তীব্র শৈত্যপ্রবাহে বিপর্যস্ত যশোরের জনজীবন

নিজস্ব প্রতিবেদক>
শৈত্যপ্রবাহে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে যশোরের জনজীবন। গত কয়েক দিনের কনকনে শীতে জুবুথুবু হয়ে পড়েছে সাধারণ মানুষ। প্রতিদিনই কমছে তাপমাত্রা। সোমবার ভোরে যশোরের তাপমাত্রা ছিল ৫ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে আসে। রোববার সকালে তাপমাত্রা ছিল ৬ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
এর আগে শনিবার যশোরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর শুক্রবার দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল যশোরে। এদিন এ জেলায় ৭ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। যশোর বিমান বাহিনীর আবহাওয়া অফিস এ তথ্য জানিয়েছে। আবহাওয়া অধিদফতরের তথ্য মতে, খুলনা বিভাগ জুড়ে এখন মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ চলছে। আরও কয়েকদিন এই অবস্থা থাকতে পারে। যশোরে গত ৫ দিনে ৭ থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা ওঠানামা করেছে। যশোর বিমান বন্দর নিয়ন্ত্রিত আবহাওয়া দফতর থেকে জানা যায় গতকাল রাত ৯টায় তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ১১ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
আবহাওয়া দফতর সূত্রে জানা যায়, গত কয়েক বছর পর এবার পৌষের মাঝামাঝিতে শৈত্যপ্রবাহ শুরু হয়েছে। ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে যশোরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছিল ৪ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
এদিকে তীব্র শীতের কারণে মানুষের স্বাভাবিক কর্মকাণ্ড ব্যাহত হচ্ছে। অতি প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘর থেকে বের হচ্ছেন না। খুব সকালে মাঠে প্রতিদিনের মতো চাষিদের দেখা মেলেনি। বেশি দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে দিন আনা দিন খাওয়া মানুষগুলোকে। হাড় কাঁপানো শীতে দুর্বিসহ হয়ে উঠেছে ছিন্নমূল ও নিম্ন আয়ের মানুষের জীবন। শহরের রেলস্টেশন, বাসস্ট্যান্ড ও বস্তিবাসীরা মানবেতর জীবন-যাপন করছে।
সদর উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের বাগডাঙ্গা গ্রামের জুলমত হোসেন জানান, প্রতিদিন তারা দলবদ্ধ হয়ে ভোরে মাঠে ধানের পাতো লাগাতে যান। কিন্তু গত কয়েকদিনের প্রচন্ড শীতের কারণে বেলা ১২টার দিকে মাঠে যাচ্ছি। তাতেও কাঁপন ধরছে। যশোর রেল স্টেশনের পাশে ফুটপাতে গায়ে মোটা চট জড়িয়ে শুয়ে থাকা বৃদ্ধ মাহাবুব আলম বলেন, ‘শিতির বাতাসে হাড় কাঁপায়ে যাচ্ছে। মুটা বস্তায় গায় দিয়েও শিতিতে বাঁচতিচিনে। এইরাম আর কয়দিন যাবে? বেশি দিন গেলি বাঁচপোনানে!’
দুর্ভোগে পড়েছে শিশু শিক্ষার্থীরা। কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তাদের সময়সূচির পরিবর্তন করেছে। যশোর কালেক্টরেট বিদ্যালয় তাদের সময় সকাল সাড়ে ৮টা থেকে বাড়িয়ে ৯টা ১০ মিনিট করেছে।
যশোর জেলা ত্রাণ কর্মকর্তা নুরুল ইসলাম জানান, এ বছর শীতে অসহায় শীতার্ত মানুষের মাঝে বিতরণের জন্য ৫৪ হাজার ২৭০ পিস কম্বল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এর ৯৫ শতাংশ বিতরণ সম্পন্ন হয়েছে।