যশোরে বিদ্রোহী প্রার্থীর ভাইপোসহ আটক ৭

নিজস্ব প্রতিবেদক>
রোববার যশোরের ৭টি উপজেলায় দু’একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। তবে ভোটারদের উপস্থিতি ছিল কম। বিশেষ করে পৌর এলাকার কেন্দ্রগুলোতে ভোটার উপস্থিতি ছিল অপ্রতুল। শার্শা উপজেলায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সব প্রার্থী পাশ করায় সেখানে ভোট গ্রহনের প্রয়োজন হয়নি। আর সদও উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে ভোটগ্রহন হয়েছে। চেয়ারম্যান পদে জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহিন চাকলাদার বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়লাভ করেছেন।
এদিন জাল ভোট দেয়ার অভিযোগে ৫জন এবং অবৈধভাবে ভোট কেন্দ্রে অবস্থান করায় বিদ্রোহী প্রার্থীর ভাইপোসহ দু’জনকে আটক করা হয়েছে।
নির্বাচন অফিস ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, যশোরের চৌগাছায় উপজেলা নির্বাচনে নৌকায় ভোট দেয়ায় এক ভোটারকে মারপিটের অভিযোগে আটক হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী এসএম হাবিবুর রহমানের ভাইপো তারেক মাহমুদ পিয়াস। এসএম হাবিব চৌগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। তিনি আনারস প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। চৌগাছা থানার উপপরিদর্শক সাইফুল ইসলাম জানান, রোববার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে চৌগাছা উপজেলার চাঁদপুর হাজী মুর্তুজা সরদার মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে লিটন নামে একজন ভোটার নৌকা মার্কায় ভোট দিতে চাইলে তাকে মারপিট করেন পিয়াস। এ সময় পুলিশ তাকে আটক করে। তিনি স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী এসএম হাবিবুর রহমানের ভাই এসএম শফিকুর রহমানের ছেলে। একই কেন্দ্র থেকে ভ্রাম্যমাণ আদালত বুথে অবৈধ অবস্থানকারী গোলাম মোস্তফা নামে অপর এক ব্যক্তিকে আটক করে।
এদিকে মণিরামপুর উপজেলায় জাল ভোট দিতে গিয়ে পাঁচ তরুণ ধরা পড়েছেন। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে স্মরণপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে তাদেরকে আটক কর হয়। ওই পাঁচ তরুণ হলেন, স্মরণপুর গ্রামের সালাউদ্দিনের ছেলে আমিনুর রহমান, পট্টি গ্রামের আমিনুর রহমানের ছেলে শুভ হোসেন, ওই গ্রামের এমদাদুল হকের ছেলে ইমন, বাসুদেবপুর গ্রামের হৃদয় হোসেন এবং ভোজগাতী গ্রামের জামাল হোসেনের ছেলে সাগর হোসেন। ওই কেন্দ্রের প্রিজাইডিং কর্মকর্তা মিঠু শেখর দত্ত জানান, বেলা ১১টার দিকে কেন্দ্রের মাঠে ভোট দেওয়ার অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে ছিলেন সাতজন। এসময় সন্দেহ হলে ভ্রাম্যমাণ আদালত তাদের চ্যালেঞ্জ করে। প্রথমে তারা নিজেদের ভোটার হিসেবে দাবি করেন। কিন্তু তারা ভোটার নম্বর জানাতে পারেননি। পরে সাতজনের মধ্যে পাঁচ জন ভুয়া ভোটাকে একটি কক্ষে আটকে রাখার নির্দেশ দেন আদালত।
এছাড়া বাঘারপাড়া উপজেলার বহরমপুর হাইস্কুল কেন্দ্রে নৌকার সমর্থক আওয়ামী লীগ নেতা মাসুদুর রহমান মিঞ্জুকে (৩৮) প্রতিপক্ষ আনারস প্রতীকের সমর্থকরা মারধর করেন বলে অভিযোগ করেন নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. হাসান আলী। তবে আনারসের নাজমুল ইসলাম কাজল এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, নৌকার সমর্থকরা আমার লোকজনকে বাধা দেয়। মাসুদ বাঘারপাড়ার দোহাকুলা ইউনিয়নের নোয়াপাড়ার এজাহার আলীর ছেলে। তিনি ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সম্পাদক।
যশোরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ও রির্টানিং কর্মকর্তা হুসাইন শওকত জানান, কোন ধরণের অপ্রীতিকর পরিস্থিতি ছাড়াই যশোরের ৭ উপজেলায় শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহন শেষ হয়েছে।