বিশ্ব নেতারা এখন আর আমাদের তলাবিহীন ঝুড়ির দেশের বাসিন্দা বলে না ………. শেখ আফিল উদ্দিন এমপি

শেখ কাজিম উদ্দিন, বেনাপোল >
যশোর-১ (শার্শা) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ শেখ আফিল উদ্দিন বলেছেন, বাংলাদেশ এখন আর কারো উপর নির্ভরশীল নয়। তাই, বিশ্ব নেতারা এখন আর আমাদের তলাবিহীন ঝুড়ির দেশের বাসিন্দা বলে না। শেখ হাসিনার সফল ১০ বছরের শাসনামলে আমরা চলেছি উন্নয়নের মহাসড়কে। আগামী ৫ বছর প্রধানমন্ত্রী সুস্থ থাকলে এবং মহান আল্লাহ তাঁকে বাঁচিয়ে রাখলে দীর্ঘ ৪৭ বছরে এদেশে যে উন্নয়ন হয়েছে তা দ্বিগুণ ছাড়িয়ে যাবে।
বৃহস্পতিবার বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্টস এসোসিয়েশন আয়োজিত এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সংবর্ধিত ও প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শেখ আফিল উদ্দিন টানা তৃতীয়বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ায় বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্টস এসোসিয়েশনের তাঁকে এ বিশাল সংবর্ধনা দেয়।
এসোসিয়েশনের দফতর চত্বরে সভাপতি মফিজুর রহমান সজনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে শেখ আফিল উদ্দিন এমপি আরো বলেন, হাটি হাটি পা-পা করে আমরা দীর্ঘ ৪৭ বছর অতিক্রম করেছি, কিন্তু স্বাধীনতার ৩৭ বছরে এদেশে তেমন কোন উন্নয়ন হয়নি। নানা ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে এদেশের মাটিতে লুকিয়ে থাকা তখনকার পাকিস্তানি প্রেতাত্মারা নির্মমভাবে হত্যা করে জাতিরজনক বঙ্গবন্ধুকে। সূর্য সন্তানদের হত্যা করে রক্তের হলি খেলায় বারংবার তারা এদেশের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসে। বাংলাদেশকে একটি তলাবিহীন রাষ্ট্রে পরিণত করার চেষ্টা করে। সেখানে জাতিরজনকের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দীর্ঘ ত্যাগ, তিতিক্ষা, ধৈর্য্য ও সততার মধ্য দিয়ে এদেশের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় এসে বাঙালি জাতিকে বীরের জাতিতে প্রশংসিত করেছেন।
এসময় তিনি বলেন, ভারত আমাদের সবচেয়ে বন্ধুপ্রতীম রাষ্ট্র, যারা আমাদের মহান স্বাধীনতা সংগ্রামকালে সার্বক্ষণিক প্রয়োজনীয় সেবা দিয়ে একটি স্বাধীন স্বার্বভৌম বাংলাদেশ গঠনে অগ্রণী ভূমিকা রেখেছিল।
সংসদ সদস্য বলেন, প্রধানমন্ত্রী স্বপ্ন দেখেন এদেশের কোমলমতি শিশুদের লেখা-পড়া শিখিয়ে সুসন্তানে পরিণত করতে পারলে খুব দ্রুত বাংলাদেশ একদিন উন্নত দেশের বাসিন্দা হতে পারবে। তাই, প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্নে স্বপ্নায়িত হয়ে শার্শা উপজেলার শিক্ষার মান বৃদ্ধির লক্ষ্যে আমিও প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। এজন্য চাই এলাকার সকল শ্রেণী পেশার মানুষের সহযোগিতা। তাতে আমার যা কিছু করণীয় আমি তা করব। আমি চাই, প্রত্যেক বাড়িতে একটি হলেও সুসন্তান তৈরি করতে হবে। তাহলে ওই সুসন্তানের আলোয় একদিন তার পরিবার আলোকিত হবে, অন্যদিকে তার আলোয় আমার সোনার বাংলাদেশ আলোকিত হবে।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বেনাপোল কাস্টমস হাউসের কমিশনার বেলাল হোসেন চৌধুরী, ভারতের কলকাতা কাস্টমস ক্লিয়ারিং এন্ড ফরওয়াডিং এজেন্টস এসোসিয়েশনের সভাপতি রাজু গোস্বামী এবং শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জু।
অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্টস এসোসিয়েশনের সিনিয়র সহ সভাপতি আলহাজ নুরুজ্জামান, সাবেক সভাপতি আলহাজ সামছুর রহমান প্রমুখ।
অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্টস এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ইমদাদুল হক লতা ও কাস্টমস বিষয়ক সম্পাদক আলহাজ নাসির উদ্দিন।
এসময় উপস্থিত ছিলেন যশোর জেলা পরিষদের সদস্য অধ্যক্ষ ইব্রাহিম খলিল, অহিদুজ্জামান অহিদ, শার্শা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মেহেদী হাসানসহ বেনাপোল কাস্টমস হাউসের কর্মকর্তা, সিএন্ডএফ এজেন্টস এসোসিয়েশনের যুগ্ম সম্পাদক আলহাজ¦ জামাল হোসেন, মহসিন মিলন, কোষাধ্যক্ষ আলহাজ¦ এনামুল হক মুকুলসহ নেতৃবৃন্দ, সদস্য ও বিভিন্ন পেশাজীবী এবং রাজনৈতিক সংগঠনের নেতা-কর্মীরা।