যশোর প্রিপারেটরী স্কুল কেন্দ্রে ভুল প্রশ্নপত্র বিতরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক>
বাংলা প্রথমপত্রের নৈব্যক্তিক পরীক্ষায় শনিবার যশোর মিউনিসিপ্যাল প্রিপারেটরী স্কুল কেন্দ্রে অনিয়মিত পরীক্ষার্থীদের প্রশ্নপত্র নিয়মিত পরীক্ষার্থীদের মাঝে বিতরণ করা হয়। বিষয়টি জানাজানি হলে ১০ মিনিটি পরে এই ভুল প্রশ্ন পরিবর্তন করে দেওয়া হয় ।
সূত্র জানায়, শহরের মিউনিসিপ্যাল প্রিপারেটরী স্কুল কেন্দ্রে ১১৩ নম্বর কক্ষে নৈব্যক্তিক প্রশ্নপত্র বিতরণে ভুল হয়েছে। ১০ মিনিট পর সংশ্লিষ্ট কক্ষ পরিদর্শক ও কর্মকর্তাদের বিষয়টি নজরে আসার পর প্রশ্নপত্র পরিবর্তন করে সময় ১২ মিনিট বাড়ানো হয়। তবে ভুক্তভোগী পরীক্ষার্থীদের অভিযোগ শুধুমাত্র ১১৩ নম্বর কক্ষে ভুল প্রশ্নপত্র বিতরণ হয়েছে। কিন্তু পুরো কেন্দ্র ধরে ১২ মিনিট সময় বাড়ানো হয়েছে। কর্মকর্তারা এখানে পক্ষপাতিত্ব করেছেন।
কেন্দ্র সচিব ও প্রধান শিক্ষক আব্দুস সবুর খান বলেন, ঘটনাটি সঠিক। ভুলবশত ১১৩ নম্বর কেন্দ্রে নিয়মিত পরীক্ষার্থীদের মাঝে অনিয়মিত পরীক্ষার্থীদের প্রশ্নপত্র বিতরণ করা হয়। প্রশ্নপত্র সটিংয়ের সময় এ ভুল হয়েছে। তবে পাঁচ মিনিটের মধ্যে বিষয়টি জানাজানি হলে প্রশ্নপত্র পরিবর্তন করে দশ মিনিট সময় বাড়ানো হয়। কেন্দ্রের সময় বাড়ানোর বিষয়ে কেন্দ্র সচিব বলেন, এই ঘটনা শুধুমাত্র ১১৩ নম্বর কক্ষে ঘটেছে। বাকি পরীক্ষার্থী ও কক্ষ পরিদর্শকবৃন্দ ব্যাপারটি জানেই না। তাহলে কিভাবে সময় বাড়ানো সম্ভব হয়।
বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মাধব চন্দ্র রুদ্র বলেন, যশোর মিউনিসিপ্যাল প্রিপারেটরী স্কুলে একটি কক্ষে এ ধরণের ঘটনা ঘটেছে আমি শুনেছি। এতে পরীক্ষার্থীরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি। প্রশ্নপত্র পরিবর্তন করে পরীক্ষার্থীদের সময় বাড়ানো হয়েছে। কেন্দ্র ধরে সব পরীক্ষার্থীদের সময় বাড়ানো হয়েছে কিনা সেটা আমি জানিনা। কী কারণে এটা হয়েছে তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে পরীক্ষা আইনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।