যশোর জেলা পরিষদ ভবন ভেঙ্গে ফেলার সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার দাবি ৫ ছাত্রসংগঠনের

প্রেসবিজ্ঞপ্তি:যশোরের ইতিহাস-ঐতিহ্যের ধারক জেলা পরিষদ ভবন ভেঙ্গে ফেলার সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন ৫টি ছাত্রসংগঠনের নেতৃবৃন্দ। তারা হলেন বিপ্লবী ছাত্রমৈত্রী যশোরের সভাপতি কৌশিক রায়, সাধারণ সম্পাদক রায়হান বিশ্বাস, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট জেলা কমিটির সভাপতি উজ্জ্বল বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক পলাশ পাল, বাংলাদেশ ছাত্রমৈত্রী যশোর জেলা শাখার সভাপতি অণিমেশ বাছাড়, বাংলাদেশ ছাত্রফেডারেশন জেলা শাখার রাজনৈতিক ও শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক অনুপম আইচ, বাংলাদেশ ছাত্রমৈত্রীর যশোর জেলা শাখার সভাপতি শ্যামল শর্মা ও অর্থ সম্পাদক অরুপ কুমার মিত্র। যৌথ স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেছেন যশোর জেলা পরিষদ ভবনটি যুক্ত বাংলার প্রথম জেলা যশোরের দ্বিতীয় ভবন। নেতৃবৃন্দ বলেন ’একে একে নিভিছে দেউটি’ এর মতো যশোরের ঐতিহ্যের ধারক সব স্মারকগুলো নিশ্চিহ্ন হয়ে যাচ্ছে। যার মধ্যে অন্যতম হলো আধুনিক প্রশাসনিক ব্যবস্থা পরিচালনার প্রথম ভবন জেলা রেজিস্ট্রি অফিসের পরিত্যক্ত ভবন। এই ভবনটি জেলার প্রথম কালেক্টরেট ভবন। পরবর্তীতে স্থান সংকুলান না হওয়ায় ভবনটি ছেড়ে দেয়া হয়। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন দ্বিতীয় ভবনটি হলো জেলা পরিষদ ভবন। স্থানীয় প্রশাসনিক ব্যবস্থা পরিচালনার জন্যে ১৯১৩ সালে ভবনটি নির্মিত হয়। সম্প্রতি কর্তৃপক্ষ এই ভবনটি ভেঙ্গে ফেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। যা দু:খজনক। নেতৃবৃন্দ যশোর জেলা পরিষদ ভবন ভেঙ্গে ফেলার সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানান এবং মূল নকশা অপরিবর্তিত রেখে ভবনটি সংস্কারের দাবি জানান।