চ্যাম্পিয়ন মাশরাফিদের হারাল চিটাগং

চ্যাম্পিয়ন মাশরাফিদের হারাল চিটাগং

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) বর্তমান চ্যাম্পিয়ন মাশরাফি মর্তুজার রংপুর রাইডার্স। প্রথম ম্যাচে তাদের হারিয়ে দিয়েছে মুশফিকুর রহীমের চিটাগং ভাইকিংস।

মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে টস হেরে রংপুর করেছিল মাত্র ৯৮ রান। ফলে মুশফিকদের লক্ষ্য মাত্র ৯৯, তাতেও কত রঙ ছড়ালো মিরপুর। তবে শেষ পর্যন্ত ৫ বল হাতে রেখে ৩ উইকেটের জয় দিয়েই বিপিএল শুরু করল চিটাগং ভাইকিংস।

আর সংসদ সদস্য নির্বাচত হওয়ার পর প্রথম কোনো ম্যাচে খেলতে নেমেই হারের স্বাদ পেলেন মাশরাফি।

অবশ্য চিটাগংয়ের জয়ের ভিত গড়ে দেন আফগান ওপেনার মোহাম্মদ শাহজাদ। তিনি দলের পক্ষে ২৩ বলে সর্বোচ্চ ২৭ রান করেছেন। মাঝে বিপদ এলেও মুশফিকুরের ২৫ রানে কাজটি সহজ হয়ে যায়।

আর বল হাতে আগুন ঝরিয়ে ৪ উইকেট নেয়া রুবি ফ্রাইলিঙ্ক ১২ এবং সানজামুল ইসলাম ৭ রানে অপরাজিত থেকে দলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন। ৬ বছর পরে প্রত্যাবর্তন হলেও মোহাম্মদ আশরাফুল মাত্র ৩ রান করেছেন।

রংপুরের পক্ষে সফল বোলার মাশরাফি, ২৪ রানে নেন ২ উইকেট। এছাড়া শফিউল, নাজমুল, ফরহাদ ও বেনি হোয়েল প্রত্যেকে একটি করে উইকেট নেন।

ফ্রাইলিঙ্ক ঝড়ে ৯৮ রানেই শেষ মাশরাফির রংপুর

সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ বিপিএলে শুরুটা মাশরাফি মুর্তজার ভালো হলো, বলা যাবে না। কারণ, মুশফিকুর রহীমের চিটাগং ভাইকিংসের কাছে তার দল রংপুর রাইডার্স মাত্র ৯৮ রানে গুটিয়ে গেছে।

রংপুরের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪৪ রান করেছেন রবি বোপারা। স্পিনার সোহাগ গাজীর সংগ্রহ ২১। এর বাইরে কেউই দুই অঙ্কে পৌঁছতে পারেননি।

রুবি ফ্রাইলিঙ্ক ঝড়েই উড়ে গেছেন মাশরাফিরা। তিনি ১৪ রান খরচায় নিয়েছেন ৪ উইকেট। এছাড়া আবু জায়েদ ও নাঈম হাসান ২টি করে এবং খালিদ আহমেদ একটি উইকেট পেয়েছেন।

মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে শনিবার দুপরের চকচকে রোদে টস জিতেও কেন প্রথমে ফিল্ডিং নিলেন চিটাগং অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম, তাতে অনেকেই বিস্মিত হন। কিন্তু, মুশফিকের হয়ে এই প্রশ্নের উত্তর ইনিংসের দ্বিতীয় এবং নিজের প্রথম ওভারেই দিয়ে দেন রুবি ফ্রাইলিঙ্ক।

দক্ষিণ আফ্রিকার ডানহাতি পেসার নিজের প্রথম ৪ বলেই তুলে নিয়েছেন ২ উইকেট। নিজের দ্বিতীয় এবং ইনিংসের চতুর্থ ওভারের দ্বিতীয় বলে আবারও উইকেট নিয়েছেন ফ্রাইলিঙ্ক। দক্ষিণ আফ্রিকার এই পেসারের তাণ্ডবে শুরুতেই বিপদে পড়ে রংপুর।

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগ মানে বিপিএলের ষষ্ঠ আসরের প্রথম ম্যাচটি শুরু হয় দুপুর সাড়ে ১২টায়। মধ্য দুপুরেও টস জিতে প্রথমে বোলারদের হাতে বল তুলে দেন মুশফিক। চিটাগং অধিনায়কের সিদ্ধান্তে শুরুতে কেউ কেউ হয়তো একটু বিস্মিতই হয়েছিল। কিন্তু, বল হাতে নিয়েই সেই বিস্ময় উড়িয়ে দেন ফ্রাইলিঙ্ক।

চিটাগংয়ের হয়ে প্রথম ওভারটি অবশ্য করেন আবু জায়েদ। তার করা প্রথম ওভারটি থেকে মাত্র ১টি রান আসে। সেটিও লেগ-বাই সূত্রে। মানে প্রথম ওভারটি মেডেন দিয়েই শুরু করে আবু জায়েদ।

এরপরই ফ্রাইলিঙ্ক ঝড়। তিনি পরপর ফিরিয়ে দেন অ্যালেক্স হেলস ও মোহাম্মদ মিঠুনকে। হেলস মেরেছেন গোল্ডেন ডাক। মিঠুনও ডাক মেরেছেন। তবে গোল্ডেন শব্দটা যুক্ত হয়নি। কারণ, তিনি খেলেছেন ২টি বল।

ফ্রাইলিঙ্কে উজ্জীবিত হয়ে আবু জায়েদও উইকেট তুলে নেন নিজের দ্বিতীয় ওভারে। ফিরিয়ে দেন ফ্রাইলিঙ্কের স্বদেশি রাইলি রোসোকে। নিজের পরের ওভারের দ্বিতীয় বলে মেহেদী মারুফকেও প্যাভিলিয়নে পাঠিয়ে দেন ফ্রাইলিঙ্ক। রোসো করেন ৭ রান। আর মেহেদী মারুফের সংগ্রহ ১।

মাত্র ১৪ রানে ৪ উইকেট কাঁপতে থাকে রংপুর। স্পিনার নাঈম হাসান এসে তাদের আরও কোণঠাসা করেন। দলীয় ২৫ রানে বেনি হোয়েল এবং ৩১ রানে সাজঘরে পাঠান ফরহাদ রেজাকে। আর দলীয় ৩৫ রানে অধিনায়ক মাশরাফিকে উইকেটের পেছনে তালুবন্দি করান খালিদ আহমেদ, তিনি করেন ২ রান।

তবে একপ্রান্ত আগলে ছিলেন রবি বোপারা। তার সঙ্গে সোহাগ গাজী এসে হাল ধরেন। এই জুটিতেই সর্বোচ্চ ৪৯ রান অসে। ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠা এই জুটিও ভাঙেন সেই ফ্রাইলিঙ্ক। ২১ রান করা গাজীকে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিতে বাধ্য করেন তিনি।

এরপর ৩ চার ২ ছক্কায় ৪৭ বলে ৪৪ করা রবি বোপারাকে ফেরান আবু জায়েদ। আর ইনিংসের শেষ বলে নাজমুল ইসলাম রানআউট হলে রংপুর থামে ৯৮ রানে।