যশোরে ব্যবসায়ী শাফা হত্যা মামলার পরিকল্পনাকারী ওয়াশিংটন অস্ত্রগুলি ইয়াবাসহ আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক:যশোরে মটরপার্টস ব্যবসায়ী মহিদুল ইসলাম শাফা হত্যা মামলার মূল পরিকল্পনাকারী আনোয়ার রেজা ওয়াশিংটনকে (৪৮) অস্ত্র-গুলি ও ইয়াবা ট্যাবলেটসহ আটক করেছে ডিবি পুলিশ। গত মঙ্গলবার শহরের খড়কী শাহ আব্দুল করিম রোড থেকে রাত সড়ে ৯টার দিকে তাকে আটক করা হয়। তিনি শহরের বেজপাড়ার নলডাঙ্গা রোডের চৌধুরী আলী রেজার ছেলে।
বুধবার দুপুরে ডিবি পুলিশের কার্যালয়ে ওসি মারুফ আহমেদ সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে আটকের তথ্য জানান। আটককালে তার কাছ থেকে একটি ওয়ান স্যুটারগান, এক রাউন্ড গুলি এবং ৫শ’ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট জব্দ করা হয়েছে বলে জানানো হয়।
গত ১ জানুয়ারি যশোর শহরের ঈদগাহের পশ্চিমদিকে একটি ফটোকপির দোকানের

সামনে ভাড়াটে খুনিরা গলাকেটে হত্যা করে আরএন রোডের এইচএন এন্টারপ্রাইজ নামে ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের মালিক মহিদুল ইসলাম শাফাকে। এই ঘটনায় নিহতের স্ত্রী অজ্ঞাত আসামি করে একটি মামলা করেন। পরে সংবাদ সম্মেলনে নিহতের স্বজনরা অভিযোগ করেন; ব্যবসায়িক দ্বন্ধের জেরে পার্টনার আনোয়ার রেজা ওয়াশিংটন ভাড়াটে খুনি দিয়ে শাফাকে হত্যা করায়।
পুলিশ জানিয়েছে, হত্যার আগে তিনি ভারতে চলে যান। সেখান থেকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে হত্যাকান্ডের মধ্যস্থতাকারী শংকরপুর জমাদ্দার পাড়ার শাহাবুদ্দিনের সাথে যোগাযোগ রাখতেন। ডিবি পুলিশ তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে হত্যাকারী শংকরপুরের রানা ও রাকিব নামে দুইজনকে আটক করে। তারা দুইজন এবং শাহাবুদ্দিন আদালতে ১৬৪ ধারায় হত্যার জবানবন্দী দেয়। ওই জবানবন্দীতে ওয়াশিংটনের নাম আসে। শাফাকে খুন করার জন্য ওয়াশিংটন দুই লাখ টাকায় চুক্তি করেন শাহাবুদ্দিনের সাথে। অগ্রিম হিসাবে ২০ হাজার টাকাও দেন ওয়াশিংটন।
হত্যাকান্ড ঘটানোর পর জানুয়ারির ১৭ তারিখ ওয়াশিংটন ভারত থেকে দেশে ফেরেন। এবং গা ঢাকা দিয়ে থাকেন। ঢাকায় গিয়ে উচ্চ আদালত থেকে জামিন নেন।
নিহত শাখা বেনাপোল পোর্ট থানাস্থ ধান্যখোলা গ্রামের নবিস উদ্দিনের ছেলে। তিনি যশোর শহরের খালধার রোডের একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতেন।
ডিবি পুলিশের ওসি মারুফ আহমেদ জানিয়েছেন, ‘ওয়াশিংটন উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিয়েছেন কি-না তার প্রমানপত্র পায়নি। আসামির কাছে শুনেছি। সেটি যাচাই করা হচ্ছে। তবে অস্ত্র ও ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধারের ঘটনায় মামলা হয়েছে তার বিরুদ্ধে।’