বিশ্বকাপে রুশ নারীদের জন্য সতর্কবার্তা দিয়ে সমালোচনায় এমপি

নিউজ ডেস্ক :ফুটবল বিশ্বকাপের সময় কালো চামড়ার বিদেশি পুরুষদের সঙ্গে যৌন সংসর্গে জড়িয়ে না পড়ার জন্য রাশিয়ার নারীদেরকে সতর্কবার্তা দিয়ে সমালোচনার মুখে পড়েছেন দেশটির বিশিষ্ট এক এমপি।

কমিউনিস্ট পার্টির এমপি এবং রুশ পার্লামেন্টের পরিবার, নারী ও শিশু বিষয়ক কমিটির প্রধান তামারা প্লেটনিওভা মস্কো রেডিও স্টেশনে বলেছেন, তিনি জাতীয়তাবাদী নন। কিন্তু রাশিয়ার নারীদের ভিন্ন বর্ণের মানুষদের সঙ্গে সেক্স এড়িয়ে চলা উচিত বলেই তিনি বিশ্বাস করেন। কারণ, এমন হলে তাদের শিশুসন্তানরা ভুক্তভোগী হবে।

অতীতে ১৯৮০ সালে ‘মস্কো গেমস’ এর পর এমন বহু সন্তান জন্ম নিয়েছিল, যাদের ‘চিল্ড্রেন অব দ্য অলিম্পিকস’ আখ্যা দেওয়া হয়। সোভিয়েত যুগে কালো চামড়ার শিশুদের বোঝাতে এ কথাটি ব্যবহার করা হত।

ওইসময় রাশিয়ায় গর্ভনিরোধকের চল তেমন ছিল না। রুশ নারীদের সঙ্গে আফ্রিকা, ল্যাটিন আমেরিকা কিংবা এশিয়ার পুরুষদের সম্পর্ক থেকে জন্ম নেওয়া ওইসব সন্তান বিভিন্ন সময় বর্ণবিদ্বেষের শিকার হয়েছে। এ প্রসঙ্গে রেডিও স্টেশনের এক প্রশ্নের জবাবেই আইনপ্রণেতা প্লেটনিওভা ওই সতর্কবার্তা দেন।

মাসব্যাপী বিশ্বকাপ ফুটবল আয়োজনে রাশিয়ায় প্রতিটি শহর নতুন রূপে সেজে ওঠার মধ্যে আগত পর্যটকদের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক গড়ার ক্ষেত্রে

রুশ নারী ও যুবতীদের সতর্ক করলেন প্লেটনিওভা।

গভোরিত মস্কভা রেডিওকে দেওয়া সাক্ষাতকারে তিনি সতর্ক করে বলেন, এমন সম্পর্কের ক্ষেত্রে প্রায়ই নারীরা বিদেশে কিংবা রাশিয়ায় আটকা পড়ে থাকে। আর সন্তানদের তারা ফিরে পায় না।

তিনি বলেন, “বিদেশি পুরুষদের সঙ্গে সম্পর্ক থেকে জন্ম নেয়া শিশুরা দুর্ভোগ পোহাবে। এক্ষেত্রে পুরুষ ও নারী দু’জনই একই গোত্রের বা বর্ণের হলে এক কথা আর তা না হয়ে যদি নারী-পুরুষ ভিন্ন গোত্র বা বর্ণের হয় তাহলে সন্তান যন্ত্রণা ভোগ করবে। আমি জাতীয়তাবাদী নই। তবুও জানি এমনটি ঘটবে। ওই সন্তানরা পরিত্যাক্ত হবে। তারা তাদের মায়েদের সঙ্গে থেকে যাবে।”

কিন্তু তার এ সতর্কবার্তা নিয়ে অনলাইনে ব্যাপক সমালোচনা হয়েছে। এমন কথা বলে তিনি বর্ণবাদই উস্কে দিচ্ছেন বলে অনেকে তার সমালোচনা করেছে।

বর্ণবাদের বিরুদ্ধে ফিফার অবস্থান এবং বর্ণবাদী প্রচারকে না বলার বিষয়টিতে প্লেটনিওভা কি বলবেন তা নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন কেউ কেউ। কেউ আবার পার্লামেন্ট থেকে তাকে অপসারণেরও দাবি তুলেছেন।

এক টুইটার ব্যবহারকারী বিস্ময় প্রকাশ করে বলেছেন, এমপি প্লেটনিওভা রুশ তরুণীদের আচরণের বিষয়টিও নজরদারিতে রাখতে চান!

অনেকে আবার স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেছেন যে, প্লেটনিওভা আগে ন্যাশনালিটিজ কমিটির প্রধান ছিলেন। এজন্যই তিনি এমন কথা বলতে পারলেন।

তবে অনেকে আবার প্লেটনিওভাকে সমর্থনও করেছেন। বলেছেন, রাশিয়ার উচিত নিজ জাতিরই সন্তানদের বোঝা বহন করা। আবার অনেকে বলেছেন, প্লেটনিওভাসহ প্রত্যেকেরই নিজস্ব মতামত, দৃষ্টিভঙ্গি প্রকাশের অধিকার আছে।