যশোরে দুই ফিলিং স্টেশনে জরিমানা

নিজস্ব প্রতিবেদক>
যশোরে চৌগাছা সড়কের মেসার্স মিনা ফিলিং স্টেশন ও চুড়ামনকাটির যশোর ফিলিং স্টেশনে অভিযান চালিয়ে ১০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। জ্বালানি তেল ওজনে কম দেওয়ায় দুইটি ফিলিং স্টেশন কর্তৃপক্ষের নামে মামলা দিয়ে এ জরিমানা আদায় করা হয়। অপরদিকে চাঁচড়া ও পুলেরহাটের দুইটি ফার্মেসিতে অভিযান চালিয়ে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ রাখা এবং ড্রাগ লাইসেন্স না থাকায় ১৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। সোমবার পরিচালিত এ ভ্রাম্যমাণ আদালতের নেতৃত্ব দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নুরুল ইসলাম, প্রীতম সাহা, কেএম আবু নওশাদ ও আয়েশা সিদ্দিকা।
আদালতের পেশকার শেখ জালাল উদ্দীন জানান, বেলা ১১টার দিকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নুরুল ইসলামের নেতৃত্বে পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত সদর উপজেলার চুড়ামনকাটির যশোর ফিলিং স্টেশনে অভিযান চালান। এ সময় আদালত দেখতে পায় সেখানে ওজনে জ্বালানি তেল কম দেয়া হচ্ছে। এ অপরাধে ফিলিং স্টেশন ম্যানেজার শামসুর রহমানের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে ৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।
বেলা সাড়ে ১১টার দিকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট প্রীতম সাহার নেতৃত্বে পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত চৌগাছা সড়কের মেসার্স মিনা ফিলিং স্টেশনে অভিযান চালিয়ে অনুরুপ ওজনে জ্বালানি তেল কম দেওয়ার প্রমাণ পায়। এ অপরাধে ফিলিং স্টেশন মালিক মেহেদী হাসানের নামে মামলা দিয়ে ৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।
তিনি আরও জানান, বিকেল ৪টার দিকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কেএম আবু নওশাদের নেতৃত্বে পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত সদর উপজেলার পুলেরহাটের জনতা মেডিকেল হলে অভিযান চালান। এ সময় ফার্মেসিতে তল্লাশী করে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ এবং বিক্রি নিষিদ্ধ ওষুধ পাওয়া যায়। এ ব্যাপারে ফার্মেসি মালিক তৌকির আহমেদের নামে মামলা দিয়ে ১০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।
এছাড়া বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আয়েশা সিদ্দিকার নেতৃত্বে পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত চাঁচড়া বাজারের অঞ্জন কুমার সাহার ওষুধের দোকানে অভিযান চালান। এ সময় ওই দোকানের কোন ড্রাগ লাইসেন্স পাওয়া যায়নি। এ কারণে দোকান মালিকের নামে মামলা দিয়ে ৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।
অভিযানকালে ড্রাগ সুপার রেহান আহমেদ ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।