যশোর পৌরসভার সচিবের বিরুদ্ধে নারীকে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক >
বৃহস্পতিবার সকালে যশোর পৌরসভার সচিব আব্দুল্লাহ আল মাসুমের বিরুদ্ধে শ্রাবণী রায় (৩০) নামে এক নারীকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করার অভিযোগ উঠেছে। শ্রাবণী রায় শহরের পশ্চিম বারান্দীপাড়ার খালধার রোডের ডাক্তার আনোয়ারুল হকের বাড়িতে ভাড়া থাকেন। সেখানেই গিয়ে তাকে কুপ্রস্তাব দেয়া হয়। এতে রাজি না হওয়ায় তাকে কুপিয়ে জখম করা হয়েছে বলে শ্রাবণী রায় জানিয়েছেন। তিনি যশোরে ২৫০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।
এদিকে বৃহস্পতিবার রাতে শ্রবণী রায়কে দেখতে হাসপাতালে যান যশোর জেলা পুজা উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দ।
শ্রাবণী রায়ের অভিযোগ, মাসুম তার ধর্মত ভাই। সে কারণে তার সাথে যোগাযোগ ছিল। এই সুযোগে মাসুম তাকে কু প্রস্তাব দেন। কিন্তু তাতে তিনি রাজি হয়নি। কিন্তু মাসুম পিছু ছাড়েন না। তাকে নানা ভাবে কু প্রস্তাব দেয়া হতো। তিনি এক সময় মাসুমের স্ত্রীকে জানিয়ে দিয়ে রক্ষা পাওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু এতে মাসুম আরো ক্ষিপ্ত হন এবং বৃহস্পতিবার তার বাড়িতে এসে তাকে ছুরি দিয়ে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকেন। তাকে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যার চেষ্টা করেন। সে সময় তিনি চিৎকার দিলে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে। সে সময় মাসুম পালিয়ে যান। পরে তাকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
কিন্তু ওই এলাকার লোকজন জানিয়েছেন, শ্রাবণীর স্বামীর নাম দীপঙ্কর রায়। মাসুমের সাথে শ্রাবণীর দীর্ঘদিনের সম্পর্ক আছে। এই সম্পর্ক বেশ কয়েক বছর ধরে। দীপঙ্কর ঘটনাটি জানতে পারেন এবং স্ত্রীকে নিবৃত করতে ব্যর্থ হলে তিনি শ্রাবণীকে ছেড়ে চলে যান। সে সময় থেকে শ্রাবণী ধালধার রোডের ওই বাড়ির দ্বিতীয়তলার ফ্লাটে একাই থাকতেন।
পৌরসভার একটি সূত্র জানিয়েছে, শ্রাবণী রায় নামে ওই নারীর সাথে সচিব মাসুমের অবৈধ সম্পর্ক আছে। এই বিষয়টি নিয়ে শ্রাবণীর স্বামী দীপঙ্কর পৌরসভায় অভিযোগ দিয়েছিলেন। সে সময় মেয়র ছিলেন মারুফুল ইসলাম। ঘটনাটি সে সময় পৌর কর্মকর্তা কর্মচারিরা জানতে পারেন। একারনে দীপঙ্কর তাকে ছেড়ে চলে যান।
সূত্রটি আরো জানিয়েছেন, শ্রাবণী ছাড়ও যশোর শহরের কাজীপাড়া, বেনাপোল, কেশবপুরসহ বেশ কয়েকটি এলাকার নারীর সাথে মাসুমের অনৈতিক সম্পর্ক রয়েছে।
এ বিষয়ে জানতে আব্দুল্লাহ আল মাসুমের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হয়। কিন্ত তিনি ফোন রিসিভ করেন নি।
তবে পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রাশেদ আব্বাস রাজ জানিয়েছেন, ঘটনাটি আমি শুনেছি। ওই এলাকা থেকে সকালে আমি মোবাইল ফোন করা হয়েছিল। মাসুমের অনৈতিকতা নিয়ে আগেও অনেক অভিযোগ আছে।
এ বিষয়ে কোতয়ালি থানার পরিদর্শক (অপারেশনস) শামসুদ্দোহা জানিয়েছেন, সবার মতো আমিও ঘটনাটি শুনেছি। কিন্তু কোন লিখিত অভিযোগ পাইনি।
এদিকে আহত শ্রাবণী রায়কে দেখতে বৃহস্পতিবার রাতে হাসপাতালে যান যশোরে পুজা উদযাপর পরিষদের নেতৃবৃন্দ। নেতাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন দীপঙ্কর দাস রতন, অসীম কুন্ডু, যোগেস দত্ত, সন্তোস দত্ত প্রমুখ।
দীপঙ্কর দাস রতন দৈনিক স্পন্দনকে জানিয়েছেন, ওই নারীর সাথে তাদের কথা হয়েছে। তিনি ইতোমধ্যে এই ঘটনার বিচার চেয়ে জেলা পুজা উদযাপন পরিষদ এবং হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীস্টান ঐক্য পরিষদের কাছে অভিযোগ দিয়েছেন। তার কথা অনুযায়ী শ্রাবণী রায় পৌর সচিব মাসুমের কাছে টাকা পেতেন। তার স্বামী দীপঙ্কর বিদেশে থাকেন। যতবার টাকা চাওয়া হয় ততবার মাসুম তাকে কু প্রস্তাব দিতেন। পাওনা টাকা আদায়ের জন্য মামলা করার হুমকি দিলে বৃহস্পতিবার তার বাড়িতে গিয়ে মাসুম ছুরিকাঘাতে মারার চেষ্টা করে। এই ঘটনার পর মামলা করা হবে এবং ইতোমধ্যে পৌর মেয়রের সাথে কথা বলে অভিযুক্ত সচিবের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ করা হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন।