কারফিউ উপেক্ষা করে সুদানের রাস্তায় বিক্ষোভ অব্যাহত

স্পন্দন আন্তর্জাতিক ডেস্ক : সুদানের রাস্তায় গত কয়েক মাস ধরে যারা বিক্ষোভ করে আসছিলেন, গতকাল দেশটির প্রেসিডেন্ট ওমর আল-বশিরের ক্ষমতাচুতির পর তারা উল্লাস করছিলেন। কিন্তু তাদের সেই উল্লাস বেশি ক্ষণ স্থায়ী হয়নি। কারণ সামরিক পরিষদ ক্ষমতা নেওয়ায় তারা সন্তুষ্ট নন। আর তাই কারফিউ উপেক্ষা করেই রাস্তায় বিক্ষোভ অব্যাহত রেখেছেন।

বিবিসি বলছে, ৩০ বছর ধরে দেশ শাসন করা ওমর আল-বশিরকে উৎখাত করে সামরিক পরিষদ বৃহস্পতিবার রাতে ছয় ঘণ্টার ওই কারফিউ জারি করে।

রাজধানী খর্তুমের রাস্তাগুলোতে কয়েক মাসের লাগাতার প্রতিবাদের পর বশিরকে ক্ষমতাচ্যুত করার ঘটনা ঘটে।

বিবিসি বলছে, সেনাবাহিনীকে বশিরের শাসনামলের অংশ অ্যাখ্যা দিয়ে আন্দোলনকারীরা রাস্তা ছাড়তে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন।

তবে বিবিসি সংবাদদাতা আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেছেন, দুই পক্ষের এ মুখোমুখি অবস্থান দেশটিতে আরও সংঘাত উসকে দিতে পারে।নিরাপত্তা বাহিনীর বিভিন্ন অংশ এবং আধাসামরিক বাহিনী একে অপরের বিরুদ্ধে অস্ত্র তুলে নিতে পারে বলেও আশঙ্কা অনেকের।

এদিকে, জাতিসংঘ ও আফ্রিকান ইউনিয়ন সুদানের সব পক্ষকেই শান্ত হওয়ার আহ্বান জানিয়েছে।

সুদানের প্রফেশনাল অ্যাসোসিয়েশনের সারা আবদেল আজিজ বলছেন, ‘এটা আগের শাসনেরই ধারাবাহিকতা। তাই আমাদের প্রয়োজন লড়াইয়ের ধারাবাহিকতা ধরে রাখা এবং শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ জানানো।’

এর আগে দেশটির সরকারি গণমাধ্যম এক ঘোষণায় জানায়, সুদানে স্থানীয় সময় রাত ১০টা থেকে ভোর ৪টা পর্যন্ত কারফিউ জারি থাকবে।

ঘোষণায় বলা হয়, ‘নাগরিকদের নিরাপত্তার জন্যই এ আইন মেনে চলতে পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত এবং নাগরিকদের জানমাল রক্ষায় সশস্ত্র বাহিনী ও সামরিক পরিষদ তাদের দায়িত্ব পালন করবে।’

উল্লেখ্য, ১৯৮৯ সাল থেকে গত ৩০ বছর ধরে সুদানের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দেশটির ক্ষমতায় ছিলেন বশির। এই দীর্ঘ সময়ে তার বিরুদ্ধে দুর্নীতি, দমনপীড়ন, হত্যা ও মানবতাবিরোধী অপরাধসহ নানা অভিযোগ রয়েছে।