স্ত্রীর ‘পরকীয়া’ অনুসন্ধানে বোরকা পরে যেভাবে ধরা পড়লেন স্বামী

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি : ময়মনসিংহে আনন্দমোহন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে স্ত্রীর ‘পরকীয়ার’ অনুসন্ধান চালাতে গিয়ে বোরকা পরা অবস্থায় গোয়েন্দা পুলিশের হাতে ধরা পড়েছেন সন্দেহপ্রবণ এক স্বামী।

আটক মাহমুদুল হাসান (২৭) শেরপুর জেলার সদর উপজেলার হাওড়া গ্রামের মোফাজ্জল হোসেনের ছেলে। তিনি জামালপুর আইবিএ কলেজে অফিস করণিক পদে চাকরিরত বলে জানিয়েছেন জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি শাহ্ কামাল হোসেন আকন্দ।

এ ঘটনায় ক্যাম্পাসে ও শহরে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে।

 

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি শাহ্ কামাল হোসেন আকন্দ পরিবর্তন ডটকমকে জানান, মাহমুদুল হাসানের স্ত্রী জুলেখা খাতুন (২৫) আনন্দমোহন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে ইসলামিক স্ট্যাডিজ বিভাগের মাস্টার্সে অধ্যয়নরত। সোমবার তার মৌখিক পরীক্ষা থাকায় মাহমুদুল হাসান জামালপুর থেকে ট্রেনে করে একসাথে ময়মনসিংহে আসেন। পরে রিকশায় করে স্ত্রীকে কলেজ গেটে নামিয়ে চলে যান তিনি।

এদিকে বিয়ের পর স্ত্রীর ‘পরকীয়া’ আছে এমন সন্দেহ করে আসছিলেন মাহমুদুল। সন্দেহপ্রবণ স্বামীটি স্ত্রীর ‘পরকীয়া’ হাতেনাতে ধরতে বোরকা পরে স্ত্রীর পিছু নেন। সোমবার স্ত্রীকে কলেজে নামিয়ে দিয়ে গাঙ্গিনারপাড় এলাকার মার্কেট থেকে একটি বোরকা কেনেন। সেটি বাথরুমে গিয়ে পরে কলেজ ক্যাম্পাসে ঢোকেন।

 

কিন্তু, শীতের দিন সব পরিকল্পনা বানচাল হয়ে যায় তার। প্রস্রাব করতে কলেজের পুরুষ বাথরুমে ঢোকেন তিনি। সেখান থেকে বের হওয়ার সময় বিষয়টি কলেজ স্টাফদের নজরে পড়ে। ব্যস! আর যায় কোথায়! তাকে পাকড়াও করে ডাকা হয় পুলিশ।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মাহমুদুল হাসান তার ‘বোরকা কাহিনী’ পুলিশের কাছে বর্ণনা করেন।

উল্লেখ্য, সাত বছর প্রেমের পর ২০১৭ সালের মে মাসে মাহমুদুল হাসান আর জুলেখার বিয়ে হয়।