বাঁচলো না মাদক ব্যবসায়ীদের হামলায় আহত ঝিকরগাছার ফারুক

নিজস্ব প্রতিবেদক>
বাঁচলো না যশোরের ঝিকরগাছার মনোহরপুর গ্রামের ইজিবাইক চালক আহত ফারুক হোসেন (৩০)। রবিবার রাতে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। গত ২৩ জানুয়ারি মাদক ব্যবসায়ীরা তাকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে গুরুতর আহত করেছিল। ওইদিন তাকে ভর্তি করা হলে চিকিৎকরা ঢাকায় স্থানান্তর করেন। তাকে মৃতভেবে ঢাকা থেকে ফেরত পাঠালে পুনরায় যশোরে ভর্তি করা হয় বলে জানান নিহতের ভাই তাজ উদ্দিন। হত্যার প্রতিবাদে লাশ নিয়ে বিক্ষোভ করেছে এলাকাবাসী।
ঝিকরগাছা থানার সেকেন্ড অফিসার নজরুল ইসলাম জানিয়েছেন, হত্যার ঘটনায় মামলা হয়েছে।
নিহতের ভাই তাজ উদ্দিন ও হাসপাতাল সূত্র জানায়, গত ২৩ জানুয়ারি বিকেলে মনোহরপুর গ্রামের ইমদাদুল হকের ছেলে মাদক স¤্রাট ওলিয়ার রহমান ও মৃত জামাল উদ্দিনের ছেলে মশিয়ারের নেতৃত্বে কালাম, মিকাইল, আলী, শুকুর, খোকন, আনসার, মানোয়ারসহ আরো কয়েকজন বাড়িতে হামলা চালিয়ে গোলাম হোসেনের তিন ছেলে মহিউদ্দিন (৪০), ফারুক হোসেন (৩০) ও মাহবুুর রহমানকে (২৫) কুপিয়ে ও পিটিয়ে জখম করে। এসময় এলাকাবাসী ক্ষুব্ধ হয়ে মাদক সম্রাট ওলিয়ার রহমানকে জখম করে। দুর্বৃত্তরা ফারুকের ঘরবাড়ি ও একটি ইজিবাইক ভাঙচুর করে। আহতদের যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তির পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় রবিবার রাত ৯টা৪০ মিনিটে ফারুক হোসেন মারা যান। সোমবার দুপুরে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের মর্গে লাশের ময়নাতদন্ত শেষে গ্রামে নেয়া হলে বিক্ষুব্ধ হয়ে পড়ে এলাকাবাসী। এসময় তারা লাশ নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করে।
ভাই তাজ উদ্দিন আরো জানান, আসরের পর জানাযা শেষে ফারুককে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। ফারুকের স্ত্রী ও তিন বছরের সন্তান রয়েছে। এখন ছোট্ট শিশুটি তার পিতাকে খুঁজে ফিরছে।
ঝিকরগাছা থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক সাংবাদিকদের জানান, ইতোমধ্যে মশিয়ার রহমান ও মানোয়ারকে আটক করা হয়েছে। অন্যদের ধরতে অভিযান চালানো হচ্ছে।