সংবাদ সম্মেলন করে পদত্যাগ করলেন বসুন্দিয়া ইউনিয়ন যুবদলের নেতা

নিজস্ব প্রতিবেদক>
যশোর সদর উপজেলা যুবদলের সিনিয়র সহসভাপতির পদ থেকে স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেছেন জামাল হোসেন। পারিবারিক সমস্যার কারনে তিনি পদত্যগ করেছেন বলে সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন। জামাল হোসেন যশোর সদর উপজেলার বসুন্দিয়া গ্রামের সামছুর বিশ্বাসের ছেলে।
বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও তার ছেলে সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের মতো শীর্ষ নেতাদের দুর্নীতির দায়ে কারাদন্ড হওয়ার পর মর্মাহত হয়ে দল থেকে পদত্যাগ করেছেন জামাল হোসেন নামে বসুন্দিয়া ইউনিয়ন যুবদলের ওই নেতা। গতকাল প্রেসক্লাব যশোরে এক সংবাদ সম্মেলন করে তিনি এই পদত্যাগের সিন্ধান্তের কথা জানান।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে জামাল হোসেন বলেন, আমি একজন ব্যবসায়ী। একই সাথে আমি বিএনপির একনিষ্ঠ সমর্থক ছিলাম। তবে ব্যবসায়িক কারণে ব্যস্ত থাকায় আমি কখনো নেতা হওয়ার স্বপ্ন দেখিনি। কিন্তু কিছু দিন আগে আমি জানতে পারি আমাকে বসুন্দিয়া ইউনিয়ন যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি করা হয়েছে। তবে বিষয়টি সম্পর্কে আমি আগে কিছুই জানতাম না। আর সম্প্রতি বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া, তার ছেলে তারেক রহমানের দুর্নীতি আদালতে প্রমাণিত হয়েছে। একটি দলের শীর্ষ নেতারা যদি দুর্নীতিগ্রস্ত হন তাহলে সেখানে কোন আদর্শ থাকতে পারে না। বর্তমানে আমি এ দলের নুন্যতম কর্মী সমর্থকও থাকতে চাইনা। এজন্য আমার অগোচরে ইউনিয়ন যুবদলের যে পদ দেওয়া হয়েছিল সেখান থেকে স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করছি। যেহেতু আমাকে না জানিয়ে ইউনিয়ন যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি করা হয়েছিল তাই আমি কোন নেতার কাছে পদত্যাগপত্র দেয়নি। এই সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে পদত্যাগ করছি।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সাইফুল ইসলাম, ইমরান হোসেন প্রমুখ ।