প্রধানমন্ত্রী ডাকতেই সাড়া দেন কাদের

স্পন্দন নিউজ ডেস্ক :
প্রধানমন্ত্রী ডাকতেই সাড়া দেন কাদের

শেখ হাসিনা, আওয়ামী লীগের সভাপতি। ঠিক তার পরেই দলে অবস্থান ওবায়দুল কাদেরের, সাধারণ সম্পাদক। দু’জনে মিলে দল চালান।

একইভাবে শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী। আর ওবায়দুল কাদের তার সরকারের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সামলান।

এজন্য শেখ হাসিনা এবং ওবায়দুল কাদেরের মধ্যকার সম্পর্ক দল ও সরকারের অন্য যে কারও চেয়ে একটু বেশি। তাই নেত্রীর ডাকে রোববার বিকেলে হাসপাতালের বেডে শয্যাশায়ী ওবায়দুল কাদের প্রথম সাড়া দেন।

যেটি বিকেলে চিকিৎসকদের ব্রিফিংয়েও উঠে এসেছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল হাসপাতালের মিল্টন হলের ব্রিফিংয়ে হাসপাতালের কার্ডিওলজি বিভাগের সভাপতি সৈয়দ আলী আহসান বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হাসপাতালে আসার পর যখন নাম ধরে ওবায়দুল কাদেরকে ডাক দেন, তখন তিনি সাড়া দিতে চোখের পাতা নাড়ানোর চেষ্টা করেন। এ সময় তিনি পা-ও নাড়ানোর চেষ্টা করেন।’

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী চলে যাওয়ার পর আসেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। তিনিও নাম ধরে ডাক দিতেই ওবায়দুল কাদের বড় বড় করে তার দিকে তাকান। একইভাবে সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের ডাকে সাড়া দেন।’

এক প্রশ্নের জবাবে আলী আহসান বলেন, ‘ওবায়দুল কাদেরের অবস্থা এখনও ক্রিটিক্যাল। ২৪ থেকে ৭২ ঘণ্টা না গেলে আমরা কিছুই বলতে পারছি না। আমি দেশবাসীর কাছে তার জন্য দোয়া কামনা করছি।’

 

চিকিৎসক হিসেবে কতটুকু আশা করছেন— এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছেন। তবে, আমরা আশাবাদী। আল্লাহ চাইলে এখান থেকেও তিনি আমাদের সবার মাঝে ফিরে আসতে পারেন।’

সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা আবু নাছের টিপু পরিবর্তন ডটকমকে জানান, রোববার ফজরের নামায শেষে হঠাৎ করেই ওবায়দুল কাদেরের শ্বাস-প্রশ্বাসে সমস্যা হচ্ছিল। সঙ্গে সঙ্গে তাকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে নেয়া হয়।

সেখানে আইসিইউতে নিয়ে পরে তার এনজিওগ্রাম করা হলে হার্টে চারটি চেম্বার ব্লক ধরা পড়ে। জরুরি ভিত্তিতে একটিতে আমেরিকান সেনারজি কোম্পানির একটি রিং পরিয়ে কৃত্রিম শ্বাস-প্রশ্বাস দেয়া হচ্ছে।

ইতোমধ্যে হাসপাতালে এসে ওবায়দুল কাদেরকে দেখে গেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিকেল ৪টা ২৪ মিনিটের দিকে রাষ্ট্রপতি হাসপাতালে আসেন। প্রায় ১৮ মিনিট পর বিকেল ৪টা ৪২ মিনিটের দিকে তিনি হাসপাতাল ত্যাগ করেন।

রাষ্ট্রপতির আগে বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওবায়দুল কাদেরকে দেখতে হাসপাতালে আসেন। বিকেল সোয়া ৪টার দিকে তার গাড়িবহর হাসপাতাল ত্যাগ করে।