৫০% ভোট পড়েছে, ধারণা ইসি সচিবের

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক:উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে উপনির্বাচনে কেন্দ্রগুলোতে ভোটারদের তেমন উপস্থিতি দেখা না গেলেও দুই সিটির কাউন্সিলর পদের ভোট মিলিয়ে ভোটের হার ৫০ শতাংশ হতে পারে বলে মনে করছেন নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ।

বৃহস্পতিবার দিনভর ভোট শেষে কমিশনের মিডিয়া সেন্টারে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

হেলালুদ্দীন বলেন, ঢাকা উত্তর সিটির মেয়াদ আছে আর বছর খানেক। উপ নির্বাচনে নির্বাচিতরা ওই পর্যন্তই দায়িত্ব পালন করতে পারবেন।

“প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীও তেমন নেই, তাই ভোটারদের আগ্রহ কম থাকতে পারে। কিন্তু যেখানে ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে যে নির্বাচন হয়েছে, সেখানে বেশ প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক হয়েছে। ভোটারদের উপস্থিতিও সেখানে ভালো ছিল।”

উত্তরের মেয়র পদে উপনির্বাচনের পাশাপাশি ঢাকার দুই সিটির ১৮টি করে মোট ৩৬টি নতুন ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ভোট হয়েছে বৃহস্পতিবার। পাশাপাশি ঢাকা উত্তরের ২১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে হয়েছে উপনির্বাচন।

সকাল ৮টায় শুরু হওয়া বৃষ্টি ঘণ্টা দুই পর থামলেও ভোটারদের উপস্থিতি সেভাবে বাড়েনি। শেষ পর্যন্ত ৫ শতাংশ ভোটও পড়বে কি না, ভোট চলাকালে সে সন্দেহও প্রকাশ করেন মেয়র পদের একজন প্রার্থী।

ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, “ঢাকার উত্তরের মেয়র পদে উপনির্বাচন ও উত্তর-দক্ষিণে সম্প্রসারিত ওয়ার্ডে প্রায় ৫০ শতাংশ ভোট পড়তে পারে সবমিলিয়ে- আমরা এটি ধারণা করছি। তবে এটি চূড়ান্ত নয়। পটুয়াখালীর নির্বাচনে প্রায় ৭০ ভাগ ভোটারের উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে।”

বৃহস্পতিবার ঢাকার উত্তর-দক্ষিণ ছাড়াও পটুয়াখালী, আমতলী, কালিগঞ্জের পৌরসভা নির্বাচনেও শান্তিপূর্ণ ভোট হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, কোথাও কোনো কেন্দ্র স্থগিত হয়নি।

ইসির যুগ্মসচিব আবুল কাসেম ও জনসংযোগ পরিচালক যুগ্মসচিব এসএম আসাদুজ্জামানও সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।