বিএসএমএমইউয়ে চিকিৎসকের বিরুদ্ধে রোগীকে ধর্ষণের অভিযোগ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, বিডিনিউজ >বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে এসে ধর্ষিত হওয়ার অভিযোগ করেছেন ভোলার এক তরুণী।

হাসপাতালের চর্ম ও যৌন রোগ বিভাগের চিকিৎসক রিয়াদ সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে সোমবার শাহবাগ থানায় ওই তরুণীর বাবা মামলা দায়ের করেছেন বলে ওসি আবুল হোসেন জানিয়েছেন।

রিয়াদ সিদ্দিকী হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার এবং তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চতর কোর্সে অধ্যয়নরত বলে বিএসএমএমইউয়ের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আব্দুল্লাহ আল হারুন জানিয়েছেন।

তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, এ বিষয়ে তাদের কাছে এখনও কেউ লিখিত অভিযোগ করেনি। তারপরেও নিজস্ব উদ্যোগে অভিযোগটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

ওসি আবুল হোসেন বলেন, চিকিৎসার জন্য এলে ডা. রিয়াদ সিদ্দিকী গত অক্টোবরে কৌশলে তাকে ধর্ষণ করেন বলে ওই তরুণীর অভিযোগ।

“তিনি বলেছেন, ওই ঘটনার ভিডিও আছে জানিয়ে ইন্টারনেটে ছেড়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে কাউকে না বলার জন্য বলে ডাক্তার। সে কারণে আমি কাউকে বলিনি।”

এরপর ৩ জানুয়ারি বাবার সঙ্গে ডা. রিয়াদের কাছে আসেন ওই তরুণী। অন্য ডাক্তারদের দেখাতে হবে বলে বাবাকে বসিয়ে রেখে রিয়াদ তাকে ‘বি’ ব্লকের চারতলার একটি কক্ষে নিয়ে ধর্ষণ করেন বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে।

৪ জানুয়ারি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে (ওয়ান-স্টপ ক্রাইসিস সেন্টার) ভর্তি হন ওই তরুণী। সেখানে চিকিৎসা শেষে সোমবার মেয়েকে নিয়ে থানায় এসে মামলা করেন তার বাবা।

মেয়েটিকে মঙ্গলবার আদালতে পাঠানোর পর ঘটনার বর্ণনা দিয়ে বিচারকের কাছে জবানবন্দি দিয়েছেন বলে জানান শাহবাগ থানার ওসি।

আবেদনে সাড়া দিয়ে আদালত তাকে তার বাবা-মা’র জিম্মায় দিয়েছে বলে জানান তিনি।

ওসি বলেন, বিষয়টি বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। অভিযোগটি গুরুত্বের সাথে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। ডা. রিয়াদকেও খোঁজা হচ্ছে।

এ বিষয়ে বিএসএমএমইউ’র উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “বিষয়টি আমি আজ (মঙ্গলবার) সন্ধ্যায় এক সহকর্মীর মাধ্যমে শুনেছি। সে যদি দোষী প্রমাণিত হয়ে থাকে তা হলে তাকে শাস্তি পেতে হবে। আর নিরাপরাধ কেউ যেন শাস্তি না পান সে বিষয়টিও আমাদের লক্ষ রাখতে হবে।”