যশোরে মটরপার্টসের দোকান ও বাড়িতে চুরি

নিজস্ব প্রতিবেদক>
যশোর শহরে তিনটি মটর পার্টসের দোকান ও একটি বাড়িতে চুরি হয়েছে। বুধবার দিনের বেলায় নাজির শংকরপুর হাজারিগেট এলাকার বাড়িতে এবং বুধবার দিবাগত রাতে মুড়লী মোড়ে মটরপার্টসের দোকানে চুরি হয়। এই সব চুরির ঘটনায় কোতয়ালি থানায় অভিযোগ দেয়া হয়েছে।
নাজির শংকরপুর হাজারিগেট এলাকার মনিরুল ইসলাম কাজল অভিযোগ করেছেন, তিনি জেলা ইট ভাটা মালিক সমিতির অফিসে চাকরি করেন। বুধবার সকালে তিনি তার স্ত্রী রোকেয়া খানম ও দুই সন্তানসহ তার এক আত্মীয়ের বাড়িতে যান। যাওয়ার আগে বাড়ির দরজা জানালা এবং ক্লবসিবল গেটে দুইটি তালা লাগিয়ে যান। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে তিনি বাড়িতে ফিরে দেখেন ক্লবসিবল গেটের দুইটি তালা নেই। গেট খোলা। ঘরের মধ্যে বিভিন্ন জিনিসপত্র এলোমেলো। ওয়ার ড্রপের ড্রয়ার খোলা। তার মধ্যে রাখা নগদ ৩০ হাজার টাকা, ৫ ভরি ওজনের সোনার অলংকার নেই। সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার মধ্যে যে কোন সময়ে অজ্ঞাতনামা চোর বা চোরচক্র তালা ও ক্লবসিবলগেট ভেঙ্গে নগদ টাকা ও সোনার গহনা চুরি করে নিয়ে গেছে।
মুড়লী মোড়ের মাজেদুল ইসলাম টুটুল অভিযোগ করছেন, তার মুড়লীর মোড়ে চেয়ারম্যান মার্কেটে এবি ট্রেডার্স নামে একটি দোকান রয়েছে। একই মার্কেটে আব্দুল হামিদের শিহাব মটর, আব্দুস সামাদের লাবিব মটরস নামে আরো দুইটি দোকান আছে। প্রত্যেক দিন রাত ১২টার দিকে তিনিসহ অন্যান্য ব্যবসায়ী দোকান বন্ধ করে বাড়িতে চলে যান। বুধবার রাত ১২টার দিকে তিনি ও আরো দুই ব্যবসায়ী দোকান বন্ধনে চলে যান। বৃহস্পতিবার সকালে তিনিসহ অন্যান্য ব্যবসায়ী দোকানে এসে দেখেন দোকানের তালা খোলা। তার দোকানের ৩০ হাজার টাকা বিভিন্ন প্রকার মালামাল নেই। আব্দুল হামিদের ক্যাশ বাক্সে রাখা নগদ ৬৫ হাজার টাকা, তিনটি মোবাইল ফোনসেট এবং আরো ৪০ হাজার টাকার মালামাল নেই। আব্দুস সামাদের দোকান থেকে এক লাখ টাকা মূল্যের বিভিন্ন প্রকার মালামাল চুরি হয়। অজ্ঞাতনামা চোর বা চোর চক্র রাতের আঁধারে তিনটি দোকানের তালা ভেঙ্গে নগদ টাকা ও পার্টস চুরি করে নিয়ে গেছে। সকালে তিনি পুলিশে সংবাদ দিলে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এই ঘটনায় টুটুল কোতয়ালি থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
এ বিষয়ে কোতয়ালি থানার ওসি অপূর্ব হাসান জানিয়েছেন, চুরির ঘটনা শুনেছি। সেখানে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। থানায় অভিযোগ দেয়া হয়েছে। পুলিশ তদন্ত করছে।