যশোর জেনারেল হাসপাতালে টিআইবির পর্যবেক্ষণ, বাথরুমের লাইট জ¦লে না,দরজার ছিটকানি নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক:হাসপাতালের রোগীদের টেস্ট করাতে বাহিরে পাঠানো, টয়লেট নোংরা ও দুর্গন্ধযুক্ত; বাথরুমের লাইট জ্বলে না, দরজার ছিটকানি নেই; ইনডোরের রোগীদের বেডকভার নিয়মিত পরিবর্তন করা হয় না; ড্রেসিং করার জন্য টাকা দাবি করা হয়; রোগী পরিবহনের জন্য ট্রলি বা হুইল চেয়ার ব্যবহার করলে টাকা দাবি করা হয়; কোন কোন নার্সের ব্যবহার বেশ আপত্তিকর; চিকিৎসকরা সময় নিয়ে রোগী দেখেন না; ওয়ার্ডে জানালার গ্লাস ভাঙ্গা, শীতে শিশুদের সমস্যা হচ্ছে; দালালদের দৌরাত্ম্য কমেনি; রোগী ও রোগীর স্বজনদের প্রচন্ড ভিড়; সকালের নাস্তা দেরিতে দেয়া হয় যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে প্রভৃতি অসঙ্গতি খুজে পেয়েছে সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক)। সনাক ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের য্যেথ মতবিনিময় সভায়
বুধবার এ সব অসঙ্গতি উছে আসে। হাসপাতালের সম্মেলন কক্ষে ডা: একেএম কামরুল ইসলাম বেনুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভাটি সঞ্চালনা করেন সনাক যশোরের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক সুকুমার দাস। উপন্থিত ছিলেণ অ্যাড: মোয়াজ্জেম হোসেন চৌধুরী, প্রফেসর ড: মো: মুস্তাফিজুর রহমান, অ্যাড: সৈয়দা মাসুমা বেগম, ডা: আব্দুর রউফ, ডা. এএইচএম আব্দুর রউফ, ডা. এনকে আলম, ডা. মো: আক্তারুজ্জামান, সনাক সদস্য অ্যাড. প্রশান্ত দেবনাথ, ডা. শেখ মোহাম্মাদ আলী, ডা. আশিকুজ্জামান, ডা. হাসান আব্দুল্লাহ, রওশানারা বেগম, ওয়ার্ড মাস্টার ওবাইদুল ইসলাম, ফার্মাসিস্ট রতন কুমার সরকার প্রমুখ। অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন টিআইবি’র এরিয়া ম্যানেজার এ. এইচ. এম. আনিসুজ্জামান।
এ সকল অসঙ্গতির আলোকে গৃহীত সুপারিশগুলো হচ্ছে, হাসপাতালের সকল ডাক্তার যাতে যাবতীয় টেস্ট হাসপাতাল থেকেই করানোর পরামর্শ দেন তার উদ্যোগ গ্রহণ করা; হাসপাতালের টয়লেটগুলি যাতে নিয়মিত পরিচ্ছন্ন রাখা হয় তার ব্যবস্থা করা; জরুরি ভিত্তিতে বাথরুমগুলোতে বাতি ও দরজায় ছিটকানি এবং ওয়ার্ডের জানালার গ্লাস লাগানো; ইনডোরের রোগীদের বেডকভার যাতে নিয়মিত পরিবর্তন করা হয় তার ব্যবস্থা করা; ড্রেসিং করা, রোগী পরিবহনের জন্য ট্রলি বা হুইল চেয়ার ব্যবহার করার ক্ষেত্রে টাকা নেয়া বন্ধ করা; নার্স বা কর্মকর্তা-কর্মচারীরা যাতে রোগী ও রোগীর স্বজনদের সাথে খারাপ ব্যবহার না করেন তার ব্যবস্থা করা; হাসপাতালে দালালদের দৌরাত্ম্য বন্ধে প্রতিনিয়ত ব্যবস্থা গ্রহণ; হাসপাতালে আগত রোগী ও রোগীর স্বজনদের ভিড় কমানোর জন্য উদ্যোগ গ্রহণ ও সকালের নাস্তা সময়মত দেয়ার ব্যবস্থা করা।
এ ব্যাপারে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানান সমস্যা সমাধানের জন্য সবার সহযোগিতা প্রয়োজন।