যশোরে হামলায় যুবক জখম, থানায় অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক>
যশোর সদর উপজেলার গাইদগাছি গ্রামে রিমন (২৫) নামে এক যুবককে মারপিট এবং কুপিয়ে জখম করা হয়েছে। জখমের শিকার ওই যুবক গ্রাম্য চিকিৎসকের বাড়িতে গেলে সেখানেও তাকে অবরুদ্ধ করে জীবননাশের হুমকি দেয়া হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত বুধবার রাত ১০টার দিকে।
রিমনের পিতা শরিফুল ইসলাম বাদল অভিযোগ করেছেন, রিমনের সাথে একই গ্রামের রফিকুল ইসলাম ও তার ছেলে চঞ্চল, পিয়ার আলমের দুই ছেলে জাহিদ ও ফরিদ, নজরুল ইসলামের ছেলে রাসেল এবং একই গ্রামের আবু তালেবের দীর্ঘদিন ধরে পূর্ব শত্রুতা চলে আসছিল। গত বুধবার রাত ১০টার দিকে কাজ শেষে বসুন্দিয়া থেকে বাড়ি ফিরছিলেন রিমন। বাড়ির সামনে কাচা রস্তার ওপর পৌছালে আসামিরা তাকে ঘিরে ধরে। এসময় ধারলো অস্ত্র, লোহার রড, লঠিসোটা নিয়ে তার ওপর আক্রমণ করে। ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথায় কোপ মারলে তিনি মারাত্মক জখম হন। এ সময় রিমনের ছোট ভাই রাব্বি সেখানে পৌছালে তাকেও মারপিটে জখম করা হয়। এরপর তারা বাড়িতে ঢোকে। সে সময় রিমনের মা তাসলিমা ঠেকাতে গেলে তার শ্লীলতাহানি ঘটানো হয়। ঘরের মধ্যে থেকে নগদ টাকাও হাতিয়ে নেয় হামলাকারীরা।
অভিযোগে আরো জানা গেছে, আহত রিমনকে প্রথমে গ্রাম্য চিকিৎসক কামরুল ইসলামের বাড়িতে নেয়া হয়। সেখানে গিয়েও হামলাকারীকে তাকে আটকে রাখে। এবং নানা হুমকি ও ভয়ভীতি দেখায়। পরে বসুন্দিয়া ক্যাম্প পুলিশকে সংবাদ দিলে পুলিশ সেখানে গেলে হামলাকারীরা সটকে পড়ে। পরে পুলিশ আহত রিমনকে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে পাঠায়।
এর আগেও একবার হামলার শিকার হয়েছিলেন রিমন। সে সময় স্থানীয় ক্যাম্প পুলিশে অভিযোগ দিলে পুলিশ শালিস করে দিয়েছিল।
এই ঘটনায় রিমনের মা তাসলিমা বেগম কোতয়ালি থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
এ বিষয়ে কোতয়ালি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সমির কুমার সরকার জানিয়েছেন, হামলার শিকার এক যুবকের মায়ের লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।