‘ক্ষমতা ধরে রাখতে ধর্মের অব্যবহার হচ্ছে’

নিজস্ব প্রতিবেদক :  ক্ষমতা ধরে রাখতে এদেশে একটি রাজনৈতিক গোষ্ঠী ধর্মের অপব্যবহার করছে বলে অভিযোগ করেছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান নেতা ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন।

সোমবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে সন্ত্রাসী হামলায় হতাহতদের প্রতি সংহতি প্রকাশের অনুষ্ঠানে তিনি এ অভিযোগ করেন।

গত ১৫ মার্চ ক্রাইস্টচার্চের আল-নূর ও লিনউড মসজিদে জুমার নামাযের সময় হামলা চালিয়ে অস্ট্রেলীয় বংশোদ্ভূত উগ্রপন্থী ব্রেনটন টারান্ট পাঁচ বাংলাদেশিসহ ৫০ মুসলিমকে হত্যা করে। এতে আহত হন অন্তত ৫০ জন।

তাদের স্মরণসভায় কামাল হোসেন বলেন, ‘ধর্মকে ব্যবহার করা কারও উদ্দেশ্য হওয়া উচিত নয়। কিন্তু, এদেশে রাজনৈতিক একটি গোষ্ঠী তাদের ক্ষমতাকে ধরে রাখার জন্য ধর্মের অপব্যবহার করছে। ধর্মকে অপব্যবহার করেই মানুষকে তার অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘স্বাধীনতার অর্জনগুলো ধরে রাখতে সম্প্রীতির মূল্যবোধ ছড়িয়ে দিতে হবে। ধর্মের ভিত্তিতে ঐক্য বিনষ্ট করা সংবিধান সম্মত নয়। অনেক ক্ষেত্রে মানুষের মাঝে বৈষম্য সৃষ্টি করতে ধর্মকে ব্যবহার করা হয়েছে।’

প্রবীণ এই আইনজীবী বলেন, ‘সংবিধানেও আছে ধর্মের অপব্যবহার করা যাবে না। স্বাধীন দেশের নাগরিক হিসেবে আমাদের দায়িত্ব সব ধর্মের সঙ্গে সম্প্রীতি গড়ে তোলা। ধর্মের নামে কোনো বৈষম্য এদেশে করা যাবে না।’

কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, সংবিধান বিশেষজ্ঞ ড. শাহদীন মালিক, সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব আলী ইমাম মজুমদার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. আসিফ নজরুল, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ড. সুকোমল বড়ুয়া, রাষ্ট্রবিজ্ঞানী দিলারা চৌধুরী প্রমুখ।