ভূত খেদানোর ছুতোয় কলেজছাত্রীকে লাগাতার ধর্ষণ!

স্পন্দন নিউজ ডেস্ক : বাড়ির দোষ কাটানোর ছুতোয় এক কলেজছাত্রীকে তার বাড়িতেই লাগাতার ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে ভারতের এক তান্ত্রিকের বিরুদ্ধে।

জলপাইগুড়ির ধূপগুড়ি ব্লকের ভান্ডানি এলাকায় এ ঘটনার অভিযোগকে কেন্দ্র করে ইতোমধ্যে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম নিউজ-১৮ জানায়, তিনদিন ধরে ভূত তাড়ানোর নামে চলছিল দরজা বন্ধ করে পুজোপাঠ। আর তার সঙ্গে লাগাতার ধর্ষণ। তান্ত্রিকের লালসার মুখে পড়ে ধর্ষণের শিকার হন ওই কলেজছাত্রী। অভিযুক্ত তান্ত্রিককে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

জি নিউজের খবরে বলা হয়, ওই কলেজছাত্রী অন্ধকার দেখে ভয় পেত। সম্প্রতি রাতে শৌচকর্ম সেরে ঘরে আসার পথে তাকে ভূতে ধরেছে বলে চিৎকার শুরু করে দেন ওই ছাত্রী। তাতে ভয় পেয়ে যায় পরিবারের লোকজন।

এরপর ময়নাগুড়ির বাসিন্দা তান্ত্রিক পরিতোষ রায়ের কাছে কলেজছাত্রীকে নিয়ে যায় পরিবার। পরিতোষ পরামর্শ দেন, ভূত তাড়াতে বাড়িতেই যজ্ঞ করতে হবে।

বৃহস্পতিবারই ধূপগুড়িতে ছাত্রীদের বাড়িতে চলে আসে তান্ত্রিক পরিতোষ। শুরু হয় ঘর বন্ধ করে পূজা-পাঠ, ঝাড়ফুঁক-তুকতাক। শুক্রবার রাতে ঝাড়ফুঁকের সময় বাড়ির সবাইকে একই রকমভাবে চলে যেতে বলে পরিতোষ। প্রায় ৩০ মিনিট পর বাড়ির লোক এসে বন্ধ ঘরে দু’জনকেই নগ্ন অবস্থায় দেখতে পান।

এরপর পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করা হয়। পুলিশ এসে তান্ত্রিককে গ্রেপ্তার করে। পুরো ঘটনার তদন্ত চালাচ্ছে পুলিশ।

ভূত তাড়ানোর নামে টানা তিন দিন কলেজছাত্রীকে নগ্ন করে ঝাড়ফুঁক ও ধর্ষণ করেছেন পরিতোষ। শনিবার পরিতোষকে জলপাইগুড়ি আদালতে তোলা হলে, তার ১২ দিন রিমান্ড মঞ্জুর করেন।