বাগেরহাটে যৌতুকের বলি গৃহবধূ রুমিচা

বাগেরহাট প্রতিনিধি : বাগেরহাট সদর উপজেলার বেমরতা ইউনিয়নের চরগ্রামে যৌতুকের দাবিতে রুমিচা আক্তার (২০) নামে এক গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সোমবার বিকেলে রুমিচাকে বিষ খাওয়া অবস্থায় বাগেরহাট সদর হাসপাতালে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে।

মঙ্গলবার দুপুরে সদর হাসপাতাল মর্গে ওই গৃহবধূর ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। এ ঘটনায় বাগেরহাট মডেল থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা করা হয়েছে।

সদর উপজেলার বেমরতা ইউনিয়নের চরগ্রামের বাদশাহ শেখের ছেলে শামিম শেখ (২৮) এর সাথে পাশের গোটাপাড়া ইউনিয়নের আলোকদিয়া গ্রামের মিতায়ীল শেখের মেয়ে মোসা. রুমিচা আক্তারের দুই বছর আগে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই শামিম ও তার পরিবার যৌতুকের দাবিতে রুমিচাকে বিভিন্ন সময় শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে আসছিল। প্রায়ই তাদের সংসারে অশান্তি বিরাজ করতো। এ নিয়ে মঙ্গলবার শামিমের মা কমলা বেগম ও বোন হেনা আক্তারের সঙ্গে রুমিচার বাকবিতণ্ডা হলে রুমিচা বিষপান করে।

এদিকে নিহতের বাবা মিতায়ীল শেখ অভিযোগ করে বলেন, বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের দাবিতে আমার মেয়ের ওপর শামিমের পরিবারের লোকজন অমানুষিক নির্যাতন চালায়। শারীরিক নির্যাতনের কারণে বিয়ের ৬ মাসের মধ্যেই ওদের মধ্যে বিচ্ছেদ ঘটে। পরে কোর্টের মাধ্যমে  ফের এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটবে না বলে প্রতিশ্রুতি দিলে আমি মেয়েকে আবারো শামিমের ঘরে পাঠাই। কিন্তু কিছু দিন যেতে না যেতেই আবারো আমার মেয়ের ওপর নির্যাতন চলতে থাকে।

তিনি বলেন, আমি মেয়ের সুখের কথা চিন্তা করে আমার সামর্থ্য অনুযায়ী সবকিছু দিয়েছি শামিমের পরিবারকে। রুমিচাকে ওর শাশুড়ি কমলা বেগম ও ননদ হেনা আক্তার মেরে মুখে বিষ দিয়ে হত্যা করেছে। আমি আমার মেয়ের হত্যাকারীদের বিচার চাই।

বাগেরহাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহাতাব উদ্দিন জানান, এ বিষয়ে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে এ বিষয়ে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।