী সম্পাদক বাপ্পী খান, সদস্য মল্লিক সুধাংশু, মো. রাশিদুল ইসলাম, আব্দুল মালেক ও শেখ আব্দুল্লাহ প্রমুখ।
এর আগে রাত ১২টা ১ মিনিটে ক্লাবের নেতৃবৃন্দ গল¬ামারী স্মৃতিসৌধে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করে বাঙালি জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।
দাকোপ : উপজেলা প্রশাসনের আয়োজে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বেলা ১১ টায় উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মারুফুল আলমের সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
আলোচনা করেন দাকোপ থানার অফিসার ইনচার্জ শাহাবুদ্দিন চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইউপি চেয়ারম্যান পঞ্চানন মন্ডল, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মোসাদ্দেক হোসেন, মৎস্য কর্মকর্তা জয়দেব কুমার পাল, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সোহেল হোসেন, দারিদ্র বিমোচন কর্মকর্তা আব্দুল হক জোয়াদ্দার, সাংবাদিক শিপন ভুইয়া, আজগর হোসেন ছাব্বির, এস এম মামুনুর রশিদ, লিপিকা বৈরাগী, রতন কুমার মন্ডল প্রমুখ।
মাগুরা: মাগুরায় গতকাল বৃহস্পতিবার মাগুরা আদর্শ বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে । জেলা প্রশাসন ও বাংলাদেশ শিশু একাডেমী মাগুরা শাখা এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে । সভায় প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক মো: শামছুজ্জামান সেলিমের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আতিকুর রহমান । বিশেষ অতিথি ছিলেন সাবেক জেলা প্রশাসক সৈয়দ শরিফুল ইসলাম ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান রস্তম আলী প্রমুখ । অন্যান্যের বক্তব্য রাখেন জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা আহাম্মদ আল হোসেন ও জেলা শিক্ষা অফিসের সহকারি পরিদর্শক মাজেদুর রহমান । সভা শেষে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয় । দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন প্রতিষ্ঠানের সহকারি শিক্ষক মো: মাহবুবুর রহমান ।
কপিলমুনি : কপিলমুনিতে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালন করেছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। কপিলমুনি কলেজ বেলা সাড়ে ১১ টায় ক্যাম্পাস থেকে শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের অংশগ্রহনে একটি পদযাত্রা বের করে। অংশ নেন অধ্যক্ষ হাবিবুল্যাহ বাহার, উপাধ্যক্ষ ত্রিদিব কান্তি মন্ডল, শিক্ষক তাপস সাধু, জতীন্দ্র নাথ বিশ্বাস জ্যোতি, সুমন মন্ডল প্রমুখ। এদিকে কপিলমুনি মেহরেুন্নেছা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় বেলা ১২টার দিকে একটি পদযাত্রা বের করে। এসময় উপস্থিত ছিলেন প্রধান শিক্ষিকা রহিমা আখতার শম্পা, পিটিএ সভাপতি এইচ এম এ হাশেম, সহকারী প্রধান শিক্ষক মোঃ ওজিয়ার রহমান, শিক্ষিকা বন্ধনা রানী মজুমদার, ফিরোজা বেগম, নজরুল ইসলাম, কামরুল ইসলাম, বিশ্বজিৎ দে, মিন্টু সাহা খলিলুর রহমান প্রমুখ।
রূপসা : রূপসা উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে বেলা সাড়ে ১১ টায় উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ইলিয়াছুর রহমানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন উপজেলা চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন বাদশা। যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মো. আবু বকর মোল্লা পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ যোবায়ের, থানা অফিসার ইনচার্জ মো. রফিকুল ইসলাম, কৃষি কর্মকর্তা মো. রবিউল ইসলাম, প্রকৌশলী মহিউদ্দিন মিয়া। অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আইরিন পারভীন, সমাজ সেবা কর্মকর্তা প্রবীর রায়, শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আবুল কাশেম, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা তাহিরা খাতুন, নির্বাচন কর্মকর্তা এম নাসির আহম্মেদ, জেলা যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আজিজুল হক কাজল, ইউপি চেয়ারম্যান কামাল হোসেন বুলবুল প্রমুখ।
