যশোরের ভেকুটিয়ায় শিশু ইয়াসিনের মৃত্যু রহস্যজনক

নিজস্ব প্রতিবেদক>
যশোর সদর উপজেলার ভেকুটিয়া গ্রামের কারিগরপাড়ার শিশু ইয়াসিনের (৬) মৃত্যুটি রহস্যজনক বলে মনে করছে পুলিশ। প্রথমে পানিতে ডুবে মৃত্যু হয়েছে এমন সংবাদ শোনা গেলেও পরে জানাগেছে কেউ তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করে ধানক্ষেতে ফেলে যেতে পারে। তবে সবকিছু অপেক্ষা করছে ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার ওপর।
কোতয়ালি থানার এসআই সোবহান শরীফ জানিয়েছেন, শুক্রবার রাত ৮টার দিকে ভেকুটিয়া বাজারের কাছে একটি ধানক্ষেতের মধ্যে শিশু ইয়াসিনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে তাকে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে নেয়া হয়। শনিবার সকালে ঘটনাটি অনুসন্ধানে ওই গ্রামে যাওয়া হয়। সেখানে গিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে জানতে পারি-একটি ডোবার পাড়ে ধান ক্ষেতের মধ্যে শিশুটির মরদেহ উপুড় অবস্থায় পড়ে ছিল। তার মুখমন্ডলে কাঁদামাটিতে ভরা ছিল। লাশ পানিতে ছিলো না। প্রথমে পানিতে ডুবে মারা যাওয়ার সংবাদ পাওয়া গিয়েছিল। কিন্তু পরে জানাগেলো তাকে কেউ শ্বাসরোধে হত্যা করে মরদেহ ফেলে রাখা হয়েছে।
শিশুর বাবা ওই এলাকার টাইলস মিস্ত্রি ওয়াসিম হোসেন জানিয়েছেন, ইয়াসিন স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণিতে লেখাপড়া করে। ভেকুটিয়া বাজারে তার একটি চায়ের দোকান আছে। শুক্রবার বিকেলে ইয়াসিন তার দোকানে যায়। পাশের একটি দোকান থেকে তাকে খাবার কিনে দেয়া হয়। এবং বাড়িতে যেতে বলি। রাত ৮টার দিকে জানতে পারি ইয়াসিন বাড়িতে পেরেনি। এর পর তার খোঁজ নেয়া শুরু হয়। পরে বাজারের পেছনের দিকে একটি ডোবার পাশের ধানক্ষেতের মধ্যে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।
তিনি জানিয়েছেন, তার কোন শত্রু নেই। তার ছেলে তো শিশু। ফলে কী কারণে তার মৃত্যু তা তিনি বলতে পারেননা। কেউ তাকে হত্যা করেছে কী না এই বিষয়ে বলেন, পুলিশ ধারণা করছে শিশুটিকে কেউ হত্যা করে মরদেহ ফেলে যেতে পারে।
এ বিষয়ে কোতয়ালি থানার এসআই সোবহান শরীফ জানিয়েছেন, লাশ দেখে মনে হয়েছে কেউ তাকে হত্যা করতে পারে। গতকাল যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতাল মর্গে তার ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। রিপোর্ট পাওয়ার পর প্রকৃত ঘটনা যাবে।