যশোর জিলা স্কুলের ১৮০ বছর পূর্তি উৎসবে ‘নবীন প্রবীণ এক প্রাণ’

নিজস্ব প্রতিবেদক>
‘নবীন প্রবীণ এক প্রাণ’ ম্লোগানে যশোর জিলা স্কুলের ১৮০ বছর পূর্তি উৎসব শুরু হয়েছে। শুক্রবার বিকেলে জিলা স্কুল প্রাঙ্গণে ১৮০জন প্রাক্তন ছাত্র ও জেলা প্রশাসক বেলুন উড়িয়ে দুইদিনের বর্ণিল উৎসব উদ্বোধন করেন। সঙ্গে ছিল উৎসবের থিম সং। দুইদিনব্যাপি বর্ণিল উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান মিলন মেলায় পরিণত হয়েছে।
শুক্রবার ক্যাম্পাসে গিয়ে দেখা যায়, মঞ্চে চলছে আনুষ্ঠানিকতা। কিন্তু সারা মাঠে ছড়িয়ে ছিটিয়ে জটলায় চলছে জম্পেশ আড্ডা। প্রাণবন্ত আড্ডায় স্কুল জীবনের স্মৃতি ঘুরেফিরে সামনে আসছে। প্রাণখুলে হাসিতে মুখরিত পুরো প্রাঙ্গণ। দুই সহ¯্রাধিক প্রাক্তন ছাত্রের উপস্থিতিতে সরগরম ক্যাম্পাস। দু’দিনব্যাপি উৎসব উদযাপন উপলক্ষে জিলা স্কুলের গোটা এলাকা ইতোমধ্যে বর্ণিল আলোকসজ্জায় সাজানো হয়েছে।
জমকালো আয়োজনে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন যশোর জিলা স্কুল প্রাক্তন ছাত্র সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক এজেডএম সালেক। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন উদযাপন পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক শাহীন চৌধুরী, যশোর জিলা স্কুল প্রাক্তন ছাত্র সমিতি ঢাকার সভাপতি ও ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের এমডি এএএম জাকারিয়া, প্রাক্তন ছাত্র ইয়াসিন আলী, এস নিয়াজ মোহাম্মদ, তসদিকুর রহমান, ফখরে আলম, মোহাম্মদ রফিকুজ্জামান প্রমুখ। প্রধানমন্ত্রীর বাণী পড়ে শোনান এসএম তৌহিদুর রহমান।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে প্রাক্তন ছাত্রদের স্মৃতিচারণ করা হয়। ১৯৪১ সালের ব্যাচের ছাত্র নুরুল হুদা বলেন, অনেক দিন পর স্কুল ক্যাম্পাসে এসে প্রাণের স্পর্শ খুঁজে পাচ্ছি। আজকের অনুষ্ঠানে আসতে পেরে আমি খুব খুশি। প্রাক্তন ছাত্র তসদিকুর রহমান বলেন, এই স্কুলে আমরা ৮ ভাই পড়াশুনা করেছি। অনেক স্মৃতি জড়িত আছে। সাবেক ছাত্র এএমএম জাকারিয়া মিলন জানান, অনুষ্ঠানে এসে পুরনো বন্ধুদের পেয়ে আমি খুবই আনন্দিত। আমরা সারাদিন বন্ধুরা মিলে একে অপরের সুখ দু;খের গল্প করেছি।
শুধু ওই তিনজনই নয়, দুই সহ¯্রাধিক প্রাক্তন ছাত্র স্কুল ক্যাম্পাসে স্মৃতিচারণ, আড্ডায় ফিরেছেন শৈশবে। স্মৃতিচারণ শেষে বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়। কণ্ঠ শিল্পী খুরশিদ আলম, ঐশি ও ব্যান্ড সংগীত ছিল অন্যতম আকর্ষণ।
যশোর জিলা স্কুল প্রাক্তন ছাত্র সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক এজেডএম সালেক জানান, নবীন প্রবীণ এক প্রাণ’ এই শ্লোগানে উজ্জীবিত হয়ে প্রথম ২০০৫ সালে প্রাক্তন ছাত্র পুনর্মিলনীর আয়োজন করা হয়। এরপর ২০১০ ও ২০১৪ সালে স্কুল প্রাঙ্গণে পুনর্মিলনী উৎসব উদযাপিত হয়েছে। এবার ১৮০ বছর পূর্তির এই উৎসবে দেশ-বিদেশের প্রায় দুই হাজার প্রাক্তন ছাত্র ছাড়াও তাদের পরিবার অংশ নিয়েছে। আজ ২৩ ডিসেম্বর দুই দিনের উৎসব সমাপ্ত হবে। এদিন প্রাক্তন ছাত্র বিমান ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন উপস্থিত থাকবেন বলে আয়োজকরা জানান।