যশোরে বিএনপির শীর্ষ নেতাসহ ১৭ জনের বিরুদ্ধে আরেকটি নাশকতা মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক>
নাশকতা কর্মকান্ড করার অভিযোগে যশোর কোতয়ালি থানায় বিএনপির শীর্ষ নেতাদের নামে আরো একটি মামলা করেছে পুলিশ। এই নিয়ে গত তিনদিনে তিনটি মামলা হয়েছে। এবার গত শুক্রবার রাতে দায়ের করা মামলার বাদি কোতয়ালি থানার এসআই দেবাশীষ রায়। তিনি ১৭ নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ২০/২৫ জনের নামে মামলাটি করেন।
গত তিনটি মামলার মতো এবারও নাশকতা অর্থ জোগানদাতা হিসাবে ব্যবসায়ী সাজেদুর রহমান সুজাসহ ৪ জনের কথা উল্লেখ করা হয়েছে।
এই মামলায় একজনকে আটকও দেখানো হয়েছে। তিনি হলেন উপশহর সি ব্লক এলাকার ৫১ নম্বর বাড়ির ইউসুফ আলীর ছেলে আসিফ আলী সুমন।
পলাতক আসামিরা হলেন, জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হোসেন বাবুল, মোল্লাপাড়া আমতলা মালোপাড়ার নির্মল কুমার বিট, নগর ছাত্রদলের সভাপতি ফারুক হোসেন, জেলা ছাত্রদলের সহসভাপতি মোস্তফা আমির ফয়সাল, জেলা যুবদলের সভাপতি এহসানুল হক মুন্না ও তার ভাই পাপ্পু, মোল্লাপাড়া আমতলা কবরস্থানের পাশের তহিদুর রহমান কুইন, চাঁচড়া ডালমিল তেতুঁলতলা এলাকার লালবাবু, বারান্দীপাড়া কদমতলা এলাকার তোতা মিয়ার ছেলে জামান, বারান্দীপাড়া কদমতলা এলাকার টেনিয়া, মোল্লাপাড়া আমতলা কবরস্থানের পাশের শামীম, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু, সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন খোকন, সদর উপজেলার বিএনপির সভাপতি নুর উন নবী, সাধারণ সম্পাদক কাজী আযম এবং নগর বিএনপির সভাপতি মারুফুল ইসলাম মারুফ।
এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, গত শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে আসামিরা খালধার রোডস্থ বরফ কলের সামনে নাশকতা করার জন্য জড়ো হন। গোপন সূত্রে সংবাদ পেয়ে সেখানে হাজির হলে আসামিরা দুইটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পালিয়ে যায়। তবে ঘটনাস্থল থেকে আসিফ আলী সুমনকে আটক করা হয়। সেখান থেকে আসামিদের ফেলে যাওয়া দুইটি বিস্ফোরিত বোমার জদ্দার কৌটার ৪টি অংশ, ১৩টি জালের কাঠি (লোহার টুকরো), আগুনে আধা পোড়ানো একটি পুরনো টায়ার, কাটা ছেড়া স্কস টেপের ৬টি টুকরো, বোমা সাদৃশ্য একটি বস্তু, ৯টি কাঁচের মারবেল, ২০টি বাঁশের লাঠি, এক কেজি ওজনের ছোটবড় ২০টি পাথরের টুকরো জব্দ করা হয়েছে।
এজাহার মতে, আটক আসামি সুমনকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে পুলিশকে জানায়; আসামিরা বিভিন্ন সময় আন্দোলনের নামে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর আক্রমণ, বোমাবাজি, দোকানপাট, বৈদ্যুতিক স্থাপনাসহ সরকারি বেসরকারি বহু গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় অগ্নিসংযোগসহ মানুষের জীবন ও সম্পদের ব্যাপক ক্ষতি সাধন করে আসছে। আর এই কাজে অর্থযোগান দিয়ে আসছে শহরের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী বেজপাড়া চারখাম্বার মোড়ের সাজেদুর রহমান সুজা, বিএনপি নেতা মুল্লুক চাঁদ ও তার ভাই রিপন চৌধুরী এবং আরএন রোডের বিশিষ্ট ফার্নিচার ব্যবসায়ী এল রহমানের ছেলে সোহাগ।