ক্যান্সার কেড়ে নিল পিতা-মাতার অন্ধেরষষ্টি সাগরিকার জীবন

চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি>যশোরের চৌগাছা উপজেলার নারায়ণপুর ইউনিয়নের চাঁদপাড়া গ্রামের দিনমজুর নাজিম উদ্দিন ও রাশিদা বেগম একমাত্র সন্তান সাগরিকা খাতুন (২৫)। মেধাবী সাগরিকা লেখাপড়া শেষ করে ২০১৭ সালের শেষ দিকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিক পদে যোগদান করেন। গরীব পিতার অন্ধেরষষ্টি হিসেবে নিজেকে দাঁড় করান। পাল্টে যায় পরিবারের অবস্থা। মাটির ঘর থেকে পাকা ঘরে বসবাস শুরু হয় তাদের। একমাত্র সন্তান হিসেবে নিজেকে যোগ্য করে তুলেছিলেন সাগরিকা।
তাদের সেই সুখ ভেঙ্গে চুরমার হয়ে গেছে মঙ্গলবার সকালে। উপজেলার খড়িঞ্চা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা সাগরিকার জীবন কেড়ে নিয়েছে দুরারোগ্য ক্যান্সার।
২০১৮ সালের প্রথম দিকে সাগরিকার শরীরে ধরা পড়ে মরণব্যাধি ক্যান্সার। গোটা পরিবারে নেমে আসে এক ধরনের স্তব্ধতা। সন্তানকে সুস্থ করে তুলতে পিতা সব ধরনের চেষ্টা করেন। সে সময় বিভিন্ন জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকার মাধ্যমে সমাজের বিত্তবানদের সহযোগিতা চেয়ে সংবাদ প্রকাশ হয়। সাড়া দেন সমাজের বিত্তবানরা। এগিয়ে আসেন তার সহকর্মী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকা ও শিক্ষা কর্মকর্তাবৃন্দ। অসুস্থ্য সাগরিকাকে নেয়া হয় ভারতের ভেলরে খ্রিস্টান মেডিকেল কলেজ (সিএমসি) এ। ততদিনে তিনি চিকিৎসার বাইরে বলে জানান সেখানকার চিকিৎসকরা। সর্বশেষ রাজধানীর বারডেম হাসপাতালে চিকিৎসাধিন ছিল তিনি। সম্প্রতি তাকে সেখান থেকেও বাড়ি নিয়ে আসা হয়। অবশেষে মঙ্গলবার সকালে নিজ বাড়িতে দুনিয়ার মায়া ত্যাগ করেন। সাগরিকার মৃত্যুতে তার পরিবার, গ্রামবাসী ও উপজেলার শিক্ষক মহলে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।