যৌতুক মামলায় কারাদন্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক>
যশোরে যৌতুক মামলায় চন্ডিদাস নামে এক ব্যক্তিকে ২ বছর সশ্রম কারাদন্ড ও অর্থদন্ড দিয়েছে একটি আদালত। চন্ডিদাস মণিরামপুরের মনোহরপুর গ্রামের শীতল দাসের ছেলে। বুধবার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক নুসরাত জাবীন নিম্মী এক রায়ে এ সাজা দিয়েছেন।
মামলার অভিযোগে জানা গেছে, ২০১২ সালের ১০ জানুয়ারি আসামি চন্ডিদাস যশোর সদর উপজেলার ঘুরুলিয়া গ্রামের মৃত বিনোদ দাসের মেয়ে মমতা রাণী দাসকে বিয়ে করে। বিয়ের সময় চন্ডিদাসকে ৩০ হাজার টাকা ও একটি রিক্সা যৌতুক হিসেবে দেয়া হয়। এক বছর যেতে না যেতে আসামি আরও ৫০ হাজার টাকা যৌতুক দাবি করে মমতা রাণীর উপর নির্যাতন শুরু করে। মমতা রাণী যৌতুকের টাকা এনে দিতে অস্বীকার করায় তাকে মারপিট করে শিশু সন্তানসহ পিতার বাড়ি রেখে যায়। দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও চন্ডিদাস খোঁজখবর না নেয়ায় ২০১৪ সালের ১৩ জুন চন্ডিদাসকে বাড়িতে সংবাদ দিয়ে আনা হয়। চন্ডিদাস যৌতুকের টাকা না দেয়া হলে তাকে আর বাড়িতে নিবে বলে জানিয়ে চলে যায়। বিষয়টি মীমাংসায় ব্যর্থ হয়ে ১৬ জুন মমতা রাণী বাদী হয়ে যৌতুক নিরোধ আইনে আদালতে একটি মামলা করেন। এ মামলার দীর্ঘ স্বাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আসামি চন্ডিদাসের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় বিচারক তাকে ২ বছর সশ্রম কারাদন্ড, ২ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক মাসের কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছেন। সাজাপ্রাপ্ত চন্ডিদাস পলাতক রয়েছে।