বাগেরহাট : সকালে ডাকবাংলোস্থ শহীদ বেদীতে ও নদীর ঘাটে বধ্যভূমিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন বাগেরহাট -২ আসনের সংসদ সদস্য ও বাগেরহাট জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি অ্যাড. মীর শওকাত আলী বাদশা। এ সময় দলীয় নেতাকর্মীরা তার সাথে ছিলেন। এরপর জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পুষ্পমাল্য অর্পন করেন জেলা প্রশাসক তপন কুমার বিশ্বাস। পুলিশ সুপার পংকজ চন্দ্র রায় তার প্রশাসনের পক্ষ থেকে,মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষে জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সহকারী কমান্ডার শেখ মোস্তাফিজুর রহমান বাদশা, প্রেসক্লাবের পক্ষে সভাপতি আহাদ উদ্দিন হায়দার , জেলা তাতী লীগের পক্ষে জেলা তাতী লীগ সভাপতি ও প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক তালুকদার আব্দুল বাকীসহ সর্বস্তরের জনতা শহীদ বেদীতে ও বধ্যভূমিতে পুষ্পমাল্য অর্পন করেন। এ সময় সংক্ষিপ্ত আলোচনায় বক্তারা শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন। ূ
শরণখোলা: উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, কৃষকলীগ, শ্রমিক লীগ, তাতী লীগ, নাগরিক ঐক্য পরিষদ, প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক সমাজসহ বিভিন্ন সংগঠনের উদ্যোগে পদযাত্রা, শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ ও স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সকাল ৮টায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবীর বাবুলের নেতৃত্বে উপজেলা সদর রায়েন্দাবাজারে শোক পদযাত্রা প্রদক্ষিণ করে শহীদ মিনারে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। এ ছাড়া শরণখোলা নাগরিক ঐক্য পরিষদের উদ্যোগে সকাল ৯টায় র‌্যালি ও শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ শেষে শরণখোলা প্রেসক্লাব মিলনায়তনে স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। ঐক্য পরিষদের যুগ্ম-আহবায়ক ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির বাবুলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তৃতা করেন কমিটির যুগ্ম-আহবায়ক ও জেলা বিএনপির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মতিয়ার রহমান খান, যুগ্ম-আহবায়ক ও উপজেলা এনজিও সমন্বয় কমিটির সভাপতি মীর সরোয়ার হোসেন, রায়েন্দা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক আসাদুজ্জামান মিলন, প্রেসকøাবের সাধারণ সম্পাদক মহিদুল ইসলাম, সুজন’র সভাপতি সাংবাদিক শেখ মোহাম্মদ আলী, সুজন’র সাধারণ সম্পাদক ও পল্লী চিকিৎসক মো. রুহুল আমিন প্রমুখ। এছাড়া উপজেলা যুবলীগ পদযাত্রা ও শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ শেষে প্রেসক্লাব চত্বরে সভা করে।
বাগআঁচড়া: শার্শার বাগআঁচড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ১৪ ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। বৃহস্পতিবার বিকেলে বাগআঁচড়া ইউনিয়ন পরিষদের হল রুমে বাগআঁচড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক চেয়ারম্যান ইলিয়াছ কবির বকুল। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাগআঁচড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ- সভাপতি ইয়াকুব হোসেন বিশ্বাস, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন, আওয়ামী লীগ নেতা ইউনুছ আলী, ডাঃ নুরুল ইসলাম, আলহাজ্ব রাজা আলী মিয়া, আকবার আলী, আলমগীর কবির মেম্বর, আবু তালেব মেম্বর, আসাদুল ইসলাম মেম্বর, মোজাম গাজী মেম্বর, আলী আহম্মাদ মেম্বর, আব্দুল হান্নান মেম্বর, আশরাফ আলী আশু মেম্বর, নাজমুন নাহার কল্পনা মেম্বর,ইদ্রিস আলী সাহাজী, আল আমিন খান, রেজাউল ইসলাম, মতিয়ার রহমান মতি, বাগআঁচড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাজমুল হুসাইন প্রমুখ। দোয়া অনুষ্টান পরিচালনা করেন আলহাজ্ব হাফেজ মাওলানা খাইরুল আলম।
ফুলতলা : উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বেলা ১১টায় এক আলোচনা সভা হাবিবুর রহমান মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। ইউএনও মাশরুবা ফেরদৌসের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) পিংকি সাহা, ওসি আসাদুজ্জামান মুন্সী, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার কাজী জাফর উদ্দিন, মুক্তিযোদ্ধা কাজী আশরাফ হোসেন আশু, মৃনাল হাজরা, প্রেসক্লাব সভাপতি তাপস কুমার বিশ^াস, প্রকৌশলী শেখ শামসুল আলম প্রমুখ। এদিকে সন্ধ্যায় ফুলতলা উপজেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে অনুরুপ এক আলোচনা সভা শেখ রওশন আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা সহ-সভাপতি বিএম এ সালাম। অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন আওয়ামী লীগ নেতা সরদার শাহাবুদ্দিন জিপ্পী, মৃনাল হাজরা, এস রবীন বসু, শহিদুল্লাহ প্রিন্স, মোল্যা রবিউল ইসলাম, শাপলা সুলতানা লিলি, বেগম শামসুন্নাহার, আনছার বিশ^াস, মঈনুল ইসলাম নয়ন, এস কে সাদ্দাম হোসেন, প্রদ্যুৎ কুমার বিশ^াস প্রমুখ।
কয়রা (খুলনা) : কয়রা উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শিমুল কুমার সাহার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কয়রা-পাইকগাছার সংসদ সদস্য অ্যাডঃ শেখ মোঃ নুরুল হক। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান আখম তমিজ উদ্দিন,কয়রা থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ এনামুল হক। যুবলীগ নেতা মোস্তাফিজুরের পরিচালনায় আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন কয়রা সদর ইউপি চেয়ারম্যান এস এম শফিকুল ইসলাম,মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডঃ কেরামত আলী,অধ্যক্ষ অদ্রীশ আদিত্য মন্ডল,প্রধান শিক্ষক বিকাশ চন্দ্র মন্ডল,শিক্ষার্থী রওশন জেবিন তৃষা,জাবন মন্ডল প্রমুখ।
পাইকগাছা (খুলনা) : পাইকগাছা উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকালে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ফকরুল হাসানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাড. স ম বাবর আলী। সহকারী শিক্ষা অফিসার শোভা রায়ের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, অধ্যক্ষ মিহির বরণ মন্ডল, মোঃ রবিউল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শেখ শাহাদাৎ হোসেন বাচ্চু, প্রাক্তন অধ্যক্ষ রমেন্দ্রনাথ সরকার, শিবসা সাহিত্য অঙ্গনের সভাপতি সুরাইয়া বানু ডলি। বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাব পাইকগাছার সভাপতি প্রকাশ ঘোষ বিধান, প্রভাষক ময়নুল ইসলাম, মাসুদুর রহমান মন্টু, সাংবাদিক মোঃ আব্দুল আজিজ, শিক্ষার্থী নাদিয়া সুলতানা, প্রচেতা জামান নিধি ও মুসফেকা আফরোজ। অনুরূপভাবে পাইকগাছা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মিলনায়তনে প্রধান শিক্ষক অজিত কুমার সরকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডঃ স ম বাবর আলী। বক্তব্য রাখেন, মুক্তিযোদ্ধা সরদার মোহাম্মদ নাজিম উদ্দীন, শিক্ষক আব্দুল ওহাব, প্রণব বিশ্বাস, ফজলুল আজম, পঞ্চানন সরকার, রোকনুজ্জামান, শিক্ষার্থী রুমানা ইসলাম মৌ, মৌমিতা শীল, জান্নাতুল ফেরদৌস চাঁপা ও সুমাইয়া বিনতে মাসুদ।
কালিগঞ্জ (সাতক্ষীরা) : কালিগঞ্জে আলোচনা সভা বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা গোলাম মাঈনউদ্দিন হাসানের সভাপতিত্বে ও উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নুর আহমেদ মাছুম, কালিগঞ্জ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার আব্দুল হাকিম, বিশিষ্ট সাহিত্যিক কালিগঞ্জ কলেজের সাবেক অধ্যাপক গাজী আজিজুর রহমান, উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সহ-সভাপতি এড. জাফরুল্লাহ ইব্রাহিম, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সহকারী কমান্ডার শেখ ওজিয়ার রহমান, খাঁন আহসান উল্লাহ, এসএম শাহাদাত হোসেন, শেখ মনির হোসেন, উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার জহুরুল ইসলাম প্রমুখ।
শ্যামনগর (সাতক্ষীরা) : সকাল ১১ টায় কাশিমাড়ী ইউনিয়নের কাঁঠালবাড়িয়া এ.জি মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে জন্মযুদ্ধ ৭১ স্মৃতিসৌধে এ ফুল দিয়ে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানান সাতক্ষীরা-৪ আসনের সংসদ সদস্য এস, এম জগলুল হায়দার। উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ কামরুজ্জামান, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার দেবী রঞ্জন মন্ডল, প্রধান শিক্ষক আজহারুল ইসলাম, কোর্ট মসজিদের খতিব মুফতী আব্দুল খালেক প্রমুখ।
মহেশপুর (ঝিনাইদহ) : আমরা জেগে আছি-তোমরা শান্তিতে ঘুমাও এ শ্লোগানে গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের উদ্দ্যোগে হাজারো মোমবাতি প্রজা¡লন অনুষ্ঠিত হয়েছে।
বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৭টায় মহেশপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার ড.আব্দুল মালেক গাজির নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ থেকে মুক্তিযোদ্ধারা মোমবাতি হাতে নিয়ে বধ্যভূমিতে প্রবেশ করেন।
বধ্যভূমিতে মোমবাতি প্রজ্বালন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মহেশপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম, সহকারী কমিশনার (ভূমি) রোজিনা খাতুন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ময়জদ্দীন হামিদ, পৌর মেয়র আব্দুর রশিদ খান,সাবেক কমান্ডার ড.আব্দুল মালেক গাজি,গোলাম মোস্তফা,ডেপুটি কমান্ডার রবিউল আওয়াল,উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষি বৃদ আবু তালহা,উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মেহেরুন নেছা,জেলা পরিষদের সদস্য শেখ হাসেম আলী,উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব হাসানুজ্জামান আলীমসহ উপজেলার সকল মুক্তিযোদ্ধা।
কলারোয়া (সাতক্ষীরা) : কলারোয়া উপজেলা প্রশাসন ও পাবলিক ইনস্টিটিউটের উদ্যোগে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় কলারোয়া ফুটবল মাঠের দক্ষিণ পাশে অবস্থিত কেন্দ্রীয় শহিদ মিনার ও মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিসৌধে শহিদ বুদ্ধিজীবীদের স্মৃতিচারণে মোমবাতি প্রজ্জ্বালন করা হয়। মোমবাতি প্রজ্জ্বালনের উদ্বোধন করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনিরা পারভীন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের কমান্ডার গোলাম মোস্তফা ও সাংগঠনিক কমান্ডার সৈয়দ আলী। কলারোয়া পাবলিক ইনস্টিটিউটের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনিরা পারভীন। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের কমান্ডার গোলাম মোস্তফা, সাংগঠনিক কমান্ডার সৈয়দ আলী ও উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি মনোরঞ্জন সাহা। সমগ্র অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন কলারোয়া পাবলিক ইনস্টিটিউটের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. শেখ কামাল রেজা।