ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর , ২০২১ ● ১২ আশ্বিন ১৪২৮

যশোরে দুই সপ্তাহে করোনায় মৃত্যু শূন্য ৩ দিন

Published : Tuesday 14-September-2021 21:24:57 pm
এখন সময়: মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর , ২০২১ ০৫:২১:৫৩ am

# টিকা এসেছে আরও ১ লাখ ৫ হাজার ডোজ

বিল্লাল হোসেন: যশোরে আরও একদিন করোনায় আক্রান্ত হয়ে কারো মৃত্যু হয়নি। এই নিয়ে গত ১৪ দিনের মধ্যে ৩ দিন করোনায় মৃত্যু শূন্য হলো। শনাক্তের সংখ্যা অনেক কমে গেছে। ২৪ ঘণ্টায় ৪০২ টি নমুনা পরীক্ষায় ২৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। হাসপাতালেও করোনা ও উপসর্গের রোগী অনেক কমে গেছে। এদিকে, মঙ্গলবার যশোর জেলায় ২ হাজার ৩৮২ নারী পুরুষ করোনার টিকা গ্রহণ করেছেন। এছাড়া আরও ১ লাখ ৫ হাজার ডোজ সিনোফার্ম টিকা এসেছে।

সিভিল সার্জন অফিস জানিয়েছে, গত ১২ জুনের পর যশোর জেলায় করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা শূন্য হয়েছে মোট ৬ বার। প্রথম মৃত্যু শূন্য হয় ১৫ আগস্ট, দ্বিতীয় মৃত্যু শূন্য হয় ২৩ আগস্ট, তৃতীয় শূন্য হয় ২৬ আগস্ট, ৪র্থ মৃত্যু শূন্য হয় ১ সেপ্টেম্বর,  ৫ম মৃত্যু শূন্য হয় ১১ সেপ্টেম্বর ও সর্বশেষ ১৪ সেপ্টেম্বর ছিলো মৃত্যু শূন্যের দিন।

যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আরিফ আহমেদ জানান, আগস্ট মাস থেকে হাসপাতালের রেডজোনে ও ইয়োলোজোনে করোনায় আক্রান্ত ও উপসর্গের রোগীদের মৃত্যু অনেক কমেছে। শুক্রবার সকাল ৮ টা  শনিবার সকাল ৮ টা পর্যন্ত করোনায় কারো মৃত্যু হয়নি।

যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আরিফ আহমেদ জানান, আগস্ট মাস থেকে হাসপাতালের রেডজোনে ও ইয়োলোজোনে করোনায় আক্রান্ত ও উপসর্গের রোগীদের মৃত্যু অনেক কমেছে। সোমবার সকাল ৮ টা  মঙ্গলবার সকাল ৮ টা পর্যন্ত করোনায় কারো মৃত্যু হয়নি।

সিভিল সার্জন অফিসের তথ্য কর্মকর্তা মেডিকেল অফিসার ডা. রেহেনেওয়াজ জানান, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) জেনোম সেন্টারে ৩০২ টি নমুনা পরীক্ষায় ২৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এছাড়া ১০০ জনের র‌্যাপিড এন্টিজেন পরীক্ষায় ৪ জনের শরীরে করোনার জীবাণু মিলেছে। মোট শনাক্ত ২৭ জনের মধ্যে

সদর উপজেলায় ১৭ জন, বাঘারপাড়া উপজেলায় ১ জন, ঝিকরগাছা উপজেলায় ১ জন, চৌগাছা উপজেলায় ২ জন,  কেশবপুর উপজেলায় ১ জন, মণিরামপুর উপজেলায় ৩ জন ও শার্শা উপজেলায় ১ জন রয়েছেন। তিনি আরও জানান, ডা. রেহেনেওয়াজ আরও জানান, মঙ্গলবার ২ হাজার ৩৮২ নারী পরুষ টিকা নিয়েছেন। এরমধ্যে এরমধ্যে চিনের সিনোফার্মের ২ হাজার ৩৬৫ জন ও জাপানের এস্টাজেনেকার দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েছেন ১৭ জন। যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন জানান, ১৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত যশোর জেলায় ২১ হাজার ৪৫৮ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। সুস্থ হয়েছেন ২০ হাজার ২৯৫ জন। যশোরের বিভিন্ন হাসপাতাল ও বাড়িতে মারা গেছেন ৪৮৩ জন। এছাড়া ঢাকা, খুলনা ও সাতক্ষীরার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। সব মিলিয়ে জেলায় করোনায় মারা গেছেন ৪৯৯ জন।

এদিকে, মঙ্গলবার দিবাগত রাতে ফ্রিজারভ্যানযোগে করোনাভাইরাসের আরও ১ লাখ ৫ হাজার ডোজ টিকা (ভ্যাকসিন) এসেছে। সেগুলো বুঝে নেন সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন। এসময় ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. সাইনুর সামাদ, মেডিকেল অফিসার ডা. রেহেনেওয়াজ, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদুল হাসান, ডিআইও-১ মশিয়ার রহমান, ইপিআই সুপার সরোয়ার হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। পরে ভ্যাকসিনগুলো উপযুক্ত তাপমাত্রায় সংরক্ষণের জন্য সংরক্ষণাগারে পাঠানো হয়।