‘শীতের উদ্বৃত্ত বিদ্যুৎ রপ্তানির পথ খোঁজা হচ্ছে’

‘শীতের উদ্বৃত্ত বিদ্যুৎ রপ্তানির পথ খোঁজা হচ্ছে’

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু বলেছেন, শীতে আমাদের বিদ্যুৎ কম লাগে। সে সময়ের উদ্বৃত্ত বিদ্যুৎ অন্যদেশে রপ্তানি করার পথ খোঁজা হচ্ছে।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়ে তিনি একথা বলেন।

নসরুল হামিদ বলেন, ‘আগামীতে ভারত থেকে বিদ্যুৎ আনার ভাল একটি পথ তৈরি হয়েছে। তারা প্রাইভেট এবং ওপেন মার্কেট থেকে বিদ্যুৎ দিতে সম্মত হয়েছে। এটা আমাদের জন্য অনেক বড় সুসংবাদ। কারণ, এখন স্বল্পমূল্যে বিদ্যুৎ আনতে পারব।’

তিনি বলেন, ‘আমরা আগামীতে আমাদের অপ্রয়োজনীয় বিদ্যুৎ শীতকালে প্রতিবেশী নেপালে রপ্তানি করতে পারব। আরও কোথাও করা যায় কি না, সে বিষয়ে পথ খোঁজা হচ্ছে।’

এক প্রশ্নের জবাবে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আগামীতে বিদ্যুৎ সেক্টরে আমাদের বড় চ্যালেঞ্জ, অ্যাফোরট্যাবিলিটি ও রিলায়্যাবিলিটি। এই দুটি বিষয় নিয়ে আগামী বছরগুলোতে কাজ করতে হবে। আমরা আশা করছি, যত দ্রুত সম্ভব রিলায়্যাবল পাওয়ার সোর্স তৈরি করা।’

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘সকালে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে শুভেচ্ছা জানিয়ে এসেছি। সেখানে একই মন্ত্রণালয়ে রাখা হচ্ছে কিনা, সে বিষয়ে কোনো আলোচনা হয়নি। কে মন্ত্রী হবেন, তা প্রধানমন্ত্রীই সিদ্ধান্ত নিবেন।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘যেকোনো পরিকল্পনা নিতে হলে শর্ট, মিড এবং লং-টার্ম নিতে হয়। আমরা শর্ট এবং মিড-টার্ম পরিকল্পনা বাস্তবায়ন প্রায় শেষ করেছি। এখন বড় চ্যালেঞ্জ হবে লং-টার্ম পরিকল্পনা সফল করা।’

তিনি বলেন, ‘বিশ্বের বড় বড় দেশ আমাদের সঙ্গে কাজ করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। ফলে আমাদের ভবিষ্যত অনেক বেশি ভাল হবে। আমাদের মন্ত্রণালয় নিয়ে যেসব সমালোচনা এসেছে, ভালভাবে নিয়েছি। এজন্যই আমার পিরিয়ডে প্রায় ৪০ শতাংশ বিদ্যুৎ উদ্বৃত্ত হয়েছে।’

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, ‘আমাদের স্মার্ট গ্রিড তৈরি করতে হবে, এটা অনেক বড় চ্যালেঞ্জ। কারণ, স্মার্ট গ্রিড তৈরি করতে না পারলে বিদ্যুৎ সেক্টরকে আরও ভাল জায়গায় নিয়ে যাওয়া কঠিন হবে।’