খালেদা জিয়া বিদেশ যাচ্ছেন: আসছে নতুন চমক?

চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশ যেতে চাইলে লন্ডনকেই বেছে নেবেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। তবে সৌদি আরবেও যেতে পারেন বলে রাজনৈতিক মহলে গুঞ্জন রয়েছে। দলীয় সূত্র জানায়, বেগম খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে যুক্তরাষ্ট্রে চিকিৎসা নিয়েছেন। এছাড়া লন্ডন, সৌদি আরব এবং সিঙ্গাপুরে সাধারণত চিকিৎসা করতেন তিনি। সর্বশেষ গত ১৫ জুলাই লন্ডন সফর করেন খালেদা জিয়া। সে সময় তার পায়ের ও চোখের চিকিৎসার কথা জানিয়েছিল বিএনপি। আর এর আগেও তিনি লন্ডনে চোখের অপারেশন করিয়েছিলেন। অপর এক সূত্রের দাবি, খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসার জন্য সৌদি আরবের প্রস্তাব রয়েছে। সরকারও এ বিষয়ে উদার। সৌদি আরবে ইয়েমেনের প্রেসিডেন্ট মানসুর হাদি, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ, তিউনেশিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট জয়নাল আবেদীন আলীসহ অনেকে অবস্থান করছেন।

রাজনৈতিক বিশ্লেষক মহিউদ্দিন খান মোহন বলেন, সরকার যে গোলটা করতে চাচ্ছে সেই গোলটির জন্য বল ডি বক্সে ঠেলে দিয়েছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এখন সরকারের স্ট্রাইকাররা টোকা মারলে বলটা গোল হয়ে যাবে। মহিউদ্দিন খান মোহন এক সময় বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা এবং বেগম খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন সহকারী প্রেস সচিবের দায়িত্ব পালন করেছেন।

বল আসলেই গড়াচ্ছে। খালেদা জিয়া  জেলে পচে মরবেন এটা ঠিক মানা যায় না। এদিকে সরকারও ছাড় দেবে বা দূদক তাঁকে ছাড়বে বলে মনে হয়না। কোনদিন কেউ শুনেছেন একটা সাজা মেয়াদ পূর্ণ হবার আগেই কর্তারা আগ বাড়িয়ে বলছে, কেন আরো সাজা হবেনা? এই সাজা বা বিচারের যথার্থতা যাই হোক একটা বিষয় পরিষ্কার ম্যাডাম জিয়ার ইমেজ বা ক্যারিশমা আর কাজে আসছেনা। সেটা আমরা আগেই বুঝে নিয়েছিলাম। যেসব বিএনপি বা জাতীয়তবাদীরা কথা শুনলেই রেগে যান কিংবা হৈ চৈ করে ওঠেন তাদের বলি, ভালো করে ভেবে দেখুন আপনারাই তাঁর ইমেজ, ভাবমূর্তিকে কতটা ডুবিয়েছেন। খালেদা জিয়া গোড়া থেকেই বিতর্কিত। তাঁর ব্যক্তিজীবন নিয়ে যেসব নোংরা বিতর্ক তা কোনদিন আমাকে টানেনি। আমি সেগুলো নিয়ে আগ্রহীও নই। তাঁর রাজনীতি পছন্দ না করলেও এটা জানি তিনি ব্যক্তিজীবনে আধুনিক বা অনেক বিষয়ে সংস্কারমুক্ত ছিলেন বলেই হয়তো তাঁকে নিয়ে এত গল্প। কিন্তু অাশ্চর্যজনকভাবে তাঁর রাজনীতি পুরোই উল্টো। তিনি ছিলেন এবং এখনো আছেন মৌলবাদী নামে পরিচিতজনদের মাথার ওপর। যে জামায়াত সারাজীবন নারী বিদ্বেষী আর নারী নেত্রীত্ব হারাম বলে ফতোয়া দিলো তাদের প্রয়াত জীবিত নেতারা খালেদা জিয়াকে মানতে একপায়ে খাড়া। শুধু তাই নয়, অতীতের ছবিগুলো দেখবেন গোলাম আজম নিজামী সা. কাদের সাথে কি আন্তরিক পরিবেশে সখ্যতাময় ছবিগুলো। এই বৈপরীত্য তাঁকে আস্তে আস্তে ডুবিয়েছে। এই যে এখন কাদের সিদ্দিকী যাকে আমি ওয়াহিদুল হকের ভাষায়  বলি ,কা’দের সিদ্দিকী? ঠিক বোঝা যায়না তিনি কা’দের আসলে? সেই তিনিও নতুন ফতোয়া দিচ্ছেন নারী নিয়ে। অথচ মনে মনে এখন তার নেত্রী খালেদা জিয়া। শেখ হাসিনাকে নারী মহিলা বা অচ্ছুৎ ভাবা নেতারা খালেদা জিয়াকে কোন জেন্ডারে ফেলেন বোঝা মুশকিল। কিন্তু তাঁকেই মানেন। আর সে মানানসই হতে গিয়ে কবেই তিনি ছিটকে পড়েছেন দৃশ্যপট থেকে। যার কারণে আজ তিনি জেলে। আর মাঠের নেতাদের মুখে বিগলিত হাসি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্পষ্টভাষী। অনুচিত হলেও বলে ফেলেন। এই যে তিনি ঠাকুরগাঁও গিয়ে মীর্জা ফখরুলকে একহাত নিলেন সেটার কি খুব বেশী দরকার ছিলো? থাক বা নাথাক তিনি তাঁকে মিথ্যাবাদী বলেছেন। এতে রুষ্ট হবার পরিবর্তে একগাল হাসি নিয়ে মীর্জা সাহেব বলেছেন , তিনি মিষ্টি পাঠাবেন প্রধানমন্ত্রীকে। কারন এতে নাকি তাঁর ভোট বাড়বে। ভোটের রাজনীতিবিমুখ বিএনপি নেতা হঠাৎ করে ভোটের কথা বলছেন। সাথে সেই মওদুদ আহমেদ যিনি ডিগবাজীর মাষ্টার। যাঁর নামে বাজারে নানা গুজব। যার মধ্যে একটি হলো স্বয়ং খালেদা জিয়া নাকি চান  মওদুদ সাহেব যেন তাঁর হয়ে না লড়েন। কারণ তাতে ভেজাল থাকতে পারে। এতসব গুজবের একাংশ সত্য হলেও বুঝে নিচ্ছি সুতো জট পাকাচ্ছে। সেই সুতোর নাটাই আসলে কোথায় তারই একটা হিসেব পাওয়া গেলো বেগম জিয়ার চিকিৎসা ও বাইরে যাবার খবরে।

শোনা গিয়েছিল তিনি যখন লন্ডনে তখনই তাঁকে ম্যাসেজ দেয়া হয়েছিল না ফিরতে। কারণ সরকার অকারণে তাঁকে নিয়ে মাঠ গরম করতে চায়নি। নিয়মমাফিক আইনের পথে বিচার হলেও তাঁর সামনে যে দূর্যোগ সেটা বুঝিয়ে তাঁকে সেখানে থেকে যাবার পরামর্শ তিনি গ্রহণ করেননি। কারণ দুটো হতে পারে। একটি তাঁর সুপুত্র তারেক। যার ধারণা তিনি আসলেই সব ফকফকা হয়ে যাবে। বা এখনো তার কথাতেই সব চলে। আর একটি হয়তো মনে মনে বিশ্বাস করেছিলেন বিএনপির যে সাইলেন্ট মেজরিটি তার কারণে এমন কিছু হবেনা। বেগম জিয়া যেটি বুঝতে পারেননি সাইলেন্ট আর ভাইব্রেন্ট বিষয়গুলো তো সবসময় তাই। গোপনে থাকে। সামনে আসেনা। আসতে পারেনা। সেইসব সমর্থনের মাজেজা আর যাই হোক তাতে আন্দোলন হয় না। সে বিষয়টা কেউ তাঁকে বুঝিয়ে দেয়নি। এটাও জানেননি তাঁর দলের নেতারা এখন অফিস আর মাইক্রোফোন নির্ভর। ফলে তাঁকে বিচারের মুখোমুখি হয়ে জেলে যেতে হয়েছে।

তাঁকে খুব বেশী দিন জেলে রাখার ঝুঁকি নেবেনা কেউ। এই বাস্তবতা থেকে মুক্তির পথ ঐ  একটাই। দেশত্যাগ। কি আশ্চর্য সে খবরটাই বেরিয়ে আসছে এখন। নির্বাচনের আগে খালেদা জিয়া দেশ ছাড়লে বিএনপি কি করবে ? সে প্রশ্নের উত্তরও মোহন মিয়া দিয়ে দিয়েছেন। মীর্জা ফখরুল সাহেবরা যখন বুঝে যাবেন আর পথ নাই তখন তারা নাজমূল হুদার পথ ধরবেন। মওদুদসহ বাকীরা তো রেডি বলেই গুজব আছে। তৈরী হবে নতুন এক জাতীয়তাবাদী দল। যারা হয়তো নির্বাচনে যাবে। আসন পাবে। টেবিল চাপড়িয়ে বেগম জিয়াকে দেশে ফিরিয়ে আনার শপথে পার করে দেবে পুরো টার্ম। এই নকশাটা কি আসলেই খুব অচেনা? পাকিস্তানের রাজনীতিতে তো হামেশাই হয় তা। বেচারা নেওয়াজ শরীফ দফায় দফায় যান আর আসেন। একবার শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধীকেও যেতে হয়েছিল । লন্ডনে । ভোটে হারার পর। তাঁর মনোবল আর দলের শক্তি তাঁকে আবারো গদীতে ফিরিয়ে আনে। অন্যদিকে বেনজীরের ভাগ্যে দেশে ফেরা হলেও বাঁচাটা জোটেনি। সেভাবে মৃত্যুর চাইতে বিদেশে বেঁচা থাকাটা মন্দ না। বুঝতে হবে খালেদা জিয়ার বয়স হয়েছে। মুখে তিনি যাই বলুন তাঁর একপুত্র দুনিয়ায় নাই। আরেকটি থেকেও নাই। তিনি আর কতটা নিতে পারবেন আসলে? মানুষের জন্য রাজনীতি বা জনগণের জন্য রাজনীতির যে দিক তাও আর নাই দেশে। নাই তাঁর সেই সব মিত্রেরা। বয়সী মিত্রদের হারিয়ে ডানাভাঙা পাখির মতো উড়তে গিয়ে পড়ে যাবার বিকল্প কোথায়? ফলে চিকিৎসার জন্য বিদেশ গিয়ে ভাগ্যের কাছে আত্মসমর্পনের বাইরে আর কি পথ খোলা আছে তাঁর জন্যে?

এ সবই স্পেকুলেশান। তারপরও যা রটে তার কিছুটাতো বটে। খালেদা জিয়া যে আইনী লড়াইয়ে সহজে মুক্তি পাবেন এমনটা মনে করার কোন কারণ নাই। তাঁর দলের অনুগত নেতাদের মধ্যে এখন হতাশা। তাঁকে জেলে রেখে এরা সভাসমিতি করলে মুখের হাসি বা প্রসন্নতা বলে দেয় সংগ্রাম বলে আসলে আর কোন কিছু অবশিষ্ট নাই রাজনীতিতে। তারা নিজেদের স্বার্থ জীবন বা পরিবার ভুলে জেলে গিয়ে পচবেন এমন ধারণা এখন বোকামী। ফলে বাকী রইলো সেই হিসেবটাই। যেখানে নতুন বিএনপির নামে মাইনাস হবেন খালেদা জিয়া আর তারেক জিয়া। এমন সময় কি আসন্ন? খালেদা জিয়া কি সত্যি চিকিৎসার নামে দেশ ছাড়ছেন? ছাড়লে নির্বাচনের গতিপ্রকৃতি কি হবে তা বোঝার  জন্য একটু সময় লাগবে বৈকি। এদিকে আওয়ামী লীগের প্রগলভ সাধারণ সম্পাদক আগ বাড়িয়ে বলে দিয়েছেন, সরকারই তৈরী আছে বেগম জিয়াকে বিদেশ পাঠাতে। যার মানে সবাই জানেন আর বুঝতে পারছেন কিছু একটা এমনই হতে যাচ্ছে।

কার ভাগ্যে কি আছে বা হতে পারে জানলে রাজনীতিবিদরা আগেই সাবধান হতেন। জানেন না আর জানলেও মানেন না বলেই এমন হয়। খালেদা জিয়ার ভাগ্যে আর কি কি আছে, এইদেশ মুক্তিযুদ্ধ বঙ্গবন্ধুর আত্না শহিদদের  ইচ্ছাকৃত অপমানের আর কি কি শাস্তি আছে সময়ই বলতে পারে। ব্যাড লাক খালেদা জিয়া।