স্বপ্ন পূরণের আগেই না ফেরার দেশে যমেক অধ্যক্ষ

বিল্লাল হোসেন>
স্বপ্ন পূরণ হওয়ার আগেই না ফেরার দেশে চলে গেলেন সদা হাস্যজ্জ¦ল মানুষ হিসেবে পরিচিত যশোর মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ এনাটমি বিভাগের প্রফেসর ডাঃ এ এইচ এম মাহবুব উল মওলা চৌধুরী।
বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার দিকে ঢাকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (পিজি হাসপাতাল) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। তিনি হৃদরোগ ও লিভার জন্ডিসে আক্রান্ত হয়ে দীর্ঘদিন ছুটিতে ছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, দু ছেলেসহ অসংখ্য আতœীয় স্বজন রেখে গেছেন। তার অকাল মৃত্যুতে যশোরের চিকিৎসক সমাজ মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থী কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। তার রুহের শান্তি কামনায় গতকাল যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল মসজিদে জোহরের নামাযের পর দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।
যশোর মেডিকেল কলেজের হিসাবরক্ষক জয়নাল আবেদিন জানিয়ছেন, এএইচএম মাহবুব উল মওলা চৌধুরী অধ্যক্ষ হিসেবে যোগদান করার পর প্রতিষ্ঠানটি নিয়ে তার বুকভরা স্বপ্ন ছিলো। সুশৃংখল একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসবে গড়ে তুলতে তিনি আপ্রাণ চেষ্টা করেছেন। অনেকটা সফলও হয়েছেন। তার স্বপ্ন ছিলো যশোর মেডিকেল কলেজ ক্যাম্পাসে গাছের পাতার ভাঁজে ভাঁজে হেসে উঠবে সবুজ প্রকৃতির অপরুপ সৌন্দর্য। থাকবে বিভিন্ন ফুলের সৌরভ। নিজ উদ্যোগে তিনি দুই মাস আগে ক্যাম্পাসে রোপন করেছিলেন ফলদ বনজ ও কয়েকশ’ ফুলের গাছ। এ ধরনের নানা স্বপ্ন পূরণের আগেই তিনি চলে গেলেন না ফেরার দেশে।
কলেজের প্রধান সহকারী আব্দুস সবুর জানান, ২০১৩ সালের ১ জানুয়ারি মাহবুব উল মওলা চৌধুরী এখানে অধ্যক্ষ পদে যোগদান করেন। এর আগে তিনি এনাটমি বিভাগে অধ্যাপক পদে কর্মরত ছিলেন। শারীরিকভাবে অসুস্থতার কারনে চলতি বছরের ১০ নভেম্বর থেকে তিনি ছুটিতে ছিলেন।
ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ডা. এম এ শামসুল আরেফিন জানিয়েছেন, অধ্যক্ষ ডাঃ মাহবুব উল মওলা চৌধুরী হৃদরোগ ও লিভার জন্ডিসে আক্রান্ত হয়ে বাড়িতে চিকিৎসাধীন ছিলেন। শনিবার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি করা হয়। সেখানকার আই সি ইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার তিনি মারা যান।
ডা. এম এ শামসুল আরেফিন আরো জানান, মৃত্যুর সংবাদে তিনিসহ কলেজের শিক্ষক সমিতির সভাপতি নাক কান গলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. আখতারুজ্জামান, অজ্ঞান চিকিৎসক অ্যাসোসিয়েশন যশোরের সভাপতি ডা. আহসান হাবীবের নেতৃত্বে একদল চিকিৎসক মেডিকেলের শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা কর্মচারীরা স্যারকে শেষ বারের মতো দেখার জন্য রংপুর জেলা শহরের কারমাইকেল কলেজ এলাকাস্থ বাড়ির উদ্দেশ্যে রাত ১০টার পর রওনা হয়েছেন।
বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) যশোর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ডা. এম এ বাশার দৈনিক স্পন্দনকে জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার ঢাকায় প্রথম জানাজার নামায শেষে বিকেলে অধ্যক্ষের মরদেহ নিয়ে রংপুরের উদ্দেশ্যে রওনা হয় স্বজনেরা। শুক্রবার জুম্মার পর দ্বিতীয় জানাযার নামাজ শেষে লাশ পারিবারিক কবর স্থানে দাফন করা হবে।
মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থী জান্নাতুল ফেরদাউস খান, এসএম মাশরাফী হাসান, সৌরভ রায়সহ অনেকে জানিয়েছেন, স্যার মাহবুব উল মওলা চৌধুরী ছিলেন উদার মনের একজন মানুষ। তার শুন্যতা কখনো পূরণ হওয়ার নয়।
এদিকে তার মৃত্যুতে গভীরভাবে শোক প্রকাশ করেছেন, যশোর-১ আসনের সংসদ সদস্য ও দৈনিক স্পন্দনের সম্পাদক আলহাজ আফিল উদ্দিন, যশোর-২ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মনিরুল ইসলাম মনির, যশোর-৩ সদর আসনের এমপি কাজী নাবিল আহমেদ, বিএমএ যশোর জেলা শাখার সভাপতি ডাঃ একে এম কামরুল ইসলাম বেনু সহসভাপতি ডা. নাসিমরেজা, ডা. আবু সুফিয়ান শান্তি, সাধারণ সম্পাদক ডা. এম এ বাশার, কোষাধ্যক্ষ ডা. ওয়াহিদুজ্জামান ডিটু, যুগ্ন সম্পাদক ডা. মাহমুদুল হাসান পান্নু, সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. তৌহিদুল ইসলাম, বিজ্ঞান বিষয়ক সম্পাদক ডা. এএইচ এম আব্দুর রউফ, দপ্তর সম্পাদক ডা. গোলাম মোর্তজা, প্রচার ও জনসংযোগ সম্পাদক ডা. এএইচএম মোস্তফা কামাল সৈকত, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক ডা. হিমাদ্রী শেখর সরকার, সাংস্কৃতিক ও আপ্যায়ণ সম্পাদক ডা. রবিউল ইসলাম, গ্রন্থাগার ও প্রকাশনা সম্পাদক ডা. রিয়াদ বিন আলীসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।
এছাড়া শোক প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) যশোর জেলা শাখার সভাপতি সাবেক সিভিল সার্জন ডা. আতিকুর রহমান খান। শোক জানিয়েছেন দৈনিক স্পন্দনের নির্বাহী সম্পাদক মাহবুব আলম লাবলুসহ দৈনিক স্পন্দন পরিবারের।