যশোরে আ,লীগ ও বিএনপি নেতৃবৃন্দের প্রতিক্রিয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক>
এতিমখানা মামলায় বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার সাজা হওয়ার বিষয়ে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন যশোরে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি নেতৃবৃন্দ। জেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা এ রায়ে কেউ আইনের উর্ধ্বে নয় প্রমাণ হয়েছে বললেও বিএনপি নেতৃবৃন্দ বলেছেন, ‘এ রায় প্রতিহিংসার’।

রায় সঠিকভাবে
দেয়া হয়েছে
–পিষুষ কান্তি ভট্টাচার্য্য

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক এমপি পিষুষ কান্তি ভট্রাচার্য্য বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রায়ের প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, রায়টি সঠিকভাবে দেয়া হয়েছে। ব্যক্তি নয়, অন্যায় দেখে বিচারক রায় দিয়েছেন। এর মধ্যে দিয়ে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা হয়েছে এবং আইনের ঊর্ধ্বে যে কেউ নয়, তা প্রমাণ হল। তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় তিনি আরও বলেন, খালেদা জিয়া দোষী প্রমাণিত হওয়ায় বিজ্ঞ বিচারক তাকে পাঁচ বছর কারাদন্ড দিয়েছেন। এই রায়ে প্রমাণ হল যে বাংলাদেশে কেউ অন্যায় করে পার পাবেনা। এখন এটাই প্রতিষ্ঠিত হয়েছে যে, অপরাধ করলে তার বিচার হয় এবং সুষ্ঠু বিচার হওয়ার পরে তার শাস্তি হয়।

অন্যায় করে কেউ
পার পাবে না
—শহিদুল ইসলাম মিলন
যশোর জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রায়ের প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, রায়টি সঠিকভাবে দেয়া হয়েছে। এটা প্রমাণিত হল যত ক্ষমতাবান মানুষ হোক না, কেন কেউ আইনের উর্ধ্বে নয়। এর মধ্যে দিয়ে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা হয়েছে। এই রায়ে প্রমাণ হল যে বাংলাদেশে কেউ অন্যায় করে পার পাবেনা। অপরাধ করলে তার বিচার হয়।

রায়ে আইনের শাসন
প্রতিষ্ঠিত হয়েছে
–শেখ আফিল উদ্দিন
দুর্নীতির মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সাজার রায়ের প্রতিক্রিয়ায় যশোর জেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি ও যশোর-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ শেখ আফিল উদ্দিন বলেছেন, কেউ আইনের উর্ধ্বে নয়, এই রায়ের মাধ্যমে তা প্রমাণ হল। রায়ে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা হয়েছে। শেখ আফিল উদ্দিন বলেন, আমি মনে করি যে, বাংলাদেশে যে দুর্নীতির আখড়া ছিল সেখান থেকে আমরা পরিত্রাণ পাওয়ার প্রচেষ্টায় সরকার যে সচেষ্ট তার সাফল্য এটা। আমরা অন্ততপক্ষে পৃথিবীর কাছে বলতে পারব, যারা দুর্নীতি করেন তাদের এই দেশে বিচার হয়। যারা যুদ্ধাপরাধী ছিলেন তাদের বিচার হয়েছে, বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচার হয়েছে, এই বিচার প্রক্রিয়াটাই সরকারের সাফল্য।

প্রমাণ হল কেউ আইনের
ঊর্ধ্বে নয়
—শাহিন চাকলাদার
দুর্নীতির মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সাজার রায়ের প্রতিক্রিয়ায় যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান শাহিন চাকলাদার বলছেন, এর মধ্যে দিয়ে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা হয়েছে এবং আইনের ঊর্ধ্বে যে কেউ নয়, তা প্রমাণ হল। তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেন, খালেদা জিয়া দোষী প্রমাণিত হওয়ায় বিজ্ঞ বিচারক তাকে পাঁচ বছর কারাদন্ড দিয়েছেন। এই রায়ে প্রমাণ হল যে বাংলাদেশে বিএনপি আমলে দুর্নীতির যে স্বর্গ ছিল তার অবসান হয়েছে। এখন এটাই প্রতিষ্ঠিত হয়েছে যে, অপরাধ করলে তার বিচার হয় এবং সুষ্ঠু বিচার হওয়ার পরে তার শাস্তি হয়। আমি যতদূর জানি দুদক কাগজপত্রে প্রমাণ করেছে এবং সেজন্য আজকে এই সাজা।

এটি সরকারের
প্রতিহিংসার রায়
—দেলোয়ার হোসেন খোকন
দুর্নীতির মামলায় খালেদা জিয়ার সাজাকে সরকার প্রধানের প্রতিহিংসার রায় বলে মন্তব্য করেছেন যশোর জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন খোকন।
বৃহস্পতিবার দলীয় প্রধান খালেদা জিয়ার ৫ বছরের কারাদন্ডের আদেশের পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় তিনি এ মন্তব্য করেন।
তিনি বলেন, স্বামী হারা, সন্তান হারা হয়ে শুধুমাত্র জনগণ, দল এবং মানুষের জন্য তিনি কাজ করেছেন, জনগণের কথা বলেছেন তিনি। এ রায়কে সরকারের প্রতিহিংসা পূরণের রায় উল্লেখ করে এ বিএনপি নেতা বলেন, সরকার একক কর্তৃত্ববাদী শাসন করবে, গণতন্ত্রকে নিশ্চিহ্ন করে একদলীয় শাসন দীর্ঘায়িত করার জন্যই এ রায়। বাংলাদেশের মানুষ ঘৃণাভরে এ রায় প্রত্যাখ্যান করেছে। এ জনগণের আশা-আকাঙ্খার বিরুদ্ধে রায় দেওয়া হয়েছে। এ রায় দেওয়া হয়েছে শুধুমাত্র একজন ব্যক্তিকে খুশি করার জন্য, ন্যায় বিচার এখানে প্রতিষ্ঠিত করা হয়নি। ন্যায় বিচারের ধারায় এ রায় হয়নি। শুধুমাত্র চাকরি রক্ষার্থে এ রায় দেওয়া হয়েছে। এ রায়ের প্রতি ধিক্কার জানাচ্ছি, নিন্দা জানাচ্ছি।

সরকার প্রধানের
প্রতিহিংসার রায়
—-মারুফুল ইসলাম
দুর্নীতির মামলায় খালেদা জিয়ার সাজাকে সরকার প্রধানের প্রতিহিংসার রায় বলে মন্তব্য করেছেন যশোর নগর বিএনপির সভাপতি ও সাবেক পৌর মেয়র মারুফুল ইসলাম। বৃহস্পতিবার দলীয় প্রধান খালেদা জিয়ার ৫ বছরের কারাদন্ডের আদেশের পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় তিনি এ মন্তব্য করেন।
তিনি বলেন, খালেদা জিয়া দেশ ও জনগনের জন্য রাজনীতি করেন। এজন্য তাকে স্বামী এবং সন্তান হারা হতে হয়েছে, তারপরও জনগণের কথা বলেছেন তিনি। এ রায়কে সরকারের প্রতিহিংসা পূরণের রায় উল্লেখ করে এ বিএনপি নেতা বলেন, সরকার একক কর্তৃত্ববাদী শাসন দীর্ঘস্থায়ী করতে চায়, গণতন্ত্রকে নিশ্চিহ্ন করে একদলীয় শাসন প্রতিষ্ঠার জন্য এ রায়। বাংলাদেশের মানুষ ঘৃণাভরে এ রায় প্রত্যাখ্যান করেছে। এ জনগণের আশা-আকাঙ্খার বিরুদ্ধে রায় দেওয়া হয়েছে। এ রায় দেওয়া হয়েছে শুধুমাত্র একজন ব্যক্তিকে খুশি করার জন্য, ন্যায় বিচার এখানে প্রতিষ্ঠিত করা হয়নি। এ রায়ের প্রতি নিন্দা জানাচ্ছি